শীতলক্ষ্যায় ডুবে যাওয়া লঞ্চ উদ্ধার, নিহত বেড়ে ২৪

প্রকাশিত: ৪:৪০ অপরাহ্ণ, এপ্রিল ৫, ২০২১

নারায়ণগঞ্জের শীতলক্ষ্যা নদীতে যাত্রীবাহী লঞ্চডুবির ঘটনায় আরও ১৯ জনের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। এ নিয়ে মোট লাশের সংখ্যা ২৪। ডুবে যাওয়া লঞ্চটি টেনে তীরে তোলা হয়েছে। সোমবার (৫ এপ্রিল) দুপুরে ডুবে যাওয়া লঞ্চটি টেনে তীরে তোলা হয়।

জানা গেছে, দুর্ঘটনার পর সাঁতরে তীরে উঠেছেন ২৬ জন যাত্রী। ঘটনাস্থলে নিখোঁজ যাত্রীদের উদ্ধারে কাজ করছে বিআইডব্লিউটিএ, কোস্টগার্ড, দমকল বাহিনী, নৌ ও থানা পুলিশের উদ্ধারকর্মীরা। লঞ্চটিতে মোট ৪৬ জন যাত্রী ছিল। এ ঘটনায় নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রশাসন ও বিআইডব্লিউটিএ দুটি পৃথক তদন্ত কমিটি গঠন করেছে।

এর আগে রবিবার (৪ এপ্রিল) মধ্যরাতে নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রশাসক মোস্তাইন বিল্লাহ জানিয়েছেন, ডুবে যাওয়া লঞ্চটি উদ্ধার হওয়ার আগ পর্যন্ত উদ্ধার অভিযান চলবে। শীতলক্ষ্যা নদীর পূর্ব পাশের বন্দর উপজেলার মদনগঞ্জ ঘাট দিয়ে ১০ জন ও পশ্চিম পাশের ঘাট দিয়ে আরও ১৬ জন জীবিত অবস্থায় তীরে উঠেছেন বলে আমরা জানতে পেরেছি।

জেলা প্রশাসক জানিয়েছিলেন, লঞ্চডুবির ঘটনায় পাঁচ নারীর লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। সরকারের পক্ষ থেকে প্রত্যেক নিহত পরিবারের জন্য ২৫ হাজার টাকা দেওয়া হচ্ছে। পাশাপাশি আহতদের প্রশাসনের পক্ষ থেকে চিকিৎসার ভার নেওয়া হয়েছে।

মোস্তাইন বিল্লাহ আরও জানান, এই ঘটনায় অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট তাহেরা খানম ববিকে প্রধান করে সাত সদস্য বিশিষ্ট একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। আগামী পাঁচ কার্যদিবসের মধ্যে কমিটিকে রিপোর্ট পেশ করতে বলা হয়েছে।

ডুবে যাওয়া লঞ্চটির মালিকের নাম আলাল হোসেন। তিনি মুন্সিগঞ্জের বাসিন্দা বলে জানান লঞ্চ মালিক সমিতির সহসভাপতি মনিরুজ্জামান।

তিনি বলেন, এই রুটে ২৫টি যাত্রীবাহী লঞ্চ চলাচল করে। আমাদের যাত্রীবাহী লঞ্চগুলোর আয়তন ছোট। কোস্টার জাহাজগুলো এই রুটে বেপরোয়াভাবে চলাচল করে। বারবার বলার পরও তারা কোনো সমঝোতা করে চলাচল করে না। কোস্টার জাহাজগুলোকে নিয়ম মেনে চলাচল করার দাবি জানান তিনি।

মন্তব্য করুন