যুক্তরাজ্যে ফিরতে পারবেন না শামীমা: সুপ্রিম কোর্ট

প্রকাশিত: ৬:১৩ অপরাহ্ণ, ফেব্রুয়ারি ২৬, ২০২১

লন্ডন থেকে পালিয়ে ইসলামিক স্টেটে যোগ দিতে সিরিয়ায় যাওয়া তরুণী শামীমা বেগমকে যুক্তরাজ্যে ফেরার সুযোগ দেওয়া হবে না বলে রায় দিয়েছে যুক্তরাজ্যের সুপ্রিম কোর্ট। শুক্রবার বিবিসির এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

এতে বলা হয়েছে, বর্তমানে ২১ বছর বয়সী শামীমা বেগম তার ব্রিটিশ নাগরিকত্ব বাতিলের মামলায় আত্মপক্ষ সমর্থনের জন্য যুক্তরাজ্যে ফিরতে চেয়েছিলেন। কিন্তু এক সর্বসম্মত রায়ে সুপ্রিম কোর্ট বলেছে, তাকে যুক্তরাজ্যে ফিরতে না দিয়ে সরকার শামীমা বেগমের অধিকার লঙ্ঘন করেনি।

শামীমা এখন উত্তর সিরিয়ায় সশস্ত্র রক্ষীর প্রহরাধীন একটি শিবিরে বাস করছেন। যুদ্ধকবলিত এলাকায় থাকায় তিনি আইনজীবীদের সঙ্গে কথা বলতে বা অনলাইন শুনানিতেও অংশ নিতে পারেননি।

বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত ব্রিটিশ নাগরিক শামীমা বেগম ২০১৫ সালের ফেব্রুয়ারিতে পূর্ব লন্ডনের আরো দুজন স্কুলপড়ুয়া মেয়েসহ যুক্তরাজ্য ত্যাগ করে তুরস্ক হয়ে সিরিয়া চলে যান এবং ইসলামিক স্টেটে যোগ দেন। তখন শামীমার বয়স ছিল ১৫।

ইসলামিক স্টেটে যোগ দেওয়ার পর সেখানে তিনি একজন ডাচ জঙ্গিকে বিয়ে করেন। এ কারণে তিনি আইএস বধূ হিসেবেও পরিচিতি পান। এই দম্পতির তিনটি সন্তান ছিল, যাদের সবাই মারা গেছে।

সিরিয়ার একটি শরণার্থী শিবিরে শামীমাকে খুঁজে পাওয়ার পর ২০১৯ সালে তৎকালীন ব্রিটিশ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সাজিদ জাভিদ নিরাপত্তার কারণ দেখিয়ে তার ব্রিটিশ নাগরিকত্ব বাতিল করে দেন। সে সময় শামীমা ব্রিটিশ সরকারের এই সিদ্ধান্তকে চ্যালেঞ্জ জানান।

তার আইনজীবী যুক্তি দেন, ওই সিদ্ধান্ত অবৈধ। কারণ এই সিদ্ধান্তের কারণে তিনি রাষ্ট্রহীন হয়ে পড়েছেন। আপিল আদালতের শুনানিতে শামীমার আইনজীবী যুক্তি দেন, তাকে যুক্তরাজ্যে ফিরতে না দিলে উত্তর সিরিয়ার শিবিরে থাকা অবস্থায় তার পক্ষে আইনি লড়াই চালানো কার্যত সম্ভব নয়।

গত বছরের জুলাইয়ে ব্রিটেনের আপিল আদালত রায় দেন, যুক্তরাজ্য সরকার শামীমার নাগরিকত্ব বাতিলের যে সিদ্ধান্ত নিয়েছে তার বিরুদ্ধে লড়ার জন্য তিনি ব্রিটেনে ফিরতে পারবেন।

এরপরই শামীমাকে যুক্তরাজ্যে ফিরতে দেওয়া হলে তা ‘জাতীয় নিরাপত্তায় উল্লেখ্যযোগ্য ঝুঁকি তৈরি করবে’- এমন কারণ দেখিয়ে আপিল আদালতের রায় পুনর্বিবেচনার জন্য সুপ্রিম কোর্টে আবেদন করে যুক্তরাজ্যের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়।

মন্তব্য করুন