সুখী ছিলাম না, নিজেকে সর্বহারা মনে হতো, আমার জীবন বদলে দেয় ইসলাম

প্রকাশিত: ৩:৫৬ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ২২, ২০২০

জার্মানিতে বসবাসকারী কিন্ডির বয়স এখন ৩০ ছুঁই ছুঁই। সাত বছর আগে তিনি ইসলাম গ্রহণ করেন। তবে দুই বছর আগে থেকে তিনি নিজেকে মুসলিম পরিচয় দিচ্ছেন। নিজের ইসলাম গ্রহণ সম্পর্কে তিনি বলেন, আমি তখন কৈশোরের জটিল সময় পার করছিলাম, পালক মা-বাবার সঙ্গে ছিলাম এবং স্কুল থেকে ঝরে পড়েছিলাম।

আমি ছিলাম একজন কিশোরী মা। আমি জীবনে সুখী ছিলাম না; বরং ভবিষ্যৎ নিয়ে আতঙ্কিত ছিলাম, আমি জানতাম না ভবিষ্যতে আমার কী হবে। সব সময় নিজেকে সর্বহারা মনে হতো। আমি একজন ভালো মা হতে চাইছিলাম, তবে পরিবারকে আমি সহযোগিতা করতে পারছিলাম না। একদিন আমি আমার স্বামীর সঙ্গে দেখা করলাম। তিনি আমার চেয়ে বয়সে বেশ বড় ছিল, তবে তিনি আমার প্রতি যত্নশীল ছিলেন।

সর্বোপরি তিনি ছিলেন একজন মুসলিম। যদিও আমার স্বামী ধার্মিক ছিলেন না, তবু তিনি আমাকে মুসলিম হতে বলেন এবং জানান মুসলিম না হলে তাঁর পরিবার আমাদের মেনে নেবে না। আমি অনুভব করতাম একজন মানুষই প্রকৃতার্থে আমার প্রতি যত্নশীল। আমি ইসলাম গ্রহণ করলাম, যেন আমি স্বামীর সঙ্গে থাকতে পারি। এটা ছিল আমার জীবনের সেরা সিদ্ধান্ত।

আমার ইসলাম গ্রহণ শুধু আনুষ্ঠানিকতাই ছিল। আমি কালেমা পাঠ করেই বিয়ে করে নিয়েছি। কিছুদিন পর আমার একজন বাল্যবন্ধুর সঙ্গে দেখা হয়, যে নিজেও মুসলিম হয়েছে। তার অবস্থা ছিল আমার চেয়ে ভিন্ন। সে পর্দা মেনে চলে, নিয়মিত নামাজ পড়ে, কোরআন পাঠ করে এবং রোজা রাখে। তার ভেতর একটা দীপ্তি ছিল।

সে আল্লাহ ও বান্দাদের প্রতি তার ভালোবাসা এবং আল্লাহর প্রতি আমাদের ভালোবাসা বিষয়ে আলোচনা করল। আমি যেন আকাশ থেকে পড়লাম। এটাই সেই ইসলাম, যা আমি শুধু বিয়ে করার জন্য গ্রহণ করেছিলাম! তার কথায় আমি ইসলাম সম্পর্কে আরো জানতে আগ্রহী হলাম। সে আমাকে বলেছিল, আমি যেন আবার দৃঢ় প্রত্যয়ের সঙ্গে কালেমা শাহাদাত পাঠ করি। এরপর আমি নামাজ শিখলাম।

নামাজে পাঠ করা কোরআনের শব্দ ও বাক্য শেখা আমার জন্য সহজ ছিল না। আমি পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ আদায় করতে পারি। এখন আমি হিজাবও পরছি। আমার অগ্রগতি ধীরে ধীরে হচ্ছে, তবে আমি আশাবাদী এটা আমাকে আল্লাহর কাছে পৌঁছে দেবে। আমি বিশ্বাস করি, আমার হৃদয়ের গভীরে একজন সত্যিকার মুসলিম হওয়ার যে আকাঙ্ক্ষা, তা আল্লাহ ভালোভাবে জানেন।

ইসলাম অনুশীলনের পর আমার জীবনধারা বদলে গেছে। আমি অনুভব করতে পারি, আমি ইসলাম ধারণ করেছি। আমি নিজেকে বৃহৎ মুসলিম পরিবারের সদস্য ভেবে আনন্দিত। ইসলাম আমার জীবনে স্থিতি ও শান্তি দিয়েছে—যা শৈশব থেকে আমি খুঁজে ফিরেছি। আমি আরো বেশি জানতে চাই এবং আরো ভালো মুসলিম হতে চাই। আমি চাই আমার সন্তানরা আমাকে ভালো উদাহরণ হিসেবে গ্রহণ করুক।

তারা যেন বুঝতে পারে তাদের মা আল্লাহকে ভালোবাসেন, তাঁর কাছে প্রার্থনা করেন এবং তিনি একজন সত্যিকার মুসলিম নারী হতে পেরেছেন। তাদের জন্য দোয়া করি যেন তারা ইসলামী জীবন যাপন করতে পারে। আমি যখন থেকে ইসলাম পরিপালন করতে শুরু করি, আমার স্বামীও ইসলামচর্চা শুরু করেন।

আগে তিনি মুসলিম থাকলেও বহু বছর ইসলামচর্চা করেনি। আলহামদুলিল্লাহ! গত রমজানে আমরা একসঙ্গে রোজা রাখি। এটা চমৎকার এক অনুভূতি। আমি অনুভব করছি আমার পরিবারে শান্তি নেমে এসেছে। আল্লাহর কাছে আমার প্রার্থনা, যেন আমরা একসঙ্গে তাঁর আরো কাছে যেতে পারি। আমিন। এ্যাবাউট ইসলাম

আই.এ/

মন্তব্য করুন