ইসরায়েলকে প্রত্যাখ্যান; প্রশংসায় ভাসছে কাতার-আলজেরিয়া

প্রকাশিত: ১০:২৬ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ২২, ২০২০

ইসরায়েলের সঙ্গে সম্পর্ক স্বাভাবিককরণ প্রস্তাব প্রত্যাখান করায় কাতার ও আলজেরিয়ার প্রশংসা করেছে ফিলিস্তিন মুক্তি সংস্থা (পিএলও)। এক টুইট বার্তায় দেশ দুটির প্রশংসা করে পোস্ট দেন পিএলওর কার্যনির্বাহী কমিটির সেক্রেটারি জেনারেল ড. সায়েব এরেকাত।

তিনি বলেন, ফিলিস্তিনিদের পক্ষে অবস্থান নেয়ায় এবং রাষ্ট্রের স্বীকৃতি দেয়ায় কাতারের তীব্র প্রশংসা করছি। পরবর্তীতে কাতারের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক বিবৃতি রি-টুইট করেন ড. সায়েব এরেকাত। সেখানে ইসরায়েলের অবৈধ দখলদারিত্ব বন্ধ ও জেরুজালেমকে রাজধানী করে ফিলিস্তিন রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার দাবিতে দোহার অবস্থানের বিষয়টি নিশ্চিত করা হয়েছে।

এর আগে গত সপ্তাহে মার্কিন গণমাধ্যম ব্লুমবার্গকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে কাতারের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র লোলওয়াহ আল খাতের বলেছিলেন, ইসরায়েলের সঙ্গে সম্পর্ক স্বাভাবিককরণ চুক্তি কোনোভাবেই ইসরায়েল-ফিলিস্তিন সংঘাতের সমাধান হতে পারে না। তাই তেল আবিবের সঙ্গে কূটনৈতিক সম্পর্ক স্থাপনে অন্য উপসাগরীয় দেশগুলোর মতো অগ্রসর হবে না দোহা।

‘আমরা মনে করি না যে, সম্পর্ক স্বাভাবিককরণই এই দ্বন্দ্বের মূল বিষয় ছিল। আর এটা সংঘাতের সমাধানও হতে পারে না। এই সংঘাতের মূল কারণ হলো ফিলিস্তিনিদের রাষ্ট্রহীনতা এবং তারা যে কঠোর অবস্থার মধ্য দিয়ে যাচ্ছে সেটা’, যোগ করেন কাতারের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র।

অন্যদিকে, ইসরায়েলের সঙ্গে সব ধরনের সম্পর্ক স্বাভাবিককরণ প্রস্তাব ফিরিয়ে দিয়েছেন আলজেরিয়ার প্রেসিডেন্ট আবদেল মাদজিদ তেবউউন। একই সঙ্গে দখলদার রাষ্ট্রটির সঙ্গে সম্পর্ক স্থাপন করায় বাহরাইন ও সংযুক্ত আরব আমিরাতকে নিন্দা জানিয়েছেন। গত রোববার সন্ধ্যায় এক প্রেস ব্রিফিংয়ে তিনি বলেন, আমরা লক্ষ্য করলাম যে, কথিত সম্পর্ক স্বাভাবিককরণের দিকে অনেকেই এক ধরনের হামাগুড়ি দিচ্ছে। এটা এমন একটা ব্যাপার যেখানে আমরা কখনোই অংশ নেব না এবং শুভ কামনাও জানাবো না।

আই.এ/

মন্তব্য করুন