মন্দির রক্ষায় ব্যর্থ হওয়ায় পাকিস্তানে ১২ পুলিশ বরখাস্ত

সম্প্রীতি

প্রকাশিত: ১০:৫১ অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ১৫, ২০২১

পাকিস্তানের উত্তর-পশ্চিমের খাইবার পাখতুনখোয়া রাজ্যের কারাক জেলায় উত্তেজিত কিছু মুসলিম জনতার আক্রমণ থেকে হিন্দুদের মন্দির রক্ষা করতে ব্যর্থ হওয়ায় স্থানীয় পুলিশ প্রধানসহ ১২ জন পুলিশ সদস্যকে বরখাস্ত করা হয়েছে।

আজ শুক্রবার ( ১৫ জানুয়ারি) এ খবর প্রকাশ করেছে আলজাজিরা।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, গত মাসে একটি ধর্মীয় দলের সমর্থকরা হিন্দুদের মন্দিরে আগুন লাগিয়ে সেটিকে ধ্বংস করেছিল।

সে সময় মন্দির রক্ষা করতে ব্যর্থ হয়ে এই পুলিশ সদস্যরা ‘কাপুরুষোচিত’, ‘দায়িত্বজ্ঞানহীনতা’ এবং ‘অবহেলার’ পরিচয় দিয়েছে বলে বলা হয়েছে।

তাই বৃহস্পতিবার তাদের স্থায়ীভাবে বরখাস্ত করা হয়েছে বলে জানা গেছে।

এ ছাড়া একই অভিযোগে খাইবার পাখতুনখোয়া রাজ্যের আঞ্চলিক সরকার আরো ৩৩ জন পুলিশ কর্মকর্তাকে এক বছরের জন্য বরখাস্ত করেছে বলে জানান প্রদেশের পুলিশ প্রধান সানাউল্লাহ আব্বাসি।

এর আগে গত ৩০ ডিসেম্বর পেশোয়ার থেকে ১৬০ কিলোমিটার দক্ষিণ-পূর্বে অবস্থিত কারাক জেলায় অবস্থিত শ্রী পরমহংস জি মহারাজ সমাধি মন্দিরে হামলা চালায় স্থানীয় মুসলমানরা।

জানা গেছে, আদালতের নির্দেশে মন্দির সম্প্রসারণের কাজ চলছিল। সেটির বিরুদ্ধে শান্তিপূর্ণ বিক্ষোভ করবেন বলে কর্তৃপক্ষকে জানিয়েছিলেন মুসলিম নেতারা। কিন্তু বিক্ষোভের সময় তারা উসকানিমূলক বক্তব্য দেয়া শুরু করেন।

এর পরই উত্তেজিত নেতা-কর্মীরা মন্দিরে আগুন ধরিয়ে দেয় এবং কেউ কেউ হাতুড়ি দিয়ে দেয়াল ভেঙে দেয়। হামলার ভিডিও ফুটেজে এমনটাই দেখা গেছে।

এদিকে, ওই হামলার ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে পুলিশ স্থানীয় মুসলিম নেতা মোল্লা শরীফসহ প্রায় ৪৫ জনকে গ্রেপ্তার করেছে।

পেশোয়ার থেকে ১৬০ কিলোমিটার দক্ষিণ-পূর্বে অবস্থিত কারাক জেলা। সেখানে ১৯ শতকের শুরুর দিকে মন্দিরটি স্থাপিত হয়েছিল।

১৯৯৭ সালে হামলা চালিয়ে মন্দিরটি ভাঙচুর করে দুর্বৃত্তরা। এরপর ২০১৫ সালে এক আদেশে এটি পুনঃর্নিমাণের ঘোষণা দিয়ে রায় দেন সুপ্রিম কোর্ট। এখন আবারও সেটি পুনঃর্নিমাণ করা হবে।

মন্তব্য করুন