মাওলানা মামুনুল হকের শোনা গজলের মেয়েটি ‘নাবালেগা’ ছিলো

প্রকাশিত: ১১:৫৭ অপরাহ্ণ, মার্চ ১, ২০২১

আল ইহসান মহিলা মাদরাসা নামের একটি মহিলা মাদরাসার খতমে বুখারি অনুষ্ঠানে মাওলানা মামুনুল হককে নিয়ে মেয়েকন্ঠে প্রশংসাসূচক গজল গাওয়ার একটি ভিডিও ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়েছে।

বিষয়টি নিয়ে পাবলিক ভয়েসের অনুসন্ধানে জানা গেছে ‘মেয়ে কন্ঠে গজল গাওয়া ওই মেয়েটি প্রাপ্তবয়স্কা নয়। বরং ছোট্ট একটি মেয়ে সে। যে এই গজলের আগে কুরআন তেলাওয়াতও করেছেন। নিরাপত্তা বিবেচনা ও হেনস্তা হওয়ার ভয়ে মাদরাসা কর্তৃপক্ষ তার নাম পরিচয় প্রকাশ করেনি। তবে নিশ্চিতভাবে তারা জানিয়েছেন মেয়েটি নাবালেগা ছিলো’।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক মাদরাসাটির মুহতামিম পাবলিক ভয়েসের নির্বাহী সম্পাদক হাছিব আর রহমানের সাথে কথা বলে পুরো বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

কথপোকথনে তিনি স্পষ্ট করেই বলেছেন – ‘গজল গাওয়া ওই মেয়েটি প্রাপ্তবয়স্কা নয় এবং পুরো বিষয়টিই আমাদের অজান্তে হয়েছে। তবে ফতোয়াগতভাবে বিষয়টি নাজায়েজ পর্যায়ে নয় তারপরও এমন একটি ঘটনা সঠিক হয়নি বলে তিনি মনে করেন। ভবিষ্যতে এ বিষয়ে আরও সতর্কতা কাম্য বলেও তিনি জানিয়েছেন।’

একই সাথে তার মাদ্রাসায় মেয়েদের পর্দা থেকে শুরু করে শরীয়তের প্রতিটি বিধি-বিধান কঠোরভাবে মানা হয় বলে তিনি জানিয়েছেন। কিন্তু এমন একটি ঘটনা এভাবে ভুল বুঝাবুঝির মাধ্যমে সোশ্যাল মিডিয়ায় চর্চিত হওয়ায় তিনি খুবই বিব্রত ও মানসিকভাবে বিপর্যস্ত।

যারা এটি প্রচার করেছে তাদেরকে বিষয়টি প্রচার থেকে বিরত থাকার আহ্বান জানিয়েছেন তিনি।

ওই মহিলা মাদ্রাসার খতমে বোখারীতে উপস্থিত থাকা আরও একজন অতিথির সাথে কথা হয়েছে পাবলিক ভয়েস কর্তৃপক্ষের। তিনি জানিয়েছেন যে, “আমরা ওই অনুষ্ঠান যাওয়ার পর শুরুতে একজন গজল গাইছে। গাওয়া শুরু করার পর দেখলাম মেয়ে কন্ঠ। তখন একজন বললো ছোট মানুষ। তাই আর আটকানো হয় নাই। কিন্তু ভূলবশত বিষয়টি একজন লাইভ দিয়ে ফেলছে। যা নিয়ে বিতর্ক তৈরি হয়েছে।”

প্রসঙ্গত : হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশের যুগ্ম মহাসচিব, জামিয়া রাহমানিয়া আরাবিয়া মাদরাসার শাইখুল হাদিস, বাংলাদেশ খেলাফত মজলিসের মহাসচিব মাওলানা মামুনুল হক একজন মেয়ের কন্ঠে পর্দার সাথেই গজল শুনছেন মর্মে একটি ভিডিও সোশ্যাল মিডিয়ায় ছড়িয়ে পড়ে। এ নিয়ে পক্ষে-বিপক্ষে অনেক কথা হয়। খুব অল্প সময়ে ভিডিওটি ভাইরাল হয়ে পড়লে এ বিষয়ে দেওবন্দের ফতোয়া প্রকাশ করে পাবলিক ভয়েস। যেখানে পাঠক কঠোর প্রতিক্রিয়া দেখায়। এরপর পাবলিক ভয়েস কর্তৃপক্ষের পক্ষ থেকে বিষয়টি অনুসন্ধান করা হয়। এবং অনুসন্ধানে এ তথ্যগুলো উঠে আসে।

আরও পড়ুন : মহিলা মাদরাসায় মেয়েদের কন্ঠ পুরুষরা গজল শোনা সঠিক নয়

মন্তব্য করুন