পশ্চিম তীর নিয়ে পম্পেওর আগ্রাসী মন্তব্যে ফিলিস্তিনে উত্তেজনা

প্রকাশিত: ৯:৫০ অপরাহ্ণ, নভেম্বর ২১, ২০২০

ইসরায়েল অধিকৃত ফিলিস্তিনের পশ্চিম তীরে অবৈধ ইহুদি বসতি সফরে গিয়ে বিতর্কিত মন্তব্য করেছেন মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেও। এ সফর নিয়ে আগে থেকে আপত্তি জানানো হলেও তা আমলে না নিয়ে গত বৃহস্পতিবার এমন কাণ্ড ঘটনা তিনি।

বছর তিনেক আগে ইসরায়েলের রাজধানী হিসেবে ফিলিস্তিনি ঐতিহাসিক নগরী জেরুজালেমকে ‘স্বীকৃতি’ দেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। এরপর প্রথমবারের মতো কোনো মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী বিতর্কিত ওই এলাকায় পা রাখলেন।

পশ্চিম তীরে গিয়ে পম্পেও বলেন, এই ভূখণ্ড ইসরায়েলের অবিচ্ছেদ্য অংশ। এখানার তৈরি সকল পণ্য ‘মেড ইন ইসরায়েল’ হিসেবে রপ্তানি করা উচিত।

ফিলিস্তিনি ভূখণ্ড হিসেবে আন্তর্জাতিকভাবে স্বীকৃত পশ্চিম তীরে ইসরায়েলের অবৈধ বসতি সম্প্রসারণ আইনের লঙ্ঘন মনে করে না ট্রাম্প প্রশাসন। গত বছরের নভেম্বরে এ কথা বলেছিলেন ট্রাম্প। সেটাই তার পররাষ্ট্রমন্ত্রী ওই অঞ্চলে এসে ফের বলেছেন গতকাল।

আনাদোলুর খবরে বলা হয়, পম্পেওর এমন বিতর্কিত মন্তব্য নিজ ভূমির অধিকারবঞ্চিত ফিলিস্তিনিদের ক্ষোভে ঘি ঢালে দিয়েছে। এর জেরে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়েছে পুরো ফিলিস্তিনে, তীব্র প্রতিবাদে ফেটে পড়েছে ফিলিস্তিন ও আরব বিশ্ব।

এদিকে, পশ্চিমতীরের পর ইসরায়েল অধিকৃত সিরিয়ার গোলান মালভূমিতে সম্প্রসারিত আরেকটি অবৈধ ইহুদি বসতিতে যান পম্পেও। সেটিকেও তেল আবিবের অবিচ্ছেদ্য অংশ বলে মন্তব্য করেন তিনি। এ নিয়ে তীব্র প্রতিক্রিয়া দেখিয়েছে সিরীয় সরকারও।

পশ্চিম তীর নিজেরে অবিচ্ছেদ্য অংশ উল্লেখ করে ফিলিস্তিন বলছে, করোনা মহামারির মধ্যেও অবৈধ বসতি স্থাপনের মতো ‘বর্বরোচিত শোষণ’ চালাচ্ছে ইসরায়েল। তাদের এ পদক্ষেপ রাজনৈতিক অগ্রগতির সম্ভাবনাকে অপূরণীয়ভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করছে।

এর আগে গত মঙ্গলবার ফিলিস্তিনের পশ্চিম তীরে অবস্থিত পূর্ব বায়তুল মুকাদ্দাস বা পূর্ব জেরুজালেমে ইসরায়েলের ইহুদি উপ-শহর নির্মাণ অবৈধ বলে জানিয়েছে রাশিয়া। দেশটির পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক বিবৃতি বলা হয়, ওই এলাকায় সহস্রাধিক বাড়ি নির্মাণে ইসরায়েলের জারি করা টেন্ডার আন্তর্জাতিক আইনের বিরোধী। ফিলিস্তিন সংকট সমাধানে যে প্রক্রিয়া চলছে, তারও পরিপন্থী এটি।

বিবৃতিতে আরো বলা হয়, অবৈধ এ তৎপরতা দুই দেশের বিরোধের ন্যায়সঙ্গত সমাধানের পথ রুদ্ধ করবে। পশ্চিম এশিয়ায় স্থায়ী শান্তি প্রতিষ্ঠার সম্ভাবনা ধ্বংস করবে, যা কারো কাম্য নয়। গত রোববার ইসরায়েলি গণমাধ্যম জানায়, মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের আগে পূর্ব জেরুজালেমে ১ হাজার ২০০ বাড়ি নির্মাণ অনুমোদন করেছে ইসরায়েলি মন্ত্রিসভা। এটি বাস্তবায়নের প্রক্রিয়া শিগগিরই শুরু হবে।

ইসরায়েল প্রতিষ্ঠার পর ১৯৬৭ সাল থেকে দখলকৃত পশ্চিম তীর এবং পূর্ব জেরুসালেমে নির্মিত অবৈধ বসতি নির্মাণ করে আসছে দেশটি। এতে প্রায় ৬ লাখ ৫০ হাজার ইসরায়েলি বসবাস করছে, যা আন্তর্জাতিক আইনের লঙ্ঘন।

আই.এ/

মন্তব্য করুন