আ’লীগের সন্ত্রাসীরা আক্রমণ করেছে হেফাজত কর্মীদের ওপর: ফখরুল

প্রকাশিত: ৯:৩৯ অপরাহ্ণ, মার্চ ৩০, ২০২১

সারা দেশে বিএনপির নেতা-কর্মীদের শান্তিপূর্ণ কর্মসূচির ওপর পুলিশি হামলার নিন্দা জানিয়েছেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

নিন্দা জানিয়ে তিনি বলেন, আমাদের সম্পূর্ণ শান্তিপূর্ণ কর্মসূচির ওপরে তারা আক্রমণ করেছে। অথচ সারাক্ষণ সরকারি নেতৃবৃন্দ, মন্ত্রীরা, আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দ প্রচার চালাচ্ছে যে, তাণ্ডব, বিরোধীদলগুলোর হেফাজতী তাণ্ডব। হেফাজতের সঙ্গে আমাদের এই কর্মসূচিগুলোর কোনো সংশ্রব নেই।

বিএনপি দু’দিনের কর্মসূচির বিষয়ে আজ মঙ্গলবার সরকারের মন্ত্রী-নেতাদের বক্তব্যের পরিপ্রেক্ষিতে বিএনপি মহাসচিব এক সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা বলেন।

গুলশানে চেয়ারপারসনের কার্যালয়ে এই সংবাদ সম্মেলন হয়। সংবাদ সম্মেলনে দলের সাংগঠনিক সম্পাদক সৈয়দ এমরান সালেহ প্রিন্স, প্রচার সম্পাদক শহীদ উদ্দিন চৌধুরী এ্যানী, তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক রিয়াজ উদ্দিন নসু, সহ দপ্তর সম্পাদক তাইফুল ইসলাম টিপু ও চেয়ারপারসনের প্রেস উইংয়ের সদস্য শায়রুল কবির খান উপস্থিত ছিলেন।

এসময় মির্জা ফখরুল বলেন, আপনারা লক্ষ্য করে দেখবেন যে, প্রথম যে মিছিল হেফাজতের ছিল বায়তুল মোকাররমে। তারা একটা সাধারণভাবে প্রতিবাদ মিছিল করতে চেয়েছিল। সেই প্রতিবাদ মিছিলের ওপরে উত্তর দিক থেকে পুলিশ আক্রমণ করেছে। দক্ষিণের গেইট দিয়ে যখন পালাতে গেছে তখন আওয়ামী লীগের সশ্বস্ত্র সন্ত্রাসীরা আক্রমণ করেছে এবং সেখানে বহু লোককে হতাহত করেছে।

মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, সরকার একটা প্রচারণা চালাচ্ছে যে, আমরা হেফাজতকে সমর্থন দিয়েছি, আমরা মৌলবাদকে সমর্থন দিয়েছি, আমরা সম্প্রদায়িক একটা সমস্যা তৈরি করার চেষ্টা করছি। পেছন দিক থেকে নাকি আমরা মদদ দিচ্ছি, উসকানি দিচ্ছি। আমরা স্পষ্ট করে বলতে চাই, বিএনপি নয়, উসকানি তো দিয়েছে সরকার। প্রথম থেকে উসকানি দিয়ে আজকে এই অবস্থার সৃষ্টি করেছে তারা।

তিনি আরো বলেন, ঠিক একই ঘটনা ঘটেছে চট্টগ্রামের হাটাজারিতে। তারা সেখানে মিছিল করতে গিয়ে সেখান গুলি করেছে, সেই গুলিতে মারা গেছে। পরবর্তি শান্তিপূর্ণ মিছিলের ওপরে, সমাবেশের ওপরে তারা গুলি করেছে।

মির্জা ফখরুল বলেন, স্বাধীনতা দিবস ২৬ মার্চ বাংলাদেশের ইতিহাসে একটা কলঙ্কজনক অধ্যায় সংগঠিত হয়েছে। স্বাধীনতার ৫০ বছর যখন সমগ্র জাতি পালন করছে তখন এই অবৈধ সরকারের পুলিশ এবং আওয়ামী লীগে সন্ত্রাসী পেটুয়া বাহিনীর গুলিতে ও আক্রমণে ঢাকা, চট্টগ্রাম ও ব্রাক্ষণবাড়ীয়াতে সাধারণ মানুষের রক্ত ঝরেছে।

মির্জা ফখরুল আরো বলেন, এই হত্যাযজ্ঞের প্রতিবাদ জানিয়েছি। গতকাল সারা দেশে মহানগরগুলো প্রতিবাদ সমাবেশ এবং আজকে জেলা সদরগুলোতে প্রতিবাদ সমাবেশ-মিছিল হয়েছে। দুইদিনে সারা দেশে আমাদের নেতা-কর্মীরা সমাবেশ করার চেষ্টা করেছে, বিভিন্ন জায়গায় সফল হয়েছে।

‘‘বেশিরভাগ জায়গা পুলিশ ও আওয়ামী সশস্ত্র বাহিনী মারাত্মক অস্ত্রে সজ্জ্বিত হয়ে সাধারণ মানুষের ওপর চড়াও হয়েছে, আক্রমণ করেছে। গত কয়েকদিনে আমাদের হিসাব অনুযায়ী ১৫ জন মানুষ প্রাণ হারিয়েছে। আমরা পরিস্কার করে বলতে চাই, আমাদের প্রতিবাদ ছিল স্বাধীনতা দিবসে মানুষ হত্যার প্রতিবাদে।’’

হেফাজত কোনো রাজনৈতিক সংগঠন নয় বলে জানিয়ে তিনি বলেন, সরকার যেহেতু এই হত্যাকাণ্ড ঘটিয়েছে, সেই হত্যাকাণ্ডের প্রতিবাদ আমরা করছি। আমাদের সাংবিধানিক অধিকার রয়েছে যে, যেকোনো দল বা সংগঠন তাদের মতপ্রকাশের জন্য তারা সমাবেশ করতে পারে, মিছিল করতে পারে। এখানে যে আঘাতটা এসেছে আমরা তার প্রতিবাদ করছি-এটা আমাদেরকে বুঝতে হবে।

মন্তব্য করুন