ধর্মভিত্তিক রাজনীতি নিয়ে সঞ্জিত দাসের বক্তব্যকে ‘সন্ত্রাসবাদী’ বললো ইশা

প্রকাশিত: ১১:২৪ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ২৭, ২০২০

ধর্মভিত্তিক রাজনৈতিক ছাত্র সংগঠনগুলো ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় (ঢাবি) ক্যাম্পাসে কার্যক্রম চালাতে পারবে না বলে হুশিয়ারি দিয়ে দেওয়া ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি সনজিত চন্দ্র দাসের বক্তব্যকে ‘সন্ত্রাসবাদী’ বক্তব্য বলে আখ্যা দিয়েছে ইশা ছাত্র আন্দোলন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখা।

বাংলাদেশ ছাত্রলীগ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ইউনিটের সভাপতি সঞ্জিত চন্দ্র দাসের বক্তব্যে তীব্র ক্ষোভ প্রকাশ করে ইসলামী শাসনতন্ত্র ছাত্র আন্দোলন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখার সভাপতি মাহমুদুল হাসান বলেছেন – “ছাত্রলীগের ঢাবি সভাপতি বক্তব্য স্পষ্টত সন্ত্রাসবাদের বহিঃপ্রকাশ”

আজ (২৭ সেপ্টেম্বর) সন্ত্রাস বিরোধী রাজু ভাস্কর্যের পাদদেশে ধর্ষণ বিরোধী কর্মসূচিতে সঞ্জিত চন্দ্র দাসের বক্তব্যের কঠোর প্রতিবাদ করে তিনি বলেন – ইসলামী শাসনতন্ত্র ছাত্র আন্দোলন দেশের স্বাধীনতা-সার্বভৌমত্ব, রীতি-নীতি ও ঐতিহ্যের প্রতি সম্মান রেখেই সারাদেশের ক্যাম্পাসগুলোতে শিক্ষার্থীদের অধিকার আদায়ে ধারাবাহিক কর্মসূচি পালন করছে। ইশা ছাত্র আন্দোলন দেশের সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি ও আইন শৃঙ্খলার প্রতি শুধু শ্রদ্ধাশীলই নয় বরং নির্ভীক পাহারাদার ।

তিনি আরো বলেন, সারাদেশে যখন ছাত্রলীগের একের পর এক খুন, ধর্ষণ এবং ধ্বংসাত্মক রাজনীতি ছাত্র জনতার নিকট উন্মোচিত হচ্ছে ঠিক তখনই ইসলামী রাজনীতি নিয়ে কটুক্তি করে সঞ্জিত চন্দ্র দাস সম্প্রদায়িক উসকানি দেবার অপচেষ্টা চালাচ্ছেন।

এসময় তিনি বলেন, ইশা ছাত্র আন্দোলন সবসময় নারীর প্রতি সর্বোচ্চ শ্রদ্ধাশীল এবং নারীর অধিকার নিশ্চিতে বদ্ধপরিকর ‌। তাই ধর্ষণের মত বর্বরোচিত ঘটনায় আমরা সবসময়ই সর্বাগ্রে রাজপথে প্রতিবাদী ভূমিকায় অবতীর্ণ ছিলাম এবং আছি।

সঞ্জিত চন্দ্র দাসের পক্ষ থেকে ‘ধর্মভিত্তিক’ দল নিষিদ্ধ করার ক্ষেত্রে মোকাবেলার আহ্বানকে স্পষ্টত সন্ত্রাসবাদের বহিঃপ্রকাশ বলে উল্লেখ করে তিনি বলেন, ছাত্রলীগের হাতুড়ি ও হেলমেট বাহিনীর ঘটনাগুলো নতুন কিছু নয়।

এসময় তিনি হুশিয়ারী দিয়ে বলেন ইশা ছাত্র আন্দোলন বিশ্ববিদ্যালয়ের সাধারণ শিক্ষার্থীদের সংগঠন। আপনারা যদি সকল মত ও চিন্তার উন্মুক্ত প্রঙ্গন ঢাবিকে যদি সন্ত্রাসের আতুর ঘরে পরিণত করার চেষ্টা করেন তবে সাধারণ শিক্ষার্থীরা অতিসত্বরই আপনাদেরকে অবাঞ্ছিত ঘোষণা করবে।

প্রসঙ্গত : ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সভাপতি সঞ্জিত চন্দ্র দাস বলেছেন – ডাকসু নির্বাচনকে কেন্দ্র করে ক্যাম্পাসে কিছু ধর্মভিত্তিক রাজনৈতিক সংগঠন অবস্থান করছে। সেসব রাজনৈতিক সংগঠনসহ জঙ্গী-ধর্ষক নুরকে ক্যাম্পাসে অবাঞ্ছিত ঘোষণা করলাম।

আজ রবিবার (২৭ সেপ্টেম্বর) দুপুরে টিএসসির সন্ত্রাসবিরোধী রাজু ভাস্কর্যের পাদদেশে এক বিক্ষোভ সমাবেশে এমন মন্তব্য করেন তিনি। ঢাবি ছাত্রীসহ সাম্প্রতিক সময়ে সারাদেশে ঘটে যাওয়া ধর্ষণের ঘটনার বিচারের দাবিতে ক্যাম্পাসে এ কর্মসূচি পালন করা হয়।

সনজিত চন্দ্র দাস বলেন, কোন ধর্মভিত্তিক রাজনৈতিক সংগঠন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় রাজনীতি করতে পারবে না। যদি তারা রাজনীতি করতে চাই, তাহলে আমাদেরকে মোকাবেলা করে রাজনীতি করতে হবে। আমি তাদেরকে বলে দিতে চাই মাননীয় প্রধানমন্ত্রী একটি অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ গড়ার প্রত্যয়ে এগিয়ে যাচ্ছেন বাংলাদেশ গড়ার প্রত্যয়ে এগিয়ে যাচ্ছেন। সুতরাং এই ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কোন ধর্মভিত্তিক রাজনীতি চলবে না।

তিনি আরও বলেন, ছাত্রলীগের একজন কর্মী হিসাবে এসব ধর্মভিত্তিক রাজনৈতিক সংগঠনের প্রবেশ মেনে নিতে পারছি না। আমি তাদের ও তাদের পৃষ্টপোষকদের এই ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে অবাঞ্ছিত ঘোষণা করছি। তাদেরকে যেখানেই দেখবেন, সেখানেই প্রতিরোধ গড়ে তোলার আহবান রইল।

ঢাবি ছাত্রলীগের সভাপতি বলেন, বাংলাদেশ ছাত্রলীগ বাংলার ছাত্র সমাজের প্রতিনিধিত্ব করে। স্বাধীনতাবিরোধী ছাড়া অন্য যেকোন নারী যদি নির্যাতনের স্বীকার হয়, নির্যাতনকারী সে যে রাজনীতি করুক না কেন আমরা তা সাথে সাথেই প্রতিহত করব।

ডাকসুর সদ্য বিদায়ী ভিপি নুরুল হক নুরকে উদ্দেশ্য করে তিনি বলেন, আপনাকে যে মেয়েটি ভোট দিয়েছে তার পাশেই আপনি দাঁড়াননি। আপনি আমার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করছেন। আপনার বিরুদ্ধে আমার কোনো ষড়যন্ত্র নেই। আমার সৌভাগ্য হত যদি আমি বাদী হয়ে মামলা করতে পারতাম৷

মন্তব্য করুন