বিশ্বে শান্তি রক্ষায় আবারও প্রথম স্থান দখল করলো বাংলাদেশ

ষষ্ট বারের মতো প্রথম স্থান দখল করলো বাংলাদেশ

প্রকাশিত: ১:২৪ পূর্বাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ১৬, ২০২০

বিশ্বে শান্তি রক্ষায় জাতিসংঘ কর্তৃক মোতায়েন করা জাতিসংঘ শান্তি রক্ষা মিশনে শান্তিরক্ষী বাহিনীর দেশ হিসেবে আবারও বাংলাদেশ বিশ্বের সব দেশকে টপকে প্রথম স্থান অধিকার করার বিরল গৌরব অর্জন করেছে।

এতে দেশ ও জাতি বিশ্বের দরবারে আবার সম্মানিত ও গৌরবান্বিত হয়েছে। জাতিসংঘ সদর দপ্তরের ওয়েবসাইটে সম্প্রতি এ তথ্য প্রকাশ করা হয়েছে।

এর আগেও বাংলাদেশ পাঁচবার অর্থাৎ ২০০১, ২০০৫, ২০১১, ২০১৪ ও ২০১৫ সালে জাতিসংঘ শান্তিরক্ষী বাহিনী মোতায়েনে প্রথম হয়ে এই বিরল কৃতিত্বের অংশীদার হয়েছিল।

মঙ্গলবার (১৫ সেপ্টেম্বর) আন্তঃবাহিনী জনসংযোগ পরিদপ্তর (আইএসপিআর) থেকে পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এই তথ্য জানানো হয়েছে।

আইএসপিআর থেকে পাঠানো সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে – বিশ্ব শান্তি, নিরাপত্তা ও উন্নয়নের লক্ষ্যে যুদ্ধবিধ্বস্ত দেশে শান্তি স্থাপনের জন্য কাজ করে যাচ্ছে জাতিসংঘের শান্তিরক্ষী বাহিনী।

“জাতিসংঘ শান্তি রক্ষা কার্যক্রম বাস্তবায়নে বাংলাদেশ সর্বদাই ছিল এক গর্বিত অংশীদার। বিশ্বের বিভিন্ন বিরোধপূর্ণ স্থানে শান্তি, সম্প্রীতি ও নিরাপত্তা প্রতিষ্ঠায় বাংলাদেশ সর্বদাই অঙ্গীকারবদ্ধ। আর এই দৃঢ় অঙ্গীকারকে সমুন্নত রাখতে বাংলাদেশ সশস্ত্র বাহিনী জাতিসংঘ আন্তর্জাতিক শান্তি রক্ষা কার্যক্রমে অত্যন্ত সফলতার সঙ্গে অংশগ্রহণ এবং অর্পিত দায়িত্ব পালন করে আসছে।”

বর্তমানে জাতিমংঘের আটটি মিশনে বাংলাদেশের সর্বমোট ছয় হাজার ৮৩৬ জন শান্তিরক্ষী নিয়োজিত আছেন। এর মধ্যে সেনাবাহিনীর সদস্য পাঁচ হাজার ২৫৫ জন, নৌবাহিনীর ৩৪৫ জন, বিমান বাহিনী ৫৮২ জন এবং পুলিশ বাহিনীর ৬৫৪ জন। বর্তমানে শান্তি রক্ষা মিশনে সশস্ত্র ও পুলিশ বাহিনীর ২৪৬ জন নারী শান্তিরক্ষীও কর্মরত আছেন।

বিজ্ঞপ্তিতে আরও বলা হয়েছে – বাংলাদেশ আজ জাতিসংঘ শান্তি রক্ষা মিশনে শীর্ষ শান্তিরক্ষী প্রেরণকারী দেশের মর্যাদা অর্জন করে এই সম্মান বয়ে আনার জন্য জাতি হিসেবে আমরা আজ গর্বিত ও আনন্দিত। জাতিসংঘের উদ্যোগে বিশ্বের শান্তি রক্ষায় গত প্রায় তিন দশকে বাংলাদেশের অবদান অনন্য। জাতিসংঘের আহ্বানে সাড়া দিয়ে পৃথিবীর যুদ্ধবিধ্বস্ত ও সংঘাতময় অঞ্চলে শান্তিরক্ষায় নিয়োজিত রয়েছেন বাংলাদেশের অকুতোভয় শান্তিরক্ষীরা।

বাংলাদেশের শান্তিরক্ষীদের পেশাদারত্ব, সাহসিকতা এবং আন্তরিকতা আন্তর্জাতিক পরিমণ্ডলে বাংলাদেশকে এক অনন্য উচ্চতায় পৌঁছে দিয়েছে।

বাংলাদেশ এরই মধ্যে ৪০টি দেশের ৫৪টি শান্তি রক্ষা মিশনে এক লাখ ৭১ হাজার ৯৫৭ জন শান্তিরক্ষী পাঠিয়ে জাতিসংঘের ইতিহাসে বিশ্ব শান্তি রক্ষায় একটি রোল মডেল হিসেবে পরিচিতি লাভ করেছে। এর মধ্যে সেনাবাহিনীর সদস্য এক লাখ ৩৯ হাজার ২৭১ জন, নৌবাহিনী থেকে পাঁচ হাজার ৯১২ জন আর বিমান বাহিনী থেকে সাত হাজার ১০৬ জন এবং বাংলাদেশ পুলিশ বাহিনীর ১৯ হাজার ৬৬৮ জন বিভিন্ন দেশে মিশনে অংশ নেন।

তা ছাড়া বাংলাদেশ সশস্ত্র ও পুলিশ বাহিনীর এক হাজার ৮২৬ জন নারী শান্তিরক্ষী জাতিসংঘ মিশনের আওতায় বিশ্বের বিভিন্ন দেশে সক্রিয়ভাবে অংশগ্রহণ করে নারীর ক্ষমতায়নে এবং নারী-পুরুষ সমতা বাস্তবায়নে উল্লেখযোগ্য দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে।

১৯৮৮ সাল থেকে জাতিসংঘ শান্তি রক্ষা কার্যক্রমে অংশ নিয়ে আজ পর্যন্ত বাংলাদেশি শান্তিরক্ষীরা সর্বোচ্চ পেশাদারি মনোভাব, আনুগত্য ও সাহসকিতার সঙ্গে বিশ্ব শান্তি রক্ষায় জীবনের ঝুঁকি নিয়ে প্রতিনিয়ত দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছেন। তাঁদের অনন্য অবদানের জন্য আন্তর্জাতিক পরিমণ্ডলে দেশের ভাবমূর্তি উজ্জ্বল হয়েছে। বিশ্ব শান্তি অন্বেষণে এ পর্যন্ত বাংলাদেশ সশস্ত্র ও পুলিশ বাহিনীর ১৫৩ জন শান্তিরক্ষী প্রাণ দিয়েছেন। তাঁদের এই আত্মত্যাগ বিশ্ব শান্তি রক্ষায় বাংলাদেশের প্রতিশ্রুতিকে যেমন রক্ষা করেছে তেমনি সারা বিশ্বের মানুষের কাছে বাংলাদেশকে করেছে গৌরবান্বিত। বিশ্ব শান্তি প্রতিষ্ঠায় বাংলাদেশি শান্তিরক্ষীদের নিরলস অবদান ও নিঃস্বার্থ আত্মত্যাগ জাতিসংঘের ইতিহাসে চির অম্লান হয়ে থাকবে।

সৌজন্যে : এনটিভি।

মন্তব্য করুন