আল্লামা শফীকে শেষবারের মতো দেখতে উপচে পড়া ভিড়

প্রকাশিত: ১১:১৭ পূর্বাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ১৯, ২০২০

মো: নাজমুল হাসান
পাবলিক ভয়েস

হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশের আমীর, দারুল উলুম মঈনুল ইসলাম হাটহাজারী মাদ্রাসার মুহতামিম, বাংলাদেশের সর্বপ্রবীণ ও সর্বজনশ্রদ্ধেয় আলেম আল্লামা শাহ আহমদ শফীর মরদেহ শেষবারের মতো দেখতে হাটহাজারী মাদ্রাসায় লাখো মানুষের ঢল নেমেছে।

শনিবার (১৯ সেপ্টেম্বর) সকাল ৯টার দিকে ঢাকা থেকে আল্লামা শফীকে বহনকারী অ্যাম্বুলেন্স হাটহাজারী মাদ্রাসা মাঠে প্রবেশ করেছে। এই মাঠেই আল্লামা শফীকে শেষ দেখার জন্য রাখা হয়েছে। মাদ্র্রাসায় সর্বজন শ্রদ্ধেয় এ আলেমকে শেষবারের মতো দেখতে হাজারও মানুষ জড়ো হয়েছে। একনজর দেখার জন্য মাদ্রাসা মাঠে দীর্ঘক্ষন লাইনে দাঁড়িয়ে অপেক্ষা করতে দেখা যায় তাদের।

হুজুরের জানাজা বাদ যোহর (দুপুর ২ টায়) দারুল উলুম মঈনুল ইসলাম হাটহাজারী মাদ্রাসা প্রাঙ্গণে অনুষ্ঠিত হবে। জানাজার নামাজ পড়াবেন আল্লামা শফীর বড় ছেলে মুফতী মো. ইউসুফ। হাটহাজারী থেকে পাবলিক ভয়েসের বিশেষ সংবাদদাতা এখবর জানিয়েছে।

চোখের পানিতে বিদায় জানাচ্ছেন দেশের গণ্ডি ছাড়িয়ে আন্তর্জাতিকভাবে সমাদৃত হওয়া এ আলেমকে। আলেমরা বলছেন, আল্লামা শফীর শূন্যতা পূরণ হবার নয়। তার মৃত্যুতে একটি শতাব্দীর মৃত্যু হয়েছে।

এদিকে হেফাজত আমির আল্লামা আহমদ শফীর মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। শুক্রবার আলাদা আলাদা বার্তায় গভীর শোক জানিয়েছেন। এ ছাড়াও শোক প্রকাশ করেছেন দেশের শীর্ষস্থানীয় আলেমরা ও বিভিন্ন সংগঠনের অনেক নেতারা।

দেশের মাদ্রাসা শিক্ষার ইতিহাসের অন্যতম এক নাম আল্লামা শাহ আহমদ শফী। কওমি মাদ্রাসার দাওরায়ে হাদিসের সনদকে এম এ সমমানের মর্যাদা আদায়ে তিনি ছিলেন প্রধান অগ্রপথিক। বিশ্বের আনাচে-কানাচে আল্লামা আহমদ শফীর ছাত্র, শিষ্য, মুরিদ, ভক্ত ও অনুসারী রয়েছে।

আল্লামা শফী পাঁচ সন্তানের জনক। দুই ছেলে তিন মেয়ে। বড় ছেলে মাওলানা ইউসুফ, ছোট ছেলে মাওলানা আনাস মাদানি।

আল্লামা শফী আল-জামিয়াতুল আহলিয়া দারুল উলুম মুঈনুল ইসলামে শিক্ষকতার মাধ্যমে কর্মজীবন শুরু করেন। ২০১০ সালে হেফাজতে ইসলাম নামে একটি ধর্মীয় সংগঠন প্রতিষ্ঠা করেন। ১৯৮৬ সালে হাটহাজারী মাদ্রাসার মহাপরিচালক পদে যোগ দেন আহমদ শফী। এরপর থেকে টানা ৩৪ বছর ধরে তিনি ওই পদে ছিলেন।

লেখালেখিতেও রয়েছে তার রয়েছে বিশেষ অবদান। বাংলা ও উর্দু ভাষায় তার রচিত গ্রন্থের সংখ্যা ২৫টি।

তার লেখা বইয়ের মধ্যে রয়েছে; বাংলা ভাষায়- হক ও বাতিলের চিরন্তন দ্বন্দ্ব, ইসলামী অর্থ ব্যবস্থা, ইসলাম ও রাজনীতি, সত্যের দিকে করুন আহ্বান, সুন্নাত ও বিদ-আতের সঠিক পরিচয় এবং উর্দু ভাষায়- ফয়জুল জারি (বুখারির ব্যাখ্যা), আল-বায়ানুল ফাসিল বাইয়ানুল হক ওয়াল বাতিল, ইসলাম ও ছিয়াছাত এবং ইজহারে হাকিকাত।

এনএইচ/

মন্তব্য করুন