দ্বিতীয় চালানে ভারত থেকে এলো ২০ লাখ ডোজ করোনার টিকা

প্রকাশিত: ৭:৫৯ পূর্বাহ্ণ, ফেব্রুয়ারি ২৩, ২০২১

ভারতের সেরাম ইনস্টিটিউট থেকে দ্বিতীয় দফায় ২০ লাখ ডোজ করোনার ভ্যাকসিন ঢাকায় এসে পৌঁছেছে।

সোমবার (২২ ফেব্রুয়ারি) রাত ১২টা ২২ মিনিটে ভারতের স্পাইসজেট এসজি-০০৬৩ ফ্লাইটটি কোভিশিল্ড ভ্যাকসিনের ২০ লাখ ডোজের একটি চালান নিয়ে বিমানবন্দরে অবতারণ করে। এর আগে ভারতের মুম্বাইয়ের স্থানীয় সময় ৭টা ৪০ মিনিটে করোনা ভ্যাকসিন নিয়ে ফ্লাইটটি ঢাকার উদ্দেশ্যে রওয়ানা হয়।

বিমানবন্দরে এসময় ভ্যাকসিন গ্রহন করতে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর, ওষুধ প্রশাসন ও বেক্সিমকোর কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

এর আগে রাত সাড়ে ১১টার দিকে বেক্সিমকো ফার্মাসিউটিক্যালসের পাঁচটি ফ্রিজার ভ্যান ভ্যাকসিন বহনে বিমানবন্দরের ভেতরে প্রবেশ করে। অবতরণের প্রায় দেড়ঘণ্টা পর রাত ২টার দিকে ভাকসিনবাহী বেক্সিমকোর ফ্রিজার ভ্যানগুলো বিমানবন্দর থেকে গাজীপুরের দিকে রওনা দেয়। সেখানে বেক্সিমকো ফার্মাসিউটিক্যালসের কারখানায় ভ্যাকসিনগুলো রাখা হবে।

ভারতের সেরাম ইনস্টিটউট ও বাংলাদেশের বেক্সিমকো ফার্মার মধ্যে তিন কোটি ভ্যাকসিন ক্রয়চুক্তির মধ্যে এটি ছিলো দ্বিতীয় চালান। এর আগে গত ২৫ জানুয়ারি দেশে আসে প্রথম করোনার টিকার প্রথম চালান। যেখানে ৫০ লাখ ডোজ ভ্যাকসিন ছিলো। পরে ২৭ জানুয়ারি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গণভবন থেকে রাজধানীর কুর্মিটোলা হাসপাতালে ভ্যাকসিন প্রদান কার্যক্রমের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন। গত দশ কার্যদিবসে এ পর্যন্ত ১৫ লাখ ৮৩ হাজার ৩৬৮ জনকে ভ্যাকসিন দেয়া হয়েছে। আর গেলো মাসের ২১ জানুয়ারি ভারত সরকার বাংলাদেশ সরকারকে বিশ লাখ ডোজ কোভিড ভ্যাকসিন উপহার দেয়। এ নিয়ে নিয়ে দেশে ৯০ লাখ ডোজ ভ্যাকসিন দেশে এসেছে।

বেক্সিমকো ফার্মাসিউটিক্যালসের সাথে সেরাম ইনস্টিটিউটের ক্রয় চুক্তি অনুযায়ী প্রতিমাসে ৫০ লাখ আর ছয়মাসে তিনকোটি ডোজ করোনার টিকা আসার কথা রয়েছে। এবারের চালানে আসা ভ্যাকসিনের মেয়াদ শেষ হবে জুনের মাঝামাঝি সময়ে।

এর আগে, করোনা ভাইরাস প্রতিরোধী ভ্যাকসিনের (কোভিশিল্ড) ২০ লাখ ডোজ বাংলাদেশকে উপহার দিয়েছে ভারত। এরপর গত ২৫ জানুয়ারি বেক্সিমকো ফার্মাসিউটিক্যালসের ব্যবস্থাপনায় প্রথম চালানে ৫০ লাখ ডোজ কোভিশিল্ড ভ্যাকসিন (টিকা) বাংলাদেশে নিয়ে আসা হয়। এবার দ্বিতীয় চালানে ২০ লাখ ডোজ করোনা প্রতিবোধী ভ্যাকসিন (কোভিশিল্ড) দেশে এসেছে পৌঁছালো।

গত ২৭ জানুয়ারি কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতালে নার্স রুনু ভেরোনিকা কস্তাকে করোনা ভাইরাস প্রতিরোধী টিকা (কোভিশিল্ড) দেওয়ার মধ্য দিয়ে বাংলাদেশে টিকা দান কর্মসূচির উদ্বোধন হয়। গণভবন থেকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ভার্চ্যুয়ালি টিকাদান কর্মসূচির উদ্বোধন করেন।

মন্তব্য করুন