শাকিব খানের বিরুদ্ধে দিলরুবার ও আসিফের বিরুদ্ধে মুন্নির মামলা

প্রকাশিত: ২:৪১ অপরাহ্ণ, জুলাই ৪, ২০২০

মালেক আফসারীর পরিচালনায় ২০১৯ সালে মুক্তিপ্রাপ্ত ‘পাস*য়ার্ড’ সিনেমাতে অনুমতি না নিয়ে ‘পাগল মন’ শিরোনামের গানের কিছু অংশ ব্যবহার করায় কয়েকদিন আগে তার বিরুদ্ধে ডিজিটাল আইনে অভিযোগ এনেছিলেন গানটির মূল কণ্ঠশিল্পী দিলরুবা খান। এবার সরাসরি গুলশান থানায় শাকিব খানের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করলেন এই সংগীতশিল্পী।

অপরদিকে জনপ্রিয় গায়ক আসিফ আকবরের বিরুদ্ধে রাজধানীর হাতিরঝিল থানায় মামলা করেছেন গায়িকা দিনাত জাহান মুন্নি। গত বৃহস্পতিবার রমনা পুলিশের সাইবার ক্রাইম ইউনিটে অভিযোগ জানাতে যান মুন্নি। সেখান থেকে তাঁকে হাতিরঝিল থানায় পাঠালে লিখিত অভিযোগের ভিত্তিতে মামলা নেয় পুলিশ।

শাকিব খানের মামলার বিষয়ে জানা যায় গত (২৯ জুন) বিকালে শাকিব খানের বিরুদ্ধে কপিরাইট আইন ও ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন লঙ্ঘনের অভিযোগ এনে গুলশান থানায় এই সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেছেন এক সময়ের শ্রোতাপ্রিয় সংগীতশিল্পী দিলরুবা খান। এমনটি গণমাধ্যমকে নিশ্চিত করেছেন গুলশান থানার পরিদর্শক (তদন্ত) আমিনুল ইসলাম।

বিষয়টি প্রসঙ্গে গণমাধ্যমে দিলরুবা খান বলেন, মূল গানটির গীতিকার কায়সার আহমেদ, সুরকার আশরাফ উদাস এবং তার অনুমতি ছাড়াই ‘পাগল মন’ গানের কিছু অংশ শাকিবের সিনেমায় ব্যবহার করেন। শুধু তাই নয়, এটি বানিজ্যিক উদ্দেশ্যে অনলাইন প্ল্যাটফর্ম ও মোবাইল অপারেটর কোম্পানি রবির কাছেও স্বত্ত্ব বিক্রি করে শাকিব।

এর আগে একই অভিযোগ এনে সাইবার ক্রাইম ইউনিটে খান সাহেবের বিরুদ্ধে ২৩ ধারায় অভিযোগ এনেছিলেন দিলরুবা খান। পাশাপাশি ১০ কোটি টাকা ক্ষতিপূরণ দাবিও করেন গায়িকা। সেসময় এমন অভিযোগ নস্যাৎ করে দিয়ে শাকিব বলেন, গানের মাত্র দুটি লাইন ব্যবহার করে এত টাকা ক্ষতিপূরণ অযৌক্তিক। তবে আইনি নোটিশ হাতে পেলে তার উত্তর আইনজীবীই দিবেন বলেন মন্তব্য করেন চিত্রনায়ক।

আসিফ আকবরের মামলার বিষয়ে দিনাত জাহান মুন্নি বলেছেন, ‘কয়েক দিন ধরে আমাকে নিয়ে ফেসবুকে ইঙ্গিতপূর্ণ স্ট্যাটাস দিয়ে যাচ্ছেন আসিফ। সেখানে তাঁর ভক্তরা আমাকে নিয়ে বাজে মন্তব্য করেই যাচ্ছেন।’

এ নিয়ে আগে আসিফকে সাইবার ক্রাইম ইউনিটের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা সতর্ক করেছেন বলেও জানান তিনি। আসিফ ও মুন্নি একসঙ্গে তিনটি দ্বৈত অ্যালবাম করেছেন। ১৫টির মতো সিনেমায় তাঁরা প্লেব্যাক করেছেন।

মামলা প্রসঙ্গে আসিফ আকবর বলেছেন, ‘মুন্নিকে নিয়ে সরাসরি কোনো স্ট্যাটাস দিইনি। তিনি কেন নিজেকে জড়িয়ে নিলেন? জেল খাটার অভিজ্ঞতা আমার আছে। তবে বিশ্বাসঘাতকদের চেহারা কেমন হয়, মানুষকে সেটা দেখাতে চাই।’

এর আগে ২০১৮ সালের ৪ জুন গীতিকার ও সুরকার শফিক তুহিনের করা তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি (আইসিটি) আইনের মামলায় গ্রেপ্তার হন আসিফ আকবর। তবে পাঁচ দিন পর কারাগার থেকে মুক্ত হন তিনি। সেই মামলাটি এখনো চলছে।

#আরআর/পাবলিক ভয়েস

বিজ্ঞাপন

মন্তব্য করুন