কাদের পরিবারকে নিয়ে কটুক্তি করায় কোম্পানীগঞ্জে বিক্ষোভ

প্রকাশিত: ১০:১৩ অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ২২, ২০২১

এম.এস আরমান, নোয়াখালী প্রতিনিধি: নোয়াখালী ৪ আসনের এমপি জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভিডিও বার্তায় আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের ফ্যামিলিকে রাজাকারের ফ্যামিলি বলে কটুক্তি করায় কোম্পানীগঞ্জে বিক্ষোভ মিছিল ও প্রতিবাদ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।

শুক্রবার (২২ডিসেম্বর) সন্ধা ৭ ঘটিকায় কোম্পানীগঞ্জের বসুরহাটে উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি বীর মুক্তিযযোদ্ধা খিজির হায়াত খানের সভাপতিত্বে বিক্ষোভ মিছিলটি শহরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিন করে পৌরসভার রুপালি চত্বরে এসে প্রতিবাদ সমাবেশে মিলিত হয়।

এসময় বিক্ষোভ সমাবেশে মেয়র আবদুল কাদের মির্জা বলেন,একরামুল করিম চৌধুরী আমাদের বিরুদ্ধে দির্ঘদিনের সড়যন্ত্রে ব্যর্থ হয়ে এখন আমাদের সকলের নেতা ওবায়দুল কাদের কে নিয়ে কটুক্তি করা শুরু করেছে যা আপনারা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে দেখেছেন। এই একরামের বিষয়ে সতর্ক করতে গিয়ে আজ আমি মামলার আসামী,আজ আমি সমালোচিত,আজ আমাকে বলা হচ্ছে পাগল।
একরামের তৈরী সন্ত্রাসীরা শুধু আমাকে পাগল বলে ক্ষান্ত হয়নি তারা বঙ্গবন্ধুকেও পাগল বলে স্লোগান তুলেছে।

কেন্দ্রীয় নেতাদের শতর্ককরে তিনি বলেন, সময় থাকতে যদি আগাছা পরিস্কার না করাহয় সেদিন বেশি দূরেনয় প্রধানমন্ত্রীর বিরুদ্ধেও অপবাদ দিতে কুণ্ঠাবোধ করবেনা এই একরাম। তার অন্নায় ও জুলুমে নোয়াখালীর মানুষ আজ অতিষ্ঠ,তার অপরাজনীতির কারনে নোয়াখালীতে আওয়ামীলীগের নেতাকর্মীরা আজ ছিন্নবিচ্ছিন্ন। অনতিবিলম্বে তাকে নোয়াখালী জেলা কমিটি থেকে বহিষ্কার করার জোর দাবী জানিয়ে তিনি বলেন তাকে বহিষ্কার না করা পর্যন্ত এখন থেকে বসুরহাটের বঙ্গবন্ধু চত্বরে অবস্থান ধর্মঘটের ঘোষনা দেন আবদুল কাদের মির্জা।

এসময় উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি খিজির হায়াত খান বলেন,এমপি একরাম নেশা করে মাতাল হয়ে রাতে বলেছে ওবায়দুল কাদেরের ফ্যামিলি রাজাকারের ফ্যামিলি, সকালে বলেছে আমি ওবায়দুল কাদেরকে বলিনি বলেছি কাদের মির্জার ফ্যামিলিকে। আমার প্রশ্ন হচ্ছে কাদের মির্জা আর ওবায়দুল কাদেরের ফ্যামিলির মধ্যে পার্থক্য কোথায়। এমপি একরামযে নেশা করে মাতাল হয়ে পাগলামী করছে তা জনগনের কাছে স্পষ্ট। এরকম মাতাল, নেশাগ্রস্থ নেতার প্রয়োজন নোয়াখালীতে নেই বলে দাবী করেন বীর মুক্তিযোদ্ধা খিজির হায়াত খান।

এসময় প্রতিবাদ সমাবেশে আরো বক্তব্য রাখেন,উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক নূর নবী চৌধুরী।পৌরসভা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক আজম পাশা চৌধুরী রুমেল।উপজেলা যুব লীগের সভাপতি গোলাম সরওয়ার। উপজেলা ছাত্রলীগ সভাপতি নিজাম উদ্দীন মুন্না প্রমূখ।

মন্তব্য করুন