আমাদের আঘাত করা আর দেশকে আঘাত করা সমান : বক্তা রফিকুল ইসলাম

প্রকাশিত: ১:২৯ অপরাহ্ণ, মার্চ ২৫, ২০২১

স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তীতে রাষ্ট্রীয় অতিথি হিসেবে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির আগমনকে কেন্দ্র করে রাজধানীর মতিঝিল শাপলাচত্বর এলাকায় মোদিবিরোধী বিক্ষোভ করেছে অধিকার পরিষদ। সেখানে পুলিশের সঙ্গে যুব অধিকার পরিষদের ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটেছে। এ সময় বিক্ষোভকারীরা ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির কুশপুত্তলিকা দাহ করেন।

এ ঘটনায় পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে মাওলানা রফিকুল ইসলাম নামের এক বক্তাকে আটক করেছে। ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার জেরে শাপলাচত্বর হয়ে দৈনিক বাংলা-গুলিস্তান রাস্তাটি বন্ধ রয়েছে। ওই এলাকায় থমথমে পরিস্থিতি বিরাজ করছে। তবে বিকল্প রাস্তা হিসেবে শাপলাচত্বর থেকে ফকিরাপুল হয়ে গাড়ি চলাচল করছে।

তবে যুব অধিকার পরিষদের মিছিলে মাওলানা রফিকুল ইসলাম কিভাবে উপস্থিত হলেন তা জানা যায়নি। বরং আজ জোহরের পর বায়তুল মোকাররম থেকে সমমনা ইসলামী দলগুলোর একটি মোদি বিরোধী সমাবেশের কথা ছিল।

গ্রেফতারের পরপর নিজের গ্রেফতারের বিষয়টি নিশ্চিত করে পুলিশভ্যান থেকে তিনি তার ফেসবুক আইডি থেকে লাইভে আসেন।

লাইভে দেখা যায় তাকে ভ্যানে করে থানায় নিয়ে যাওয়া হচ্ছে। তার সঙ্গে আরো কয়েকজন সহযোদ্ধা। এ সময় তিনি লাইভে বলেন,

‘আসসালামু আলাইকুম ওয়া রাহমাতুল্লাহ। সম্মানিত দেশবাসী! আপনার দেখছেন, পুলিশ আমাদেরকে গ্রেফতার করে প্রিজনভ্যানে নিয়ে এসেছে। তিনি বলেন, ‘আমরা বলতে চাই, আমরা দেশের বিরুদ্ধে নই এবং ইসলামের বিরুদ্ধে নয়। আমাদেরকে পুলিশ ভাইয়েরা আঘাত করেছে। আমরা তাদেরকে বলবো, আমাদের আঘাত করা আর দেশকে আঘাত করা একই কথা। আমরা দেশের বিরুদ্ধে নই এবং ইসলামের বিরুদ্ধে নয় আমরা মোদির বিরুদ্ধে ’।

তবে এ বিষয়ে এখনো পুলিশের পক্ষ থেকে কোনো বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

এর আগে গত মঙ্গলবার (২৩ মার্চ) বিকেলে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের টিএসসি সংলগ্ন ডাস চত্বরে নরেন্দ্র মোদির বাংলাদেশ সফরের প্রতিবাদে প্রগতিশীল ছাত্রজোটের বিক্ষোভ ও কুশপুতুল পোড়ানোর কর্মসূচিতে হামলার ঘটনা ঘটে। এতে সাংবাদিক এবং ছাত্রজোটের নেতাকর্মীসহ ২৫ জন আহত হন। ওই হামলার জন্য ছাত্রলীগের নেতাকর্মীদের অভিযুক্ত করেন ছাত্রজোটের নেতারা।

প্রসঙ্গত, আজকের বিক্ষোভ থেকে আটক হওয়া রফিকুল ইসলাম রাজধানীর জামিয়া মাদানীয়া বারিধারা মাদরাসায় লেখাপড়া করেছেন। শারীরিক আকৃতিতে ছোট হওয়ায় তাকে অনেকে শিশুবক্তা বলেন এবং এ হিসেবেই পরিচিতি পান তিনি। নেত্রকোনা জেলার পশ্চিম বিলাশপুর সাওতুল হেরা মাদরাসার পরিচালক রফিকুল ইসলাম ২০ দলীয় বিএনপি-জামায়াত জোটভুক্ত জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম ও মাওলানা মামুনুল হক সহ দেশের প্রথম সারির বক্তাদের সংগঠন রাবেতাতুল ওয়ায়েজিনের সঙ্গে যুক্ত আছেন বলেও জানা যায়।

মন্তব্য করুন