সাতক্ষীরায় আম্ফানের প্রভাব : নিরাপদ আশ্রয়ে নেয়া হয়নি বাসিন্দাদের

প্রকাশিত: ৭:২৬ অপরাহ্ণ, মে ১৯, ২০২০

সুপার সাইক্লােনে পরিণত হওয়া ঘূর্ণিঝড় আম্ফানের প্রভাব পড়তে শুরু করেছে। ইতোমধ্যে উপকূলীয় জেলা সাতক্ষীরার প্রচণ্ড ঝড়-বৃষ্টি শুরু হয়েছে। দুপুরের দিকে শুরু হওয়া যার ফলে উপকূলীয় এলাকার নদীতে ঢেউ ও পানি কয়েকগুণ বৃদ্ধি পেয়েছে। সেই সঙ্গে দমকা বাতাস বইছে।

এখনো এই অঞ্চলের মানুষদের নিরাপদ আশ্রয়ে সরিয়ে নেয়া হয়নি জানিয়ে স্থানীয় এক বাসিন্দা জানান, দুপুর থেকেই প্রচুর ঝড়বৃষ্টির ফলে নদীর পানি বৃদ্ধি পেয়েছে। এখনো এই অঞ্চলের মানুষদের নিরাপদ আশ্রয়ে সরিয়ে নেয়া হয়নি। পরিস্থিতি আরো খারাপ হলে মানুষদের আশ্রয়কেন্দ্রে নিতে অনেক বেগ পেতে হবে।

এ বিষয়ে শ্যামনগর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) আ.ন.ম আবুজর গিফারী বলেন, ঝড়ের আগে উপকূলীয় এলাকায় বৃষ্টি হওয়াটা স্বাভাবিক। আগেও বৃষ্টির মধ্যে কাজ করার অভিজ্ঞতা আছে। তাই উপকূলীয় বাসিন্দাদের নিরাপদ আশ্রয়ে সরিয়ে নিতে সমস্যা হবে না বলে আশা করছি।

সেচ্ছাসেবী টিম প্রস্তুত আছে জানিয়ে তিনি বলেন, ইতোমধ্যে অন্তত দুই হাজার মানুষকে নিরাপদ আশ্রয়কেন্দ্রে সরিয়ে নেয়া হয়েছে। বাকিদের সরিয়ে নেয়ার কাজ চলছে। পাশাপাশি দুর্যোগ মোকাবেলায় সহায়তা করতে সেনাবাহিনী, নৌবাহিনী, ফায়ার সার্ভিস ও কোস্টগার্ডের দল প্রস্তুত রয়েছে। প্রশাসনের পক্ষ থেকে মেডিকেল টিমও প্রস্তুত রাখা হয়েছে।\

এদিকে সুপার সাইক্লোনটি বর্তমানে পশ্চিম-মধ্য বঙ্গোপসাগর ও তৎসংলগ্ন এলাকা থেকে উত্তর-উত্তরপূর্ব দিকে অগ্রসর হচ্ছে। এটি আরো উত্তর-উত্তরপূর্ব দিকে অগ্রসর হয়ে আজ শেষরাত নাগাদ বাংলাদেশের খুলনা ও চট্টগ্রামের মধ্যবর্তী অঞ্চলে আঘাত হানতে পারে। এরপর আগামীকাল বিকেল বা সন্ধ্যা নাগাদ বাংলাদেশের উপকূল অতিক্রম করতে পারে।

বাংলাদেশ উপকূল অতিক্রম করার সময় উপকূলীয় জেলা খুলনা, সাতক্ষীরা, বাগেরহাট, পটুয়াখালী, বরিশাল, বরগুনা, ঝালকাঠি, ভোলা, পিরোজপুর, নোয়াখালী, ফেনী, চাঁদপুর, লক্ষ্মীপুর ও চট্টগ্রাম এবং তাদের অদূরবর্তী দ্বীপ ও চরসমূহে স্বাভাবিকের চেয়ে ৫ থেকে ১০ ফুট উচ্চতার জলোচ্ছ্বাস হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে। অমাবস্যার কারণে এ আশঙ্কা আরো তীব্রতর। পাশাপাশি এসব অঞ্চলসমূহে এ সময় ঘন্টায় ১৪০ থেকে ১৬০ কিলোমিটার বেগে দমকা অথবা ঝড়ো হাওয়াসহ ভারী থেকে অতি ভারী বর্ষণ হতে পারে।

আবহাওয়া অফিস জানায়, সুপার সাইক্লোনটি বর্তমানে যেখানে অবস্থান করছে, তার আশপাশের ৯০ কিলোমিটারের মধ্যে বাতাসের একটানা সর্বোচ্চ গতিবেগ ঘণ্টায় ২২৫ কিলোমিটার। তবে এটি মাঝে মাঝে দমকা ও ঝড়ো হাওয়ার আকারে ২৪৫ কিলোমিটার পর্যন্ত বৃদ্ধি পাচ্ছে। এ কারণে সাইক্লোনটির আশপাশের সাগর খুবই বিক্ষুব্ধ রয়েছে।

এমএম/পাবলিকভয়েস

মন্তব্য করুন