আল্লামা বাবুনগরীকে জড়িয়ে হাটহাজারী মাদরাসার পরিচালক নিয়োগ বিষয়ে ভুল তথ্য প্রচার

প্রকাশিত: ৫:০৮ অপরাহ্ণ, জুন ১৭, ২০২০

উম্মুল মাদারিসখ্যাত দারুল উলুম মঈনুল ইসলাম হাটহাজারী মাদ্রাসার পরিচালক নিয়োগের ক্ষেত্রে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকসহ কিছু অনির্ভরযোগ্য নিউজ পোর্টালে ভুল তথ্য প্রচার করা হচ্ছে এবং বলা হচ্ছে যে, হাটহাজারী মাদ্রাসার মহাপরিচালক নিয়োগ দেওয়া হয়েছে মাদ্রাসার সহযোগী পরিচালক আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরীকে।

কিন্তু পাবলিক ভয়েসের অনুসন্ধানে দেখা গেছে হাটহাজারী মাদ্রাসার ব্যাপারে এমন কোনো সিদ্ধান্ত এখনো আসেনি বরং মজলিসে শুরার বৈঠক এখনো চলমান রয়েছে। বিকেল ৪ টা ১৫ মিনিটে পাবলিক ভয়েসকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক মজলিসে শুরার একজন প্রভাবশালী সদস্য।

এবং আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরীর ব্যক্তিগত সহকারি এনামুল হাসান ফারুকীও পাবলিক ভয়েসকে জানিয়েছেন এমন কোনো সিদ্ধান্ত এখনো তারা জানেন না।

এছাড়াও হাটহাজারী মাদ্রাসা বিষয়ে বিস্তারিত সিদ্ধান্ত মাদ্রাসা কর্তৃপক্ষের পক্ষ থেকে জানানো হবে এর বাইরে কোন নিউজ পোর্টাল বা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে এ ধরনের কোনো সংবাদ বিশ্বাস না করার ব্যাপারেও পাবলিক ভয়েস এর মাধ্যমে জানিয়েছেন মাদ্রাসার কয়েকটি সূত্র।

প্রসঙ্গত : দীর্ঘ প্রতীক্ষার পরে বাংলাদেশের সর্ববৃহৎ কওমি মাদ্রাসা এবং উম্মুল মাদারিস দারুল উলুম মঈনুল ইসলাম হাটহাজারী মাদ্রাসার ভবিষ্যৎ কর্ণধার নির্ধারণ এবং মাদ্রাসার পরিচালনার বিষয়ে পরবর্তী দায়িত্বশীল নির্ধারণের জন্য অনুষ্ঠিত হয়েছে মজলিসে শুরা বৈঠক।

আজ বুধবার হাটহাজারী মাদ্রাসায় অফিশিয়াল কার্যালয় শুরা বৈঠক অনুষ্ঠিত হয় মাদ্রাসার মহাপরিচালক আল্লামা শাহ আহমদ শফির নেতৃত্বে ১১ সদস্য বিশিষ্ট এই শুরা বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়।

একটি সূত্র মতে পাবলিক ভয়েসে প্রাপ্ত তথ্য অনুসারে হাটাহাজারী মাদরাসার আজকের শূরা বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন আল্লামা শাহ আহমদ শফী, আল্লামা নোমান ফয়েজী, ঢাকা থেকে গিয়েছেন ফরিদাবাদ মাদ্রাসার নাজেমে তালিমাত আল্লামা নুরুল ইসলাম, ফরিদাবাদ মাদ্রাসার মহাপরিচালক এবং হাইয়াতুল উলয়ার কো-চেয়ারম্যান আল্লামা আব্দুল কুদ্দুস। এছাড়াও ছিলেন মুফতি নুরুল আমিন, মুফতি মাহমুদুল হাসান ফতেপুরী, মুফতি সালাউদ্দিন নানুপুরী, মুফতি শুয়াইব নোমানী, মুফতি আবুল হাসান, মুফতি আবুল কাশেম ফেনী, মুফতি ওমর ফারুক প্রমূখ।

প্রাথমিকভাবে শূরা বৈঠকে হাটহাজারী মাদ্রাসার সহযোগী পরিচালক ও হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশের মহাসচিব আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরীকে আমন্ত্রণ জানানো না হলেও পরবর্তীতে শূরা বৈঠক-এর মধ্যবর্তী সময় আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরীকে সেখানে আমন্ত্রণ জানানো হয়। বিষয়টি পাবলিক ভয়েসকে জানিয়েছিলেন আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরীর একান্ত সহকারী এনামুল হাসান ফারুকী। তবে শূরা বৈঠকে আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরীর সাথে কি কথা হয়েছে তা জানা যায়নি।

  • এবং আল্লামা বাবুনগরীকে মিটিংয়ে অংশগ্রহণ করার কিছুক্ষণ পর বের হয়ে আসতে দেখা গেছে বলে জানিয়েছেন নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক হাটহাজারী মাদ্রাসার একজন ছাত্র যিনি হাটহাজারী মাদরাসায় উপস্থিত ছিলেন।

এছাড়াও বিকেল চারটার দিকে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে একটি কথা ছড়িয়ে পড়েছিল যে হাটহাজারী মাদ্রাসা পরবর্তী মহাপরিচালক নিয়োগ দেওয়া হয়েছে আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরীকে। কিন্তু বিষয়টি সম্পর্কে পাবলিক ভয়েসের পক্ষ থেকে কথা বলা হয়েছিল একজন শূরা সদস্যের সাথে। তিনি তখন (৪.১৫ মিনিটে) জানিয়েছিলেন শূরা বৈঠক তখনও শেষ হয়নি এবং এমন কোনো সিদ্ধান্তও আসেনি। বরং বিস্তারিত সিদ্ধান্ত মাদরাসা কর্তৃপক্ষের মাধ্যমেই জানানো হবে।

হাছিব আর রহমান/পাবলিক ভয়েস

মন্তব্য করুন