বেরোবি ভিসির বিরুদ্ধে ফৌজদারী মামলার সুপারিশ ইউজিসির

প্রকাশিত: ৭:৪০ অপরাহ্ণ, মার্চ ৬, ২০২১

বেরোবি প্রতিনিধিঃ বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি অধ্যাপক ড. নাজমুল আহসান কলিমুল্লাহ’র বিরুদ্ধে প্রধানমন্ত্রীর অগ্রাধিকারপ্রাপ্ত বিশেষ উন্নয়ন প্রকল্পের নির্মাণ কাজে দুর্নীতির চাঞ্চল্যকর প্রমাণ পাওয়ায় ফৌজদারি মামলার সুপারিশ করা হয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের (ইউজিসি) তদন্ত কমিটির সদস্য ফেরদৌস জামান গতকাল রাতে জার্মানভিত্তিক সংবাদমাধ্যম ডয়চে ভেলেকে কলিমউল্লাহর বিরুদ্ধে ফৌজদারী মামলার সুপারিশ করেন।

তিনি বলেন, ভিসি নিজেই নকশা পরিবর্তন করে নির্মাণব্যয় ১৩০ ভাগ বাড়িয়েছেন। এখন তার বিরুদ্ধে শুরু হচ্ছে তদন্ত৷ আরো ৪৫টি অভিযোগেরও তদন্ত হবে বলে জানান৷

ইউজিসির তদন্ত কমিটির সদস্য ফেরদৌস জামান বলেন, ‘‘তার বিরুদ্ধে আমরা ফৌজদারী মামলারও সুপারিশ করেছি৷ তিনি একটি প্রকল্পের মোট তিনটি স্থাপনার নকশা নিজের ইচ্ছেমতো পরিবর্তন করে খরচ ১৩০ ভাগ বাড়িয়েছেন৷ আগের পরামর্শক বাদ দিয়ে নিজের ভাগ্নেকে প্রকল্পের পরামর্শক বানিয়েছেন৷ হেন কোনো নয়-ছয় নেই যা তিনি এই প্রকল্প নিয়ে করেননি৷ এখন প্রকল্পের কাজ বন্ধ করে দেয়া হয়েছে৷’’

তিনি আরও বলেন, এই প্রকল্পের কাজ শুরু হয় চার বছর আগে ৷ তার মধ্যে আছে ১০ তলা বিশিষ্ট শেখ হাসিনা ছাত্রী হল, ড. ওয়াজেদ রিসার্চ ইনস্টিটিউটের ১০ তলা ভবন, ও স্বাধীনতা স্মারক নির্মাণ৷ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এই প্রকল্পের কাজ উদ্বোধন করেছিলেন৷ ২০১৮ সালে কাজ শেষ হওয়ার কথা ছিল৷ কিন্তু তারপর উপাচার্য ড. নাজমুল আহসান কলিমুল্লাহ একনেকের কোনো অনুমোদন ছাড়াই নকশা পরিবর্তন ও পরামর্শক বাদ দিয়ে তার ভগ্নেকে পরামর্শক নিয়োগ করে কাজ চালান৷
ফেরদৌস জামান জানান, ‘‘মূল প্রকল্প ছিল ৯৭ কোটি পঞ্চাশ লাখ টাকার৷ তিনি এটার ব্যয় বাড়িয়ে করেছেন ২১৩ কোটি টাকা৷’’

তদন্ত নিয়ে তিনি বলেন তদন্ত কমিটি সরেজমিন গিয়ে কাজের অবস্থা দেখে এই প্রতিবেদন দিয়েছে৷ তবে উপাচার্য অন্তত দুইবার তদন্ত কমিটির তদন্ত বাধাগ্রস্ত করার চেষ্টা করেন বলে অভিযোগ আছে৷#

মন্তব্য করুন