সমুদ্র বন্দরে ভারতীয় আধিপত্য প্রতিষ্ঠার চুক্তি বাতিল করুন : ইশা

প্রকাশিত: ৯:১৫ অপরাহ্ণ, জুলাই ২১, ২০২০

চট্টগ্রাম ও মংলা বন্দর ব্যবহার ভারতের আধিপত্য কায়েমের দূরভিসন্ধি অনতিবিলম্বে বাংলাদেশের সমুদ্র বন্দরে ভারতের আধিপত্য প্রতিষ্ঠার চুক্তিসহ দেশবিরোধী সকল চুক্তি বাতিল করতে হবে বলে জানিয়েছেন ইসলামী শাসনতন্ত্র ছাত্র আন্দোলন।

আজ ২১ জুলাই ২০২০ইং রোজ মঙ্গলবার ইসলামী শাসনতন্ত্র ছাত্র আন্দোলন-এর কেন্দ্রীয় সভাপতি এম. হাছিবুল ইসলাম ও সেক্রেটারি জেনারেল নূরুল করীম আকরাম এক যৌথ বিবৃতিতে ভারত কর্তৃক বাংলাদেশের চট্টগ্রাম ও মংলা সমুদ্র বন্দর অগ্রাধিকার ভিত্তিতে ব্যবহারের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানান।

নেতৃবৃন্দ বলেন, পণ্য সরবরাহের উছিলায় ভারত বাংলাদেশের প্রধান দুই সামুদ্রিক বন্দরের উপর নিয়ন্ত্রণ কায়েমের সুদুরপ্রসারী পাঁয়তারা করছে। ২০১৮ সালে সম্পাদিত একটি দ্বিপক্ষীয় চুক্তির ভিত্তিতে বাংলাদেশের সমুদ্র বন্দর “অগ্রাধিকার ভিত্তিতে পরীক্ষামূলকভাবে” ব্যবহার করে ভারতের আসাম ত্রিপুরা রাজ্যে পণ্য পরিবহনের জন্য উন্মুক্ত করে দেওয়া হয়েছে। যা বাংলাদেশের চরম স্বার্থবিরোধী। একইসাথে বাংলাদেশের সমুদ্র বন্দরে ভারতের আধিপত্য প্রতিষ্ঠার দূরভিসন্ধি।

এ চুক্তির ফলে বাংলাদেশ অর্থনৈতিক ও বানিজ্যিকভাবে লাভবান তো নয়ই; বরং ক্ষতির সম্মুখীন হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে। এতে করে বাংলাদেশী পণ্যবাহী জাহাজ বন্দরে জটে পড়বে এবং সড়ক ব্যবস্থায় অসহনীয় যানজট তৈরি হবে। যা দেশের অর্থনীতিকে নিশ্চিত হুমকির মুখে ফেলবে।

নেতৃদ্বয় আরো বলেন, ১৯৭৫ সালে ভারত পরীক্ষামূলকভাবে ২১ এপ্রিল থেকে ৩১ মে পর্যন্ত ৪১ দিনের জন্য পরীক্ষামূলকভাবে ফারাক্কা বাঁধ চালুর কথা বলেছিল। কিন্তু পরীক্ষামূলকভাবে চালু করা সেই বাঁধ আজ ৪৫ বছরেও বন্ধ হয়নি। যার ফলে বাংলাদেশের নদীগুলোর নাব্যতা স্থায়ীভাবে হ্রাস পায়। একইসাথে গ্রীষ্মে স্থায়ীভাবে মরুকরণ ও বর্ষা মৌসুমে পানিতে ভাসিয়ে বাংলাদেশের অস্তিত্ব বিলীনের চক্রান্ত বাস্তবায়ন করছে।

নেতৃদ্বয় হুঁশিয়ারি দিয়ে বলেন, অনতিবিলম্বে চট্টগ্রাম ও মংলা বন্দরে ভারতের আধিপত্য প্রতিষ্ঠার চুক্তিসহ বাংলাদেশ বিরোধী সকল চুক্তি বাতিল করতে হবে। অন্যথায় দেশপ্রেমিক ছাত্রজনতাকে নিয়ে দুর্বার গণ-আন্দোলন গড়ে তোলা হবে।

ওয়াইপি/পাবলিক ভয়েস

মন্তব্য করুন