রাজধানীতে ইশা ছাত্র আন্দোলন ঢাকা মহানগর পূর্বের বর্ণাঢ্য বর্ণমালা মিছিল

প্রকাশিত: ৭:২৩ অপরাহ্ণ, ফেব্রুয়ারি ২১, ২০২১

ইউসুফ পিয়াস: ১৯৭৮ সালে বাংলা ভাষা প্রচলন আইন সর্বত্র ছড়িয়ে দেয়ার দাবি জানিয়েছেন ইসলামী শাসনতন্ত্র ছাত্র আন্দোলনের কেন্দ্রীয় সভাপতি নূরুল করীম আকরাম।

‌রবিবার আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে সংগঠনের নগর পূর্বের উদ্যোগে বর্ণমালা মিছিল পরবর্তী সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে ইসলামী শাসনতন্ত্র ছাত্র আন্দোলন-এর কেন্দ্রীয় সভাপতি নুরুল করিম আকরাম উপরিউক্ত কথাটি বলেন। তিনি বলেন, ভাষার জন্য লড়াইয়ের ৬৯ বছর পার হওয়ার পরও নতুন প্রজন্মের বাংলার সঙ্গে ইংলিশ মিশিয়ে হিন্দি ঢঙ্গে কথা বলতে সবচেয়ে বেশি স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করে।

No description available.

আজ বাংলাদেশের অধিকাংশ প্রতিষ্ঠান, দোকান এবং অফিস-আদালতের দিকে তাকালে দেখা যায় তার নাম ফলক ইংরেজিতে লেখা অথচ ১৯৭৮ সালে বাংলা ভাষা প্রচলন আইন করার মধ্য দিয়ে বাংলাদেশ সরকার ভাষার অধিকার কারও বেশি সুপ্রতিষ্ঠিত করার জন্য আদালত সরকারি প্রতিষ্ঠান দোকানপাট ইত্যাদির নামফলক এবং দোকানের ব্যানার সে গুলোকে বাংলায় লেখার জন্য একটি আইন জারি করেছিল। আর এরাই একুশে ফেব্রুয়ারি আসলেই ভাষার জন্য মায়াকান্না করে কিন্তু সারাটি বছর ভাষাকে কচলাতে কচলাতে একেবারে নিঃশেষ করে দেয়ার চূড়ান্ত পর্যায়ে নিয়ে যায়। অথচ এদের সন্তানেরাই ইংলিশ মিডিয়াম ছাড়া পড়েনি না । আর তারা তাদের সন্তানদের ইংলিশ মিডিয়ামে পড়াকে নিয়ে অনেক গর্ববোধও করেন।

No description available.

নুরুল করীম বলেন, দুঃখের বিষয় এরাই স্টেজ কাঁপিয়ে একুশে ফেব্রুয়ারিসহ বাংলাভাষার অনুষ্ঠানগুলোতে বক্তৃতা দিয়ে থাকেন। ভাষার জন্য জীবন দেওয়ার ৬৯ বছর পার হলেও দেশের বিচার প্রক্রিয়ার রায়গুলো ইংলিশে লেখা হয়।

সর্বোপরি ৩০ কোটি বাংলা ভাষাভাষী মানুষের পক্ষ থেকে দাবি উত্থাপন করতে চাই , ১৯৭৮ তে বাংলাদেশের যে বাংলা ভাষা প্রচলন আইন করে দেয়া হয়েছে এই আইনের প্রতি শ্রদ্ধাবোধ জ্ঞাপন করে বাংলাদেশের সর্বত্র বাংলাভাষাকে অবারিত করতে হবে। বাংলার অধিকাংশ ডাক্তাররা প্রেসক্রিপশনে যে পরামর্শমালা লিখেন ডাক্তার পরবর্তীতে একমাস পরে যদি সেই ডাক্তার কে এই প্রেস্ক্রিপশন দেখানো হয় ডাক্তার হয়তোবা তার হাতের লেখা বুঝবেন না।

No description available.

এই কারণেও আমরা দাবি উত্থাপন করতে চাই ডাক্তারের ব্যবস্থাপত্রে বাংলায় ব্যবস্থাপত্র লিখতে হবে । পাশাপাশি আইন-আদালত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানসহ সর্বত্র বাংলা কে অবারিত করতে হবে এবং যেই ইংলিশ মিডিয়াম যে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলো আছে সেই সমস্ত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোতে শিক্ষার্থীদের বাংলা জানার ব্যাপারে সরকারকে এবং রাষ্ট্রকে উদ্যোগ গ্রহণ করতে হবে। এবং এই সমস্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠান যারা পরিচালনা করেন তাদেরকে জবাবদিহিতার আওতায় নিয়ে আসতে হবে।

৮ই ফাল্গুন মোতাবেক ২১ ফেব্রুয়ারি আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে রবিবার ইসলামী শাসনতন্ত্র ছাত্র আন্দোলন ঢাকা মহানগর পূর্ব পালন করেছে বর্ণমালা মিছিল, কুরআন খতম, দোয়া মাহফিলসহ একগুচ্ছ কর্মসূচি।

No description available.

সংগঠনের নগর সভাপতি শেখ মুহাম্মাদ মাহবুবুর রহমান এর সভাপতিত্বে মাতৃভাষা দিবসের কর্মসূচিতে উপস্থিত ছিলেন সংগঠনের সহ-সভাপতি সাব্বির আহমেদ , সাংগঠনিক সম্পাদক জসিম খাঁ, দাওয়াহ ও প্রশিক্ষণ সম্পাদক মাইনুল ইসলাম, তথ্য গবেষণা ও প্রচার সম্পাদক সাইফুল ইসলাম ইমরান, প্রকাশনা ও দপ্তর সম্পাদক সালাউদ্দিন সজিব , অর্থ ও কল্যাণ সম্পাদক এইচ এমন ইকবাল মাহমুদ, বিশ্ববিদ্যালয় সম্পাদক- ফাহাদ আহাম্মেদ,কওমি মাদ্রাসা বিষয়ক সম্পাদক- আরাফাত রহমান,আলিয়া মাদরাসা বিষয়ক সম্পাদক, রেদোয়ানুল করীম,স্কুল ও কলেজ সম্পাদক- ওবাইদুল্লাহ মাহমুদ,সাহিত্য ও সংস্কৃতি সম্পাদক- সাঈদ আবরার,সদস্য ০১ -আব্দুল গফুর,সদস্য ০২- রুহুল আমিন প্রমুখ।

মন্তব্য করুন