‘শাহ তৈয়ব রহ. এর ইন্তেকালে প্রধানমন্ত্রীর শোক, সংসদে শোক প্রস্তাব আনা হবে’

প্রকাশিত: ৮:১৫ অপরাহ্ণ, মে ২৫, ২০২০

দেশের সর্বজন শ্রদ্ধেয় অন্যতম শীর্ষ বুজুর্গ আলেম আল্লামা শাহ মুহাম্মদ তৈয়ব রহ. এর ইন্তেকালে শোক জানিয়েছেন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল।

এছাড়াও শোক জানিয়েছেন, ভূমিমন্ত্রী সাইফুজ্জামান চৌধুরী জাবেদ, ধর্মপ্রতিমন্ত্রী শেখ আবদুল্লাহ, হুইপ ও পটিয়ার এমপি শামসুল হক চৌধুরী, হেফাজত ইসলাম বাংলাদেশের আমীর আল্লামা শাহ আহমদ শফী, ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের আমীর মুফতী সৈয়দ রেজাউল করীমসহ দেশের বিশিষ্টজনরা।

বিশিষ্টজনরা শোক বার্তায় শাহ তৈয়ব রহ. এর ইন্তেকালে গভীর শোক প্রকাশ করে পরিবার ও স্বজনদের প্রতি সমবেদনা জানান। মরহুমের রুহের মাগফেরাত কামনা করেন এবং গভীর দুঃখ প্রকাশ করেন।

  • প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কার্যালয়ে থেকে ফোন করে স্বজনদের সমবেদনা জানানো হয়। একই সাথে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় থেকে সংসদের আগামী অধিবেশনে হুজুরের ইন্তেকালে শোক প্রস্তাব আনা হবে বলেও টেলিফোনে জানানো হয়েছে।

আজ (২৫ মে, সোমবার) পবিত্র ঈদুল ফিতরের দিন চট্টগ্রামের জিরি মাদরাসা প্রাঙ্গনে জানাযা শেষে সমাহিত হয়েছেন দেশের সর্বজন শ্রদ্ধেয় এই বুজুর্গ আলেম।

সকাল সাড়ে ৯ টায় জিরি মাদরাসা মাঠে জানাযা শেষে চিরনিদ্রায় শায়িত হন দেশের এ শীর্ষ বুজুর্গ আলেম।  প্রশাসনের কড়াকড়ির মাঝে সুশৃংখলভাবে জানাযা সম্পন্ন হয়। জানাজার নামাজে ইমামতি করেন, হাটহাজারী মাদরাসার সিনিয়র মুহাদ্দিস ও সহকারী পরিচালক হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশের মহাসচিব আল্লামা জুনাইদ বাবুনগরী।

এসময় প্রখ্যাত শিক্ষাবিদ ড. আফম খালিদ হোসেন, শায়খুল হাদিস মাওলানা মুছা সাহেব, আল্লামা শাহ জমির উদ্দীন নানুপুরী রহ. এর সাহেবজাদা মাওলানা হেলাল উদ্দীনসহ বিশিষ্ট ওলামায়ে কেরাম উপস্থিত ছিলেন।

এর আগে রবিবার দিবাগত (সোমবার মধ্যরাত) রাত দেড়টার দিকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নামাজের সেজদারত অবস্থায় বার্ধক্য জনিত এবং ব্লাড প্রেসার লো হয়ে যায়। এরপর তিনি ইন্তেকাল করেন। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিলো ৭৯ বছর

আল্লামা শাহ মুহাম্মদ তৈয়ব সাহেব হুজুরের ইন্তেকালে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল, ভূমিমন্ত্রী সাইফুজ্জামান চৌধুরী জাবেদ, ধর্মপ্রতিমন্ত্রী শেখ আবদুল্লাহ, হুইপ ও পটিয়ার এমপি শামসুল হক চৌধুরী, হেফাজত ইসলাম বাংলাদেশের আমির আল্লামা শাহ আহমদ শফি সাহেব হুজুর, ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের আমীর মুফতি সৈয়দ রেজাউল করীম পীর সাহেব চরমোনাইসহ বিভিন্ন মহল গভীর শোক প্রকাশ করেছেন।

আল্লামা শাহ তৈয়ব রহ. বাংলাদেশের সর্বপ্রাচীন কওমী মাদরাসাসমূহের অন্যতম আল জামিয়াতুল আরাবিয়াতুল ইসলামিয়া জিরি মাদরাসার মুহতামিম। কওমি মাদরাসাগুলোর সবচেয়ে বৃহত্তম বোর্ড বেফাকুল মাদারিসিল আরাবিয়া বাংলাদেশের সহ-সভাপতি ছিলেন। এবং দেশের প্রবীণ আলেমদের মধ্যে অন্যতম ব্যাক্তিত্ব ছিলেন। দীর্ঘদিন ধরে তিনি বার্ধক্যজনিত রোগে ভুগছিলেন।

উল্লেখ্য, জানাজা পূর্বে মাদরাসার জামে মসজিদে মজলিশে শুরার সিদ্ধান্তক্রমে আল্লামা জুনাইদ বাবুনগরী মরহুম হুজুরের মেঝ সাহেবজাদা মাওলানা হাফেজ মুহাম্মদ খোবাইবকে জিরি মাদরাসার নতুন মুহতামিম হিসেবে নাম ঘোষণা করেন। পরে ঘোষণাপত্র পাঠ করে শোনান ড. আ ফ ম খালিদ হোসেন।

এর আগে করোনা পরিস্থিতিজনিত নিরাপত্তার স্বার্থে পুলিশ জিরি মাদরাসার সব প্রবেশমুখ বন্ধ করে দেয়।

জিরি মাদরাসার মুহতামিম আল্লামা শাহ তৈয়ব ইন্তেকাল করেছেন

চিরনিদ্রায় শায়িত হলেন আল্লাম শাহ মুহাম্মদ তৈয়ব রহ.

/এসএস

মন্তব্য করুন