হাটহাজারী প্রসঙ্গ : বিতর্কিত সকল লেখালেখি বন্ধের অনুরোধ জুনায়েদ বাবুনগরীর

প্রকাশিত: ৮:৫৪ অপরাহ্ণ, জুলাই ৯, ২০২০

হাছিব আর রহমান –

  • আল্লামা শফী, আনাস মাদানী ও আমার মধ্যে কোন দূরত্ব নেই
  • আমি ও আনাস মাদানী আল্লামা শফীর দুই সন্তান
  • আমরা সবাই হাটাজারি মাদ্রাসার মুহতামিম আল্লামা শাহ আহমদ শফীর রুহানি সন্তান।
  • আজকের পর থেকে কোন ধরনের ভুল বিভ্রান্তিমূলক লেখালেখি ও প্রচারনা বন্ধ করুন।

– জুনায়েদ বাবুনগরী

বেশ কিছুদিন ধরে চলমান দারুল উলুম মুঈনুল ইসলাম হাটহাজারী মাদরাসার মহাপরিচালক আল্লামা শাহ্ আহমদ শফী ও আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরীর মধ্যে বিভিন্ন দূরত্ব সৃষ্টি বিষয়ক আলাপ আলোচনার মধ্যেই দারুল উলুম মঈনুল ইসলাম হাটহাজারী মাদ্রাসার অফিসিয়াল পেজ থেকে আল্লামা শফী, আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরী এবং মাওলানা আনাস মাদানীর উপস্থিতিতে একটি ভিডিও প্রকাশ করা হয়েছে।

ভিডিওতে লিখিত বক্তব্য আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরী বলেছেন – আমি আনাস মাদানী ও আল্লামা শফীর সাথে কোনো ধরনের কোনো দূরত্ব নেই। কেউ এসব বিষয়ে সোশ্যাল মিডিয়াসহ কোথাও দূরত্ব সৃষ্টিমূলক কোন লেখালেখি করবেন না।

আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরীর পূর্ণাঙ্গ লিখিত বক্তব্য :

প্রিয় দেশবাসী, মাদ্রাসায় পড়ুয়া ছাত্রবৃন্দ এবং ওলামায়ে কেরাম ও হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশ-এর নেতৃবৃন্দসহ অন্যান্য সকল হিতাকাঙ্খী ভাইয়েরা – আজ বুধবার (৮ জুলাই) বাদ মাগরিব আমি মাওলানা মোহাম্মদ জুনায়েদ আপনাদের উদ্দেশ্যে একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয় পরিষ্কার করার জন্য দেশবাসীর সামনে লাইভে আসতে বাধ্য হয়েছি।

আশাকরি আমাদের বক্তব্য শোনার পর আপনাদের অনেক প্রশ্নের উত্তর হয়ে যাবে এবং যারা দৈনিক পত্রিকাসহ সোশ্যাল মিডিয়ায় ও বিভিন্নভাবে বুঝে না বুঝে অহেতুক লেখালেখি করে আমাদের মাঝে দূরত্ব সৃষ্টি করার চেষ্টা করেছেন এবং আমাদের মধ্যে কাল্পনিক, মিথ্যা বানোয়াট অভিযোগ ও দূরত্ব সৃষ্টি করার চেষ্টা করেছেন এবং আমাদের মধ্যে পক্ষ-বিপক্ষ চেষ্টা করার করছেন আপনারা অবশ্যই ভুল করতেছেন।

আমাদের মধ্যে কোনো দূরত্ব নেই। আমরা সবাই হাটাজারি মাদ্রাসার মুহতামিম আল্লামা শাহ আহমদ শফীর রুহানি সন্তান। উনার দীর্ঘ শতবছরের হাতে গড়া এই বাগানের ফসল। হযরতের চোখের পানির দোয়ায় আমরা এই কাসেমী বাংলোর অতন্দ্র প্রহরী। আমাদের মাঝে কোন ধরনের দূরত্ব করার কোন কোন সুযোগ নাই এবং আমরা এই দূরত্ব সৃষ্টির কোন সুযোগ দেব না। বরং যে যারা আমাদের মাঝে দূরত্ব সৃষ্টি করার চেষ্টা করে নিজেদের আখেরাতের সামান নষ্ট করতে যাচ্ছেন তারা আমাদের কোন ক্ষতি করতে পারবেন না। বরং দারুল উলূম হাটহাজারীর বদনাম করবেন, শিক্ষকদের বদনাম করবেন এবং কওমি বাগানের বদনামসহ পুরো জাতিকে বিভক্ত করার আপনাদের পুরা শক্তিপ্রয়োগ করতেছেন।

আমি আজকে এই লাইভ-এর মাধ্যমে আপনাদের সতর্ক করতে চাই যে আপনারা থামুন! আজকের পর থেকে কোন ধরনের ভুল বিভ্রান্তিমূলক লেখালেখি ও প্রচারনা বন্ধ করুন। আপনারা আমাদের ভাই, আপনারা আমাদের বন্ধু। আমাদের মধ্যে বিভেদ সৃষ্টি থেকে ফিরে আসুন। আমাদের ঐক্যবদ্ধ থাকার সুযোগ দিন।

প্রিয় ছাত্র ভাইয়েরা দেশবাসী ও ওলামায়ে কেরাম, হাটহাজারীর হযরত আমাদের জন্য নেয়ামত। আমাদের মাথার ছায়া। মুকুটহীন সম্রাট’। হুজুরের এই শেষ অবস্থায় আমরা যারা হুজুরের মনে কষ্ট দেবো তারা আল্লাহর অলির সাথে যুদ্ধ ঘোষণার শামিল এর মত কাজ করব। হুজুরের পরিবার আমাদের পরম শ্রদ্ধার পাত্র।

প্রিয় ছোট ভাই আনাস ও আমার মাঝে কোনো দূরত্ব নেই। ঘরের মধ্যে যেমন ভুল হয়ে গেলে সবাই বসে এর সমাধান করে ফেলে। তেমন আমাদের মাঝে ভুল বোঝাবুঝি আমরা সমাধান করে নেবো। আমাদের মুরুব্বী আছেন। আমাদের সংশোধন করে দিবেন। আপনারা আমাদের সহযোগিতা করে যাবেন আপনারা আমাদের পাশে থাকবেন।

[ভিডিও শেষে কোলাকুলি করছেন আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরী ও আনাস মাদানী।]

হাটহাজারী মাদ্রাসা সকলেরই মাদ্রাসা। হাটহাজারী মাদ্রাসাসহ সকল কওমি মাদ্রাসার সুখে-দুখে সহযোগিতা করবেন। এইসব মাদ্রাসা ঈমান-আকিদা রক্ষার জন্য আমাদের মুরুব্বীরা না খেয়ে না পড়ে, উপবাস থেকে দীন রক্ষার জন্য ইসলামের কেল্লাস্বরূপ প্রতিষ্ঠা করে গেছেন।

আপনারা যারা ইসলাম আলেম-ওলামা ও দীনকে ভালবাসেন তারা ইনশাল্লাহ মাদ্রাসায় সহযেগিতা যাবেন। এই মাদ্রাসার বেঁচে থাকলে আমাদের ঈমান ও আকিদা হেফাজত হবে।

আমি আবারও বলছি, আসুন আমরা সবাই হুজুরের প্রতি আমাদের অগাধ ভালোবাসা ক মহব্বতের অন্তর খুলে দেই। সাথে সাথে আল্লাহর কাছে আমাদের কৃতকর্মের জন্য তওবা করি। আমাদের আজকের এই লাইভ-এর পর আর কেউ দারুল উলুম হাটহাজারী, মাদরাসার মুহতামিম সাহেব, আমি এবং মাওলানা আনাস সাহেব এর ব্যাপারে কোনো বিরূপ মন্তব্য এবং লেখালেখি যাতে না করি এবং যা লেখালেখি হয়েছে তা বন্ধ করার জন্য বিশেষভাবে অনুরোধ জানাইতেছি।

নিবেদক :
আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরী। সিনিয়র মুহাদ্দিস। দারুল উলুম মঈনুল ইসলাম হাটহাজারী।

  • এছাড়াও এই ভিডিওতে আল্লামা আহমদ শফির পক্ষ থেকেও একটি লিখিত বক্তব্য পাঠ করা হয়। বক্তব্যটি নিচে তুলে ধরা হলো।

আল্লামা শাহ আহমদ শফির পক্ষ থেকে উনার উপস্থিতিতে পড়া লিখিত বক্তব্য।

আপনাদের সকলের দোয়ায় জীবনের শেষ প্রান্তে এসে আপনাদের ভালোবাসা নিয়ে এখনো আপনাদের মাঝে বেঁচে আছি। কিছুদিন যাবত হাটহাজারীর কিছু ঘটনাপ্রবাহ তিলকে তাল করে অনেকে প্রচার করতেছে। ভুল বিভ্রান্তি করিতেছে দলাদলি করার পায়তারা করিতেছে।

আমি সবাইকে বলেতেছি যে – বিনা তাহকাকে এসব বিষয়ে কান দিবেন না। মাথা ঘামাবেন না। মাদ্রাসার। শৃঙ্খলা নষ্ট করবেন না। মাদ্রাসা শান্ত পরিবেশে আছে আপনারা আগের মত মাদরাসাকে সহযোগিতা করে যাবেন, আমাকে সহযোগিতা করবেন। আমাদের মধ্যে কোন প্রকার ভুল বুঝাবুঝি নাই। সবাই দোয়া করবেন আমি আপনাদের জন্য দোয়া করিতেছি।

এবং হেফাজতে ইসলাম-বাংলাদেশ ইসলামের পতাকাবাহী সংগঠন। ইসলাম রক্ষায় হেফাজত আগের মতো দেশবাসীকে সাথে নিয়ে কাজ করবে। এখানে কোনো গ্রুপিং নেই। হেফাজতের দায়িত্বশীলগন, মহাসচিবসহ সকলে স্বপদে বহাল আছেন। শাপলা চত্বরের আন্দোলন বিশেষ কোনো দল বা গোষ্ঠীর সহযোগিতার ব্যাপারে ভুল প্রচারণার করিতেছেন। এগুলোর ব্যাপারে আমি অবগত আছি। হেফাজত আগের মতই আছে এবং ভবিষ্যতেও থাকবে ইনশাল্লাহ। আল্লাহ আমাদের সহায় হোন।

বিনিত নিবেদন :
আল্লামা শাহ আহমদ শফী।
মহাপরিচালক, দারুল উলুম মঈনুল ইসলাম হাটহাজারী।

লিখিত বক্তব্য পাঠ এর পর এসব বিষয়ে সামগ্রিকভাবে আরো কিছু আলোচনা করেছেন হাটহাজারী মাদরাসার সিনিয়র মুহাদ্দিস ও হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশের মহাসচিব আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরী। তিনি বর্তমানে পরিস্থিতিতে হাটহাজারী মাদ্রাসা এবং আল্লামা শাহ আহমদ শফী ও আনাস মাদানী সহ কাউকে নিয়ে কোনো ধরনের লেখালেখি করা থেকে সবাইকে বিরত থাকার অনুরোধ জানিয়েছেন। নিচে সংযুক্ত ভিডিও থেকে এ বিষয়ে আরও বিস্তারিত ধারণা নেয়া যাবে।

আরও পড়ুন : 

আনাস মাদানীর ফোনালাপ : মুখ খুললেন আল্লামা বাবুনগরী

হেফাজতের মহাসচিব পদে রদবদলের গুঞ্জণ, সরগরম সোশ্যাল মিডিয়া

শুকরানা মাহফিল করে হেফাজত ভোলানো যাবে না : বাবুনগরী ইস্যুতে ৬৬ আলেম

ভিডিও :

মন্তব্য করুন