সুদানে ৩০ বছরের ইসলামী শাসনের অবসান!

প্রকাশিত: ৮:৪৯ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ৯, ২০২০

দীর্ঘ ৩০ বছর ধরে চলমান ইসলামী শাসন বাতিল করলো আফ্রিকার দেশ সুদান। সম্প্রতি দেশটির অন্তর্বর্তীকালীন সরকার বিদ্রোহী গোষ্ঠীগুলোর সঙ্গে এ সংক্রান্ত একটি চুক্তিতে সম্মত হয়েছে। ফলে এখন থেকে সেখানে আর সরকারিভাবে কোনো রাষ্ট্রীয় ধর্ম থাকছে না।

মিডল ইস্ট মনিটরের খবরে বলা হয়, গত বৃহস্পতিবার ইথিওপিয়ার রাজধানী আদ্দিস আবাবায় এই চুক্তিতে স্বাক্ষর করেছেন সুদানের প্রধানমন্ত্রী আবদাল্লা হামদোক এবং দেশটির মুক্তি আন্দোলনের নেতা- উত্তর (এসপিএলএম-এন) আবদেল আজিজ আল-হিলু। সেই চুক্তিতে বলা হয়েছে, রাষ্ট্র কোনো সরকারি ধর্ম প্রতিষ্ঠা করবে না। কোনো নাগরিককে তাদের ধর্মের ভিত্তিতে আর বৈষম্য করা হবে না। সুদান একটি গণতান্ত্রিক দেশে পরিণত হবে।

যেখানে সকল নাগরিকের অধিকার সন্নিবেশিত হবে। সে জন্য সংবিধানটি ধর্ম ও রাষ্ট্রের পৃথকীকরণ নীতির ভিত্তিতে হওয়া উচিত। দক্ষিণ সুদানের যুবায় সুদান বিপ্লবী ফ্রন্ট সরকার বিদ্রোহী গোষ্ঠীগুলোর একটি জোটের সঙ্গে শান্তি চুক্তিতে সম্মত হওয়ার বেশ কয়েকদিন পরই এ পদক্ষেপ নিলো। আশা করা হচ্ছে, দারফুরসহ দেশের অন্যান্য অঞ্চলে সংঘাতের অবসান ঘটলে আগামী মাসেই চুক্তিটির চূড়ান্ত স্বাক্ষর হবে।

এর মধ্য দিয়ে সামরিক শাসক ওমর আল-বশিরের অধীনে কার্যকর হওয়া তিন দশক ধরে চলা ইসলামী শরীয়াহ আইন বাতিল করার পদক্ষেপ নিলো সুদান সরকার। দীর্ঘ কয়েক মাস ধরে রাজধানী খর্তুমে চলমান সরকারবিরোধী বিক্ষোভের পর গত এপ্রিলে সামরিক বাহিনীকে ক্ষমতাচ্যুত করা হয়।

১৯৮৯ সালে সামরিক অভ্যুত্থানের মাধ্যমে ক্ষমতায় এসেছিলেন ওমর আল-বশির। এর পরই ইসলামী শাসন কায়েম করেন তিনি। আর এ কাজে তাকে সর্বাত্মক সহায়তা করেছিলেন সুদানের প্রধান ইসলামপন্থী আন্দোলনের নেতা হাসান আল-তুরবী। ১৯৯৩ সাল থেকেই দেশটি মার্কিন সন্ত্রাসবাদের তালিকায় ছিল। ২০১৩ সাল পর্যন্ত নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়েছিল।

আই.এ/

মন্তব্য করুন