ভিন্নধর্মী উদ্যোগে আলেমদের পাশে ‘আস-সিরাজ ফাউন্ডেশন’

প্রকাশিত: ১১:৪৪ অপরাহ্ণ, জুলাই ১, ২০২০

করোনা এখন বিশ্বজুড়ে পরিচিত আতঙ্কের নাম। সর্বদা ছড়িয়ে পড়া করোনা ভয়, সঙ্গে ক্ষুধার জ্বালায় মানুষ আজ বাকরূদ্ধ। অসহায় এই মানুষগুলোর পাশে দাঁড়াচ্ছে নানা স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন। এদের মধ্যে একটি হলো চট্টগ্রামের ‘আস-সিরাজ ফাউন্ডেশন’।

২০১৯ সালের ৫ ডিসেম্বর সংগঠনটির পথচলা। এ সংগঠনের মানবিক সেবা শুরু হয় কম্বল বিতরণের মাধ্যমে। করোনাকালীন এই দুঃসময়ে ফাউন্ডেশনটি অসহায় পথচারী, দিনমজুর এবং স্বল্প আয়ের নারী-পুরুষদের মাঝে নিত্যপ্রয়োজনীয় সামগ্রী ও খাবার বিতরণ করে।

বিশেষভাবে করোনার প্রকোপে চাকরীহারা শত শত আলেমদের পাশে দাঁড়ায় আস-সিরাজ ফাউন্ডেশন’। কক্সবাজার, চট্টগ্রাম, নোয়াখালী, ফেনী, কুমিল্লাসহ অন্যান্য জেলার সম্বলহীন আলেম ও মাদরাসা শিক্ষকদের খেদমতে করে অনন্য নজির সৃষ্টি করেছেন সংগঠনটির প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান মাওলানা তানভীর সিরাজ।

পাবলিক ভয়েসকে তরুণ এ আলেম বলেন, “আস-সিরাজ ফাউন্ডেশন প্রত্যেক আয়োজনে শত শত অসহায় পথচারীর জন্য খাবারের ব্যবস্থা করে থাকে। বিশেষ করে সবচেয়ে বেশি খেয়াল রাখে, কওমি মাদরাসার বেতন না পাওয়া শত শত শিক্ষকদের প্রতি। নগদ অর্থ এবং নিত্যপ্রয়োজনীয় খাদ্যসামগ্রী সহায়তা দিয়ে তাদের পাশে থাকার চেষ্টা করে।”

আস-সিরাজ ফাউন্ডেশনের নেতৃবৃন্দ।

তিনি আরও বলেন, “বর্তমানে সেবামূলক তিনটি প্রজেক্টকে সামনে নিয়ে কাজ করে যাচ্ছে আস-সিরাজ ফাউন্ডেশন। এরমধ্যে চট্টগ্রামের ৩ পার্বত্য জেলার প্রায় ৪০০ অসহায় মুসলিম-অমুসলিমের পাশাপাশি আলেম ও  ইমাম-মুয়াজ্জিনদের সাবলম্বী করে তোলা অন্যতম। আমরা কাজ করে যাচ্ছি। করোনা সঙ্কট কেটে যাওয়ার পরও আশা করছি আমাদের কার্যক্রম অব্যাহত থাকবে।”

“এছাড়াও ফেনী জেলার ৪ থানায় অবস্থানরত অভাবী ইমাম- মুয়াজ্জিন এবং আলেমদের হাতে নিত্যপ্রয়োজনীয় খাদ্যসামগ্রী পৌঁছে দেওয়া হবে এবং সপ্তাহের বিশেষ দিনে প্রায় ১৫০ জন অসহায় ও গরীব পথচারীকে খাবারের ব্যবস্থা করে সংগঠনটি।” যোগ করেন মাওলানা তানভীর সিরাজ।

দারুত তাসনিফ প্রকাশনীর স্বত্বাধিকারী এ আলেম লেখক কক্সবাজারে বসবাস করেন। বাংলাদেশের পার্বত্য একটি জেলায় অবস্থান করা সত্ত্বেও তার খেদমত দৃষ্টান্তস্বরূপ। বললেন বিশিষ্ট ইসলামি স্কলার ও শিক্ষাবিদ  ড. আ ফ ম খালিদ হোসাইন।

তিনি বলেন, “সাম্প্রতিক করোনা পরিস্থিতিতে তানভীর সিরাজের আরেকটি মানবিক গুণের পরিচয় পাওয়া গেলো। নিজের উদ্যোগে প্রতিদিন খিচুড়ি ও বিরিয়ানি রান্না করে অসহায় মানুষের মাঝে বিতরণ করতে তাকে দেখা যায়। নিশ্চয় এই উদ্যোগ প্রসংশার দাবি রাখে। ”

তিনি আরও বলেন, “আমি দেখেছি, চাল, ডাল, তেল, আলু এবং লবনসহ প্রয়োজনীয় নিত্যব্যবহার্য সামগ্রী অভাবগ্রস্থ মানুষের বাড়ি বাড়ি পৌঁছে দিচ্ছেন তানভীর সিরাজ। উৎসাহী অনেক মানুষ তার পাশে দাঁড়াচ্ছে।”

“দিন দিন মানবসেবার পরিধি বিস্তৃত হচ্ছে। এই দৃষ্টান্তকে সামনে রেখে প্রতিটি জেলায় ও থানাতে এমন কয়েকজন মানুষ তৈরি হতে পারে, যারা অসহায়দের সম্বল এবং আল্লাহর প্রিয় হবে।” যোগ করেন ড. আ ফ ম খালিদ হোসাইন।

এদিকে সোশ্যাল মিডিয়ায় আলোচিত ও প্রশংসিত হচ্ছে আস সিরাজ ফাউন্ডেশন। অনুদান ও সহায়তহা পাওয়া অনেকে মন্তব্য করছেন,  “অসহায়, গবীর ও শ্রমজীবী মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছি সংগঠনটি। চেষ্টা করেছে অর্ধহারে, অনাহারে থাকা মানুষরা অন্তত একবেলা যাতে পরিবারের সবাইকে নিয়ে পেট ভরে খেতে পারে।”

“আস সিরাজ ফাউন্ডেশনে যারা সহযোগিতা করতে চান তারা এগিয়ে আসুন। সবার ছোট ছোট সহযোগিতা এবং অনুদান করোনায় বিপদে পড়া মানুষের মুখে হাসি ফোটাবে।”

তারা দোয়া করেন, “আল্লাহ তা’য়ালা আমাদের তানভীর সিরাজ ভাই, তার আস সিরাজ ফাউন্ডেশন এবং সমূদয় খেদমতগুলোকে কবুল করুন। আরো ব্যাপক করে দিন। মীযানে হাসানাতে ভারী করে দিন। আমীন।”

#আরএম/পাবলিক ভয়েস

মন্তব্য করুন