শ্রী মোদীজিকে অভিনন্দন, ভারতে মুসলিমদের ভয় নেই: ড. উমর আহমেদ

প্রকাশিত: ৭:৫৬ অপরাহ্ণ, মার্চ ৫, ২০২১

অভিযোগ আছে ভারতে মুসলিমরা ভয়ের রাজত্বে বাস করছে। কিন্তু অল ইন্ডিয়া ইমাম অর্গানাইজেশনের প্রধান ইমাম ড. উমর আহমেদ ইলিয়াসি তা মনে করেন না।

সম্প্রতি এই ভয় এবং করোনা টিকা নিয়ে সিএনএন-নিউজ১৮-এর সঙ্গে তিনি কথা বলেছেন। তার সাক্ষাৎকারের গুরুত্বপূর্ণ অংশ তুলে ধরা হলো। সাক্ষাৎকার নিয়েছেন আনন্দ নরসিংহাম।

আনন্দ: ভারতে মুসলমানরা কি নিরাপদ?

ড. ইলিয়াসি: প্রথমত, আমি বিস্মিত হই যখন লোকে প্রশ্ন করে যে আমি একজন ভারতীয় মুসলমান নাকি একজন ভারতীয় খ্রিস্টান। আমার সবচেয়ে বড় আপত্তি শুধু এই প্রশ্নে। আমাদের পরিচয় ভারতের সাথে, আমাদের দেশ। ধর্ম ভিন্ন হতে পারে, জাতি ভিন্ন হতে পারে, ধর্মীয় ঐতিহ্য ভিন্ন হতে পারে এবং উপাসনার উপায় অবশ্যই ভিন্ন হতে পারে। কিন্তু আমাদের সবচেয়ে বড় ধর্ম মানবতা এবং দ্বিতীয় ধর্ম ভারত, যদি আপনি ভারতে বাস করেন।

‘আপনি যদি আমেরিকায় যান এবং কেউ বলে যে আমি একজন আমেরিকান মুসলিম, তাহলে মানুষ রেগে যায়। এই প্রশ্ন পৃথিবীর কোথাও আসে না। আমরা ভারতীয় হতে পেরে গর্বিত এবং আমি একজন ভারতীয়। একজন ভারতীয় হিসেবে আমি গর্বিত। দয়া করে আমাকে ভারতের সাথে যুক্ত করুন। আমি ভারতের প্রধান ইমাম, মুসলমানদের ইমাম নই। আমার প্রথম আপত্তি হচ্ছে আমাদের ধর্মের সাথে যুক্ত করবেন না। আমাদের ভারত ও ভারতীয়তার সাথে যুক্ত করুন। জাতি সবার ওপরে।’

আনন্দ: আমি আপনার দৃষ্টিভঙ্গির সাথে পুরোপুরি একমত এবং আমিও এটাকে সমর্থন করি। কিন্তু আমি বলতে চাই, দেশভাগের সময় থেকেই এই হিন্দু-মুসলিম বাইনারি আছে। দেশটি নিজেই ধর্মের ভিত্তিতে বিভক্ত ছিল এবং আজও অনেক মানুষ, অনেক রাষ্ট্র এবং অনেক দেশ আমাদের বিরুদ্ধে তাদের নিজস্ব সুবিধার জন্য ধর্মকে ব্যবহার করছে।

ড. ইলিয়াসি: আজ আপনার চ্যানেলের মাধ্যমে আমি পরিষ্কার করে বলতে চাই, ভারত সবসময় ‘বিশ্বগুরু’ ছিল। এটা ছিল, আছে এবং থাকবে। ভারত সবসময় অন্যদের আশ্রয় দিয়েছে, সাহায্য করেছে। আজ পর্যন্ত ভারত কোন দেশকে আক্রমণ করেনি, ভারত কোন দেশের কোন অঞ্চল দখল করেনি।

‘এটাই ভারতের মর্যাদা, এটাই ভারতের পরিচয়। আর আজ যে গতিতে আমাদের ভারত বিশ্বের দেশগুলোর মধ্যে এগিয়ে যাচ্ছে, সারা বিশ্ব এখন ভারতের দিকে তাকিয়ে আছে। আমরা আমাদের বিজ্ঞানী এবং গবেষকদের জন্য গর্বিত, যারা দিন-রাতের প্রচেষ্টায় খুব অল্প সময়ের মধ্যে টিকা উৎপাদন করতে পারে।’

‘আজ সারা বিশ্ব আমাদের কাছ থেকে আশা করছে, আমি বাংলাদেশ থেকে শ্রীলংকা থেকে টেলিফোন কল পাচ্ছি, সারা বিশ্ব টিকা সরবরাহের অনুরোধ করছে। আজ আমরা এমন এক অবস্থানে আছি যে আমরা সারা বিশ্বে টিকা সরবরাহ করতে পারি। আজ ভারত বিশ্বের শীর্ষে এবং আমি আমার দেশ ভারতের জন্য গর্বিত।’

আনন্দ: অবশ্যই, আমাদের ডাক্তার, বিজ্ঞানী, গবেষক এবং গবেষণাগার নিয়ে গর্ব করা উচিত। দুর্ভাগ্যবশত ডাক্তারসহ অনেক মানুষ আছেন যারা এই টিকা নিয়ে গুজব ছড়াচ্ছেন। এই ধরনের গুজব সম্পর্কে আপনি কী বলবেন?

ড. ইলিয়াসি: আপনি দেখুন, প্রতিটি সমাজে, ভাল মানুষ আছে, খারাপ মানুষ আছে এবং আমি মনে করি যে সংখ্যাগরিষ্ঠ খুব ভালো মানুষ। যারা অশান্তি করতে চায় তারা অশান্তি সৃষ্টি করবে এবং যারা মানুষকে বিভ্রান্ত করতে চায় তারা বিভ্রান্ত করবে। আজ বেশিরভাগ মানুষ সু শিক্ষিত এবং তারা এই টিকা সম্পর্কে সবকিছু জানে।

‘এটা এমন নয় যে গুজব ছড়ানোর মাধ্যমে আপনি জনগণকে বিভ্রান্ত করতে পারেন। আমি ২০ বছর আগে কথা বলছি, যখন পোলিও ড্রপ শুরু হয়, তখন কিছু লোক জনগণকে বিভ্রান্ত করে যে দয়া করে এই পোলিও ফোঁটা নেবেন না এবং আপনি যদি সেগুলো নেন, তাহলে আপনার এই ধরনের সমস্যা/ রোগ থাকবে এবং তাই প্রধান ইমাম হিসেবে আমাকে হস্তক্ষেপ করতে হয়েছে এবং আমার বিবৃতি দিতে হয়েছে।’

তিনি বলেন, একইভাবে, চিকেনপক্সের একটি সময় ছিল এবং সে সময়ও কিছু মানুষ গুজব ছড়ায়। যারা বিশেষ করে সোশ্যাল মিডিয়ায় গুজব ছড়াতে চায় তারা সেগুলো ছড়িয়ে দেবে, কিন্তু আমাদের এই ধরনের গুজবকে ভয় পাওয়া উচিত নয়। কিন্তু আমরা গর্বিত যে ভারত টীকা উৎপাদন করেছে এবং বিশ্বের অধিকাংশ দেশ এখন এই টিকার জন্য ভারতের কাছে অনুরোধ করছে।

‘আমি বরং আমাদের প্রধানমন্ত্রী শ্রী নরেন্দ্র মোদীজিকে অভিনন্দন জানাতে চাই, যিনি নিজে দিনরাত টিকা উৎপাদনকারী কোম্পানিগুলোর সাথে নিরবচ্ছিন্ন যোগাযোগ রেখে চলেছেন, যাতে সরকারের সহযোগিতায় যত তাড়াতাড়ি সম্ভব এই টিকা পাওয়া যায়।’

আনন্দ: আপনাকে জিজ্ঞেস করতে চাই, দেশে গণতন্ত্র আছে কিনা, ভারতে স্বাধীনতা আছে এবং ভারত অন্যান্য প্রতিবেশী দেশের চেয়ে মুসলমানদের জন্য অনেক নিরাপদ কিনা?

ড. ইলিয়াসি: আমি তোমাকে একটা উদাহরণ দিচ্ছি। আমি খুব বেশি দূরে যাব না। আমি শুধু আমাদের প্রতিবেশীদের কথা বলব। আমি আপনাকে চীন সম্পর্কে বলতে চাই। চীনের মুসলমানদের নাম বা উপাসনার স্বাধীনতা বেছে নেওয়ার স্বাধীনতা নেই। তারা টুপি পরতে পারে না এবং দাড়ি রাখতে পারে না। তারা রোজাকে রমজানে রাখতে পারে না এবং কোন ধর্মীয় কর্মকাণ্ডের জন্য তাদের অনুমতি বা স্বাধীনতা নেই।

‘যদিও আমাদের প্রতিবেশী দেশ তার মাহাত্ম্য নিয়ে গর্ব করে। আমি মনে করি, ভারত এমন একটি দেশ যেখানে সব ধরনের স্বাধীনতা আছে- যেখানে প্রতিটি ধর্মকে সম্মান করা হয়। আমাদের দেশের বিশেষত্ব কি? এটা বৈচিত্র্যের ঐক্য, আমরা সবাই এক, আমরা একে অপরের উৎসব উদযাপন করি। আমাদের একে অপরের মধ্যে স্নেহ আছে, আমরা একে অপরের ধর্মীয় স্থানে যাই। হিন্দুরা মসজিদে যায়, মুসলমানরা মন্দিরে যায়।’

‘এটা অন্য কোনো দেশে কি ঘটে? আমি এর বেশি কিছু বলতে চাই না। আমি যখন হজের জন্য যাই এবং যখন আমি সৌদি আরবের ইমিগ্রেশন কাউন্টারে চেক ইন করি এবং আমার পাসপোর্ট দেখাই, তখন অফিসার আমাকে ধর্ম জিজ্ঞেস করে না। দেশের নাম জিজ্ঞেস করে। আমার পরিচয় আমার দেশের সাথে এবং তাই আমি বলছি, দয়া করে ভারতকে শক্তিশালী করুন, ভারতকে শক্তিশালী করুন। দেশ সবার ওপরে।’

মন্তব্য করুন