শুক্রবার: আজ সর্বোচ্চ ২৪জনের মৃত্যু এবং শনাক্ত ১৬৯৪জন!

করোনাভাইরাস পরিস্থিতি

প্রকাশিত: ২:৪৬ অপরাহ্ণ, মে ২২, ২০২০

মহামারী করোনাভাইরাসে আজ শুক্রবার (২২ মে) দেশে ২৪ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে দেশে মোট মৃত্যু হলো ৪৩২ জনের। এছাড়া গত ২৪ ঘন্টায় করোনা শনাক্ত হয়েছে ১৬৯৪ জনের। এ নিয়ে দেশে মোট আক্রান্তের সংখ্যা হলো ৩০ হাজার ৪৩২ জন।

  • এদিকে গত ২৪ ঘন্টায় সুস্থ হয়েছে সুস্থ ৫৮৮জন এবং এখন পর্যন্ত মোট সুস্থ হয়েছেন ৬ হাজার ১৯০জন।

আজ শুক্রবার (২২ মে) দুপুরে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের নিয়মিত সংবাদ বুলেটিনের ব্রিফিংয়ে এসব তথ্য জানিয়েছেন আইইডিসিআর এর মহাপরিচালক (ভারপ্রাপ্ত) অধ্যাপক ডা. নাসিমা সুলতানা।

গতকাল বৃহস্পতিবার পর্যন্ত দেশে একদিনে সর্বোচ্চ আক্রান্ত ও মৃতের নতুন রেকর্ড ছিলো ২১ জনের মৃত্যু এবং ১৭৭৩ জনের আক্রান্ত হওয়ায়। আজ শুক্রবার ‍মৃতের রেকর্ড সর্বোচ্চ ছাড়িয়ে ২৪জন হলো। অর্থাৎ প্রতিনিয়তই দেশে আক্রান্ত ও মৃতের রেকর্ড বাড়ছে।

সংশ্লিষ্ট খবর:
বৃহস্পতিবার:
ফের সর্বোচ্চ আক্রান্ত ও মৃত্যুর নতুন রেকর্ড!

ব্রিফিংয়ে গত ২৪ ঘন্টায় ঢাকা ও ঢাকার বাইরে মোট ৪৭টি ল্যাবের তথ্য তুলে ধরা হয়েছে জানিয়েছেন ডা. নাসিমা সুলতানা।

নাসিমা সুলতানা জানান, গত ২৪ ঘন্টায় নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছিলো ৯৯৯৩টি এবং এরমধ্যে নমুনা পরীক্ষা করা হয় ৯৭২৭টি। এ নিয়ে দেশে মোট নমুনা পরীক্ষা হয়েছে ২ লাখ ২৩ হাজার ৮৪১টি।

এছাড়াও গত ২৪ ঘন্টায় আইসোলেশনে গেছে ২২৫জন ছাড় পেয়েছেন ৬২জন। মোট আইসোলেশনে গেছেন ৪০৬০জন। মোট ছাড় পেয়েছেন ২০২৮জন।

উল্লেখ্য : বাংলাদেশে গত ৮ ই মার্চ করোনাভাইরাস প্রথম ধরা পড়ে। এরপর হুহু করে বাড়ছে আক্রান্তের সংখ্যা। গত (১৫ মে) দেশে সর্বোচ্চ আক্রান্ত এবং সর্বোচ্চ মৃতের রেকর্ড হয়। আজ সোমবার (১৮ মে) সেটাও ছাড়িয়ে গেলো।

করোনাভাইরাসে বিশ্বব্যাপী মৃতের সংখ্যা এই মূহুর্তে তিন লাখ পার হয়ে সাড়ে তিনলাখ ছুঁই ছুঁই করছে। প্রতিমূহুর্ত বাড়ছে মৃতের সংখ্যা। ২১ মে দুপুর ২ টা পর্যন্ত বিশ্বব্যাপী করোনায় মৃতের সংখ্যা ৩ লক্ষ ৩৪ হাজারেরও বেশি। এরমধ্যে শুধুমাত্র আমেরিকাতেই ৯৬ হাজারের বেশি মানুষ মারা গেছে

বাংলাদেশেও প্রতিদিন বাড়ছে আক্রান্ত ও মৃতের সংখ্যা। বিশেষ করে পরীক্ষা যতো বাড়ছে আক্রান্তের সংখ্যাও বাড়ছে হু হু করে। বাড়ছে ঝুঁকি।

এদিকে করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ এড়াতে গণপরিবহন বন্ধ থাকলেও ঈদের দুইদিন আগে ঢাকার দুই প্রবেশ পথ প্রাইভেটকার ও মাইক্রোবাসের জন্য খুলে দেয়া হয়েছে বলে জানিয়েছে পুলিশ। ফলে ঈদের আগে বাড়ি ফিরতে প্রাইভেটকার ও মাইক্রোবাসসহ ব্যক্তিগত যানবাহনে বাধা কাটল।

রাজধানীর গাবতলী এবং যাত্রাবাড়ী এলাকায় বৃহস্পতিবার (২১ মে) দিবাগত রাত থেকেই প্রাইভেটকার ও মাইক্রোবাস চলাচলে বাধা দেয়া হচ্ছে না।

সরকারের উচ্চমহল থেকে এ ধরনের একটি মৌখিক নির্দেশনা পুলিশের প্রতিটি রেঞ্জের ডিআইডি, পুলিশ সুপার (এসপি) এবং মেট্রোপলিটন শহরের উপ-কমিশনারদের (ডিসি) জানিয়ে দেওয়া হয়েছে বলে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) একটি সূত্রে জানা গেছে।

সূত্রটি আরো জানায়, গণপরিবহন নয় ব্যক্তিগত গাড়ি নিয়ে ছুটিতে জরুরি কাজের জন্য কেউ যদি গ্রামের বাড়ি ফিরতে চাইলে তাদের যেতে দিতে বলা হয়েছে। তাদের বাধা না দিতে পুলিশকে সরকারের পক্ষ থেকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

গাবতলীতে পুলিশের দুটি চেকপোস্ট নির্দেশনা মোতাবেক ‘ইন’ও ‘আউটে’র ক্ষেত্রে তুলে নেয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন মিরপুর ডিভিশনের দারুস সালাম জোনের এডিসি মাহফুজা আফরোজ লাকী।

পুলিশ কর্মকর্তা লাকী জানান, আমরা নির্দেশনা পেয়েছি। রাত ১০টার দিকে চেকপোস্ট উঠিয়ে নেয়া হয়েছে।

তিনি বলেন, গণপরিবহন সম্পূর্ণ বন্ধ থাকবে। কেউ যদি মাইক্রোবাস ও প্রাইভেট কার নিয়ে ঢাকা থেকে বের হয় বা প্রবেশ করে তাতে বাধা নেই। হেঁটে গেলেও বাধা নাই।

ঢাকার আরেক প্রান্তে যাত্রাবাড়ী থানার ওসি মাজহারুল ইসলামও একই সিদ্ধান্তের কথা জানিয়ে বলেন, গণপরিবহন সম্পূর্ণ বন্ধ থাকবে। তবে প্রাইভেটকার ও মাইক্রোবাস যোগে ইন-আউট করা যাবে। তবে যাত্রাবাড়ীতে পুলিশের চেকপোস্ট আছে বলে জানান ওসি মাজহারুল ইসলাম।

সংশ্লিষ্ট খবর:

ঈদে প্রাইভেটকার-মাইক্রোবাসে বাড়ি ফেরার অনুমতি!

খোলা মাঠের পরিবর্তে মসজিদে ঈদের নামাজ আদায় ও দোয়ার অনুরোধ

২০০ বছরের ইতিহাসে এই প্রথম শোলাকিয়ায় হবে না ঈদের জামাত

মন্তব্য করুন