করোনা: মেস ভাড়া না পেয়ে শিক্ষার্থীদের আসবাপত্র ডাস্টবিনে ফেললো মালিক

প্রকাশিত: ৯:১৫ অপরাহ্ণ, জুলাই ২, ২০২০

ইউসুফ পিয়াস: করোনা প্রকোপে মার্চের শেষ সপ্তাহ থেকে দেশে সাধারণ ছুটি ঘোষণা করা হয়েছে। করোনা সংক্রমন বৃদ্ধি পাওয়ায় বার বার ছুটি বৃদ্ধি পাচ্ছে দেশের সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে। অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে বিশ্ববিদ্যালয়গুলো।

এমন অবস্থায় ঢাকাসহ বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের মেসে থাকা শিক্ষার্থীরা ফিরে যান গ্রামের বাড়িতে। দীর্ঘদিন ছুটির পর ঢাকায় ফিরে দেখতে পান রুমে তাদের বই খাতা, জামাকাপড়সহ অন্যান্য আসবাপত্র কিছুই নেই। আরো বড় দুঃসংবাদ হলো তাদের শিক্ষাজীবনে অর্জিত সার্টিফিকেটগুলোও নেই।

দু- তিন মাসের ভাড়া বকেয়া থাকার কারনে বাড়িওয়ালা সিটি করপোরেশনের ময়লার গাড়িতে শিক্ষার্থীদের সব জিনিসপত্র তুলে দিয়েছেন। এমন পরিস্থিতি দেখে কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন শিক্ষার্থীরা। সবকিছু হারিয়ে ধানমন্ডির এক বাসার নিচে আহাজরি করছেন শিক্ষার্থীরা। তবে শিক্ষার্থীদের আহাজারিতে মন গলেনি ধানমণ্ডির বাড়ির মালিকের।

জানা যায়, গত চার বছর থেকে ঐ বাড়ির নিচতলায় ভাড়া থাকতেন ঢাকা কলেজের শিক্ষার্থী সজিব সহ আরো ৮জন। করোনা পরিস্থিতে এরকম অমানবিক ঘটনার শিকার বেসরকারি সোনারগাঁও বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্ধশত শিক্ষার্থীও।

শিক্ষার্থীরা তাদের মেসে এসে দেখেন বই, ল্যাপটপ, জামাকাপড় এবং মূল্যবান সব সার্টিফিকেট সব উধাও। একটি বাড়ির গ্যারেজ থেকে উদ্ধার হয় তাদের ছেড়া জামাকাপড়, ভাঙ্গা ট্রাংকসহ অন্যান্য জিনিসপত্র। তবে অনেকের সার্টিফিকেট পাওয়া যাচ্ছেনা।

থানায় অভিযোগ করার পর পুলিশ সন্ধান পায় মেসের পরিচালকের। আটক করা হয় মেস পরিচালককে। আটককৃত মেস পরিচালকের ভাষ্য মতে, কয়েক মাস যাবৎ ভাড়া বকেয়া। তাই তিনি মালামাল সব ফেলে দিয়েছেন।

তিনি আরো জানান “আমি দুই মাস যখন ভাড়া পাইনি, বাসার মালিকের চাপে তখন আমরা এসব করতে বাধ্য হয়েছি ।”

এমন পরিস্থিতিতে কি ব্যবস্থা নিতে পারে পুলিশ? এ বিষয়ে ডিএমপির (নিউমার্কেট জোন) সিনিয়র সহকারী পুলিশ কমিশনার আবুল হাসান বলেন, “আমরা ছাত্রদের আশ্বস্ত করেছি, যে ডকুমেন্টসগুলো হারানো গেছে সেগুলো যেনো ফিরে পায় তাতে আমরা সর্বোচ্চ সহযোগিতা করবো। এছাড়াও আমরা বাড়িওয়ালার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করছি।”

শিক্ষার্থীরা বলছেন, ময়লার গাড়িতে সার্টিফিকেট নয় যেন তুলে দেয়া হয়েছে দির্ঘ দিনের লালিত স্বপ্নগুলো।

ওয়াইপি/পাবলিক ভয়েস

মন্তব্য করুন