চট্টগ্রামে করোনা চিকিৎসায় ভয়াবহ অনিয়ম : ইশা ছাত্র আন্দোলনের প্রতিবাদ

প্রকাশিত: ৬:৪২ অপরাহ্ণ, জুন ১২, ২০২০

করোনা চিকিৎসায় অব্যবস্থাপনা এবং স্বাস্থ্যখাতে দুর্নীতির প্রতিবাদে ইশা ছাত্র আন্দোলন চট্টগ্রাম মহানগর শাখা মানববন্ধন করেছে আজ।

আজ ১২ জুন শুক্রবার বিকেল ৩টায় চট্টগ্রাম প্রেসক্লাবের সামনে করোনা চিকিৎসায় চরম অব্যবস্থাপনা এবং স্বাস্থ্য খাতে সীমাহীন দুর্নীতির প্রতিবাদে ইশা ছাত্র আন্দোলন চট্টগ্রাম মহানগরের মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়।

সংগঠনের চট্টগ্রাম মহানগরের সভাপতি রিদওয়ানুল হক শামসীর সভাপতিত্বে উক্ত মানববন্ধন সঞ্চালনা করেন শাখার সাধারণ সম্পাদক মুহাম্মদ নাজিম উদ্দিন।

সভাপতির বক্তব্যে রিদওয়ানুল হক শামসী বলেন, “দেশব্যপী করোনা ভাইরাস যখন মহামারী আকার ধারণ করেছে, তখন সরকারী আমলা ও জনপ্রতিনিধিরা তাদের দায়িত্ব ভুলে দুর্নীতির মহোৎসবে মেতে উঠেছে। ফলে করোনা চিকিৎসায় চরম অব্যবস্থাপনা এবং স্বাস্থ্য খাতে সীমাহীন দুর্নীতি। দেশে প্রথম শনাক্তের পর থেকেই করোনা চিকিৎসায় ছিল চরম অব্যবস্থাপনা। রোগী ভর্তি ও চিকিৎসায় বিড়ম্বনা, নমুনা প্রদানে বিড়ম্বনা, রোগী ও রোগীর স্বজনদের সাথে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের অশালীন আচরণ এখন নিয়মিত অভিযোগে পরিনত হয়েছে।

তিনি বলেন, এহেন পরিস্থিতিতে সরকারের দায়িত্বশীল পর্যায় থেকে তদারকি না করে তারা এ খাতকে দুর্নীতির মহোৎসবে পরিণত করেছে। অন্যদিকে অসাধু ব্যবসায়ীরা সিন্ডিকেট করে করোনা চিকিৎসায় ব্যবহৃত হয় এমন পণ্যের দাম বহুগুনে বাড়িয়ে দিয়েছে। গতকাল খবর প্রকাশ হয়েছে, চট্টগ্রাম কয়েকজন ব্যবসায়ী মিলে অক্সিজেন সিলিন্ডারের সংকট তৈরি করে এর দাম বহুগুণ বাড়িয়ে ফেলে। এ যেন মড়ার উপর খাড়ার ঘাঁ। কিন্তু এদের যেন করার কিছু নেই। আমরা প্রশাসনের এমন নির্বিকার আচরণের নিন্দা জানাচ্ছি। এবং অনতিবিলম্বে এদের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নেওয়ার আহ্বান জানাই।”

তিনি আরও বলেন, একদিকে চিকিৎসা ব্যবস্থায় অব্যবস্থাপনা, অন্যদিকে ভয়াবহ দুর্নীতি। এ যেন বালিশ ও পর্দা কেলেঙ্কারীকেও হার মানিয়েছে। গণমাধ্যম সূত্রে স্বাস্থ্য খাতে দুর্নীতির যে খতিয়ান তুলে ধরা হয়েছে তা রীতিমত লোমহর্ষক। ১২০ থেকে ২৫০ টাকা মূল্যের রেইনকোর্ট জাতীয় পণ্য কিনে পিপিই বলে হাসপাতালে সরবরাহ করা হয়েছে। যার প্রত্যেকটি ব্যয় ধরা হয়েছে ৪৭০০ টাকা। এক লাখ সেফটি গগলস ক্রয়ে ব্যয় ধরা হয়েছে ৫০ কোটি টাকা। প্রতিটি গগলসের দাম পড়বে ৫০০০ টাকা করে। শুধুমাত্র সেমিনারের জন্য ব্যায় ধারা হয়েছে ৪৫ কোটি টাকা ৫টি সফটওয়ারের ব্যায় ৫৫ কোটি টাকা। আমরা এই মানববন্ধন থেকে সরকারের প্রতি আহবান করছি, অবিলম্বে এই মহাচুরির পরিকল্পনায় জড়িত প্রত্যেককে শাস্তির আওতায় নিয়ে আসুন। অন্যথায় জনগণ এর হিসেব কশার জন্য আর অপেক্ষা করবে না।

গতকাল উপস্থাপিত ২০২০-২১ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেটকে দুর্নীতির আইনি অনুমোদন পত্র উল্লেখ করে তিনি আরও বলেন, “বিগত সরকারগুলোর ধারাবাহিকতায় এবারের বাজেটেও সরকারদলীয় নেতাকর্মীদের লুটপাটের সুবিধার দিকে লক্ষ্য রেখে দুর্নীতিবাজ ও কালো টাকার মালিকেদের অবৈধ টাকা সাদা করার সুযোগ করে দেয়া হয়েছে।”

মানববন্ধনে আরও বক্তব্য রাখেন ইসলামী শাসনতন্ত্র ছাত্র আন্দোলন চট্টগ্রাম মহানগরের সাবেক সভাপতি মুহা. ইব্রাহিম খলিল, বর্তমান সহ-সভাপতি মুহাম্মদ তানভীর হোসাইন, প্রশিক্ষণ সম্পাদক আব্দুর রহমান রবিন, আলীয়া মাদ্রাসা বিষয়ক সম্পাদক মামুন রশিদ, নগর সদস্য আব্দুল কাদের, বাকলিয়া থানা শাখার সভাপতি মুহাম্মদ নূরনবী শাওন প্রমুখ।

এতে আরও উপস্থিত ছিলেন ইসলামী শাসনতন্ত্র ছাত্র আন্দোলন চট্টগ্রাম মহানগরের আওতাধীন বিভিন্ন থানা, ওয়ার্ড ও ইউনিট থেকে আগত দায়ীত্বশীল ও সদস্যবৃন্দ।

#আরআর/পাবলিক ভয়েস

মন্তব্য করুন