১৫ আগস্ট খালেদা জিয়ার জন্মদিনে কেক না কেটে দোয়া মাহফিল করা হবে

প্রকাশিত: ৩:২৫ পূর্বাহ্ণ, আগস্ট ১৫, ২০২০

আজ ১৫ আগস্ট (শনিবার) বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার ৭৬তম জন্মদিন। বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার আরোগ্য ও দীর্ঘায়ু কামনা করে দোয়া ও মিলাদ মাহফিলের আয়োজন করবে বিএনপি। সারা দেশের দলীয় কার্যালয়ে নেতা কর্মীদের এ আয়োজন করার জন্য বলা হয়েছে। ১৫ আগস্ট খালেদা জিয়ার জন্মদিন উপলক্ষে গত চার বছর ধরে বিএনপি দোয়া মাহফিলের আয়োজন করে আসছে।

এ বছর খালেদা জিয়া ৭৬ বছরে পা দিচ্ছেন।

১৫ আগস্ট বঙ্গবন্ধুর শাহাদাতবার্ষিকীর ও জাতীয় শোক দিবসে কেক কেটে খালেদা জিয়ার জন্মদিন পালনের বিষয়টি নিয়ে বিতর্ক বেশ আগে থেকেই। তবে ২০১৬ সাল থেকে কেক কেটে খালেদা জিয়ার জন্মদিন পালন করা হয় না। ২০১৬ সালে গুলশানের হোলি আর্টিজানে জঙ্গি হামলা, বন্যাসহ বিভিন্ন কারণে এবং ২০১৭ সালে চিকিৎসার জন্য বিদেশে থাকায় ওই বছরগুলোতে কেক কেটে খালেদা জিয়ার জন্মদিন উদ্‌যাপন করেনি বিএনপি। ২০১৮ সালে ১৫ আগস্ট কোনো কর্মসূচি পালন করেনি বিএনপি। ২০১৯ সালের ১৬ আগস্ট দোয়া মাহফিলের আয়োজন করে দলটি।

মূলত বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের শাহাদাতবার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবসের দিনে জন্মদিন পালনের বির্তক থেকে বেরিয়ে আসতে একদিন পিছিয়ে ১৬ আগস্ট জন্মদিনের কর্মসূচি পালন শুরু করে দলটি এমনটাই ধারণা অনেকের। তবে বিএনপি এ বিষয়ে স্পষ্ট করে কিছু বলেনি কখনও।

তবে বিএনপি নেতাদের উদ্বৃতি দিয়ে একটি গণমাধ্যম দাবি করেছে যে খালেদা জিয়ার ৭০তম জন্মদিন সিদ্ধান্ত হয় এরপরের জন্মদিনগুলোতে ১৫ আগস্ট তিনি আর কেক কাটবেন না। কেক কাটার পরিবর্তে মিলাদ মাহফিল ও জিয়াউর রহমানের মাজার জিয়ারত করার সিদ্ধান্ত হয়।

১৯৯১ সালে ক্ষমতায় আসার পর ১৯৯৩ সাল থেকে খালেদা জিয়ার জন্মদিনটি জাঁকজমকপূর্ণভাবে উদ্‌যাপন করে আসছে বিএনপি। ২০১৫ সাল পর্যন্ত এটি হয়ে আসছিল। ওই সময়ে ১৪ আগস্ট দিবাগত রাত ১২টা ১ মিনিটে কেক কেটে জন্মদিন উদ্‌যাপন করতেন খালেদা জিয়া। দলটির অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনগুলোও একই ধরনের কর্মসূচি পালন করত।

খালেদা জিয়া দুই বছরের বেশি সময় জেলে থাকার পর সরকারের নির্বাহী আদেশে এখন ছয় মাসের জন্য মুক্ত হয়ে বাসায় আছেন। নেতা কর্মীদের সঙ্গে সাক্ষাৎও খুব কম হয়। গত ২৫ মার্চ দুই শর্তে সরকারের নির্বাহী আদেশে ৬ মাসের মুক্তি পেয়ে গুলশানের বাসভবন ফিরোজায় আছেন খালেদা জিয়া।

সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়া ১৯৪৫ সালে জন্মগ্রহণ করেন। তবে তার জন্মদিন নিয়ে বিতর্ক আছে। খালেদা জিয়ার বাবা এস্কান্দার মজুমদারের বাড়ি ফেনী হলেও তিনি দিনাজপুরে বসবাস করতেন। খালেদা জিয়ার জন্মও সেখানে। তার মায়ের নাম তৈয়বা মজুমদার। ১৯৬০ সালের আগস্ট মাসে জিয়াউর রহমানের সঙ্গে তার বিয়ে হয়। ইন্টারনেটে পাওয়া তথ্যে দেখা গেছে, বাংলা পিডিয়াসহ খালেদা জিয়ার জীবনীর ওপর রচিত কয়েকটি বইয়েও তার জন্মদিন ১৯৪৫ সালের ১৫ আগস্ট উল্লেখ আছে।

মন্তব্য করুন