চাহিদা কমে যাওয়ায় ভারত থেকে পেঁয়াজ আমদানি বন্ধ

প্রকাশিত: ৯:২৬ অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ১৬, ২০২১

আমদানি করা ভারতীয় পেঁয়াজ এবং দেশি পেঁয়াজের দাম সমান হওয়ার কারণে ক্রেতারা ভারতের আমদানি করা পেঁয়াজ কিনতে চাচ্ছেন না। এ কারণেই বাজারে ভারতীয় পেঁয়াজের চাহিদা কমে গেছে।

আর চাহিদা কমে যাওয়ায় ভারত থেকে পেঁয়াজ আমদানি বন্ধ রেখেছেন ব্যবসায়ীরা। আমদানি বন্ধ থাকলেও দেশের বাজারে পেঁয়াজ নিয়ে কোনও ধরনের সমস্যা তৈরি হবে না। কারণ দেশে এখন পেঁয়াজের ভরা মৌসুম।

পেঁয়াজের ওপর ১০ শতাংশ আমদানি শুল্ক আরোপের ফলে বাংলাদেশ ও ভারতে উৎপাদিত পেঁয়াজের দাম এখন সমান। দুদেশের পেঁয়াজের দামে কোনও পার্থক্য নাই। স্বাদে অতুলনীয় বলে ক্রেতাদের আগ্রহ দেশি পেঁয়াজের প্রতি।

আপাতত হিলি স্থলবন্দর দিয়ে ভারত থেকে পেঁয়াজ আমদানি বন্ধ করেছেন সেখানকার আমদানিকারকরা। তবে ঘোষণা না দিলেও দেশের অন্যান্য স্থলবন্দর দিয়েও আমদানি করা ভারতীয় পেঁয়াজ দেশের বাজারে আসছে না বলে জনিয়েছে বাংলাদেশ স্থল বন্দর কর্তৃপক্ষ।

কর্তৃপক্ষ জানান, দাম যদি দেশি পেঁয়াজের তুলনায় আমদানি করা ভারতীয় পেঁয়াজের বেশি হয় বা সমান হয়, তাহলে কি কারণে ক্রেতারা তা কিনবেন? যেকোনও বিচারে আমদানি করা পেয়াজের তুলনায় দেশি পেঁয়াজ উত্তম।

উল্লেখ্য, দেশে পেঁয়াজের বাৎসরিক চাহিদা ২৫ লাখ মেট্রিক টন। দেশে পেঁয়াজের উৎপাদন কমবেশি ২৫ থেকে ২৬ লাখ টন।

কিন্তু পেঁয়াজ পচনশীল বলে উৎপাদিত পেঁয়াজের ২২ থেকে ২৫ শতাংশ প্রসেস লস বাদ দিয়ে মোট উৎপাদন দাঁড়ায় ১৯ থেকে ২০ লাখ টন। চাহিদার তুলনায় বাৎসরিক ঘাটতি সর্বোচ্চ ৬ থেকে ৭ লাখ টন। এই পরিমান ঘাটতি মেটাতেই পার্শ্ববর্তী দেশ ভারত থেকে তা আমদানি করতে হয়।

মন্তব্য করুন