আইমান সাদিককে কারা হত্যার হুমকি দিয়েছে, পরিস্কার হোক : সাইমুম সাদী

প্রকাশিত: ৮:৩৯ পূর্বাহ্ণ, জুলাই ৬, ২০২০

আইমান সাদিককে কারা হত্যার হুমকি দিয়েছে? চারিদিকে এত এত সমস্যার পাহাড়, এগুলোকে পাশ কাটিয়ে উনাকে হত্যার হুমকি দেয় কারা তা আসলেই গবেষণার বিষয়। ব্যাপারটা ভুয়া হওয়ার সম্ভাবনাই বেশী। কাজটা নিন্দনীয় এবং তাতে মূল ইস্যু হারিয়ে যেতে পারে।

কিন্তু কথা হলো কারা তা করেছে স্পষ্ট না, এবং তারা আদৌ আমাদের দোস্ত নাকি দুশমন তাও জানিনা। আইন শৃংখলা রক্ষাকারী বাহিনীর পক্ষে তা সনাক্ত করা কঠিন না।

আমাদের প্রশ্ন ছিলো একদল চরিত্রহীন লম্পট শিক্ষকদের কাছে আমাদের সন্তানদের কি শেখার মত কিছু আছে? যারা সরাসরি সমকামিতাকে প্রমোট করছে তাদের কাছে কি শেখার আছে? এসব কেনো ওই স্কুলের কর্তৃপক্ষ দেখছেনা?

আইমান সাদিক নিজের অবস্থান ক্লিয়ার করেছেন, আমাদের বোধহয় এ পর্যন্ত থেমে যাওয়া উচিত। আইমান সাদিক এসব গর্হিত কাজের বিপক্ষে কিনা যদিও ক্লিয়ার করেননি তারপরও আমাদের থেমে যাওয়া উচিত।

তার নিরাপত্তা যদি বিঘ্নিত হয়, তিনি যদি নিজেকে নিয়ে শংকিত হন তাহলে তার পাশে দাড়ানো উচিত। অন্তত ধর্মীয় ব্যাক্তিত্ব দু একজন তার বাসায় গিয়ে আইমান সাদিকের মা বাবার সাথে দেখা করে সহমর্মিতা জানানো এবং দ্বীনের সঠিক বক্তব্য উপস্থাপন করা উচিত। এবং এটাই দ্বীনের দাওয়াতি মেজাজ।

টেন মিনিটের স্কুল নিয়ে বিরোধিতা আমাদের নেই। আমাদের শংকা ও উদ্বেগ এই প্লাটফর্ম ইউজ করে সমকামিতার মত লুচ্চামি ও চরিত্রহীনতাকে প্রমোট করা হচ্ছে তা নিয়ে।

টেন মিনিটের স্কুলের মত টেন মিনিটের মাদ্রাসা করা নিয়ে অনেকেই বলছেন।

তাতে বরং টেন মিনিটের অনুকরণ করা হয়। আপনার দ্বীন আপনার আদর্শ এত ঠুনকো নয় যে আরেকজনের অনুকরণ করে ধর্মীয় শিক্ষা দিতে হবে। অন্য কোন নামে করেন, অনলাইনে অন্য কোন নাম ও সিস্টেমে দ্বীন শেখান সমস্যা নাই। আরেকজনের মত কেনো হতে হবে?

অনলাইনে, ইউটিউবে তৃতীয় কিংবা চতুর্থ শ্রেণীর বক্তাদের খিস্তিখেউড়ে ভর্তি ভিডিওগুলো পারলে সরান। বয়ানের সাথে ব্যাক্তিজীবনের মিল না থাকলে তাদেরকেও বলেন চুপ থাকতে। অনলাইনে নিজেরা ভালো কিছু দেন। ইনশাআল্লাহ চলমান স্রোত ঘুরে দাড়াতে বাধ্য হবে।

আইমান সাদিক আমাদেরই সন্তান, ভাই ও বন্ধু। আমরা তার প্লাটফর্ম ইউজ করে অশ্লীলতার বিস্তারের বিরোধিতা করব।কিন্তু তার নিরাপত্তার ক্ষেত্রে তার পাশে দাড়াব দায়িত্বশীল বন্ধুর মত।

#আরআর/পাবলিক ভয়েস

মন্তব্য করুন