দেশের প্রথম লকডাউন হওয়া শিবচর করোনামুক্ত

প্রকাশিত: ১২:৫৯ অপরাহ্ণ, মে ১৯, ২০২০

করোনামুক্ত ঘোষণা করা হয়েছে দেশের প্রথম লকডাউন হওয়া উপজেলা মাদারীপুরের শিবচর। সর্বশেষ করোনায় আক্রান্ত এক যুবক আগের ২৪ ঘণ্টায় সুস্থ হয়ে বাড়ি ফেরায় এ উপজেলার আপাতত আর কোনো ব্যক্তির শরীরে ভাইরাসটির উপস্থিতি নেই।

এ সংবাদের সত্যতা নিশ্চিত করে মাদারীপুরের সিভিল সার্জন মো. সফিকুল ইসলাম বলেন, ‘জেলার মধ্যে শিবচর উপজেলায় করোনা পরিস্থিতি ভালো। নতুন সংক্রমণ আপাতত নেই। ২৪ ঘণ্টায় চিকিৎসাধীন এক যুবককে সদর হাসপাতাল থেকে ছাড়পত্র দেয়া হয়েছে।’

তিনি জানান, এই উপজেলায় এখন আক্রান্ত ২৪ জনের ২২ জনই সুস্থ হয়ে বাড়িতে আছেন। আর বাকি দুইজনের মৃত্যু হয়েছে। শিবচরে আর কেউ চিকিৎসাধীন না থাকলেও ঝুঁকি পুরোপুরি কাটেনি উল্লেখ করে তিনি আরো জানান, ‘আমাদের স্বাস্থ্য বিভাগের কর্মীসহ সবাই দিনরাত কাজ করছেন।’

দেশে প্রথম করোনায় আক্রান্ত রোগী শনাক্ত হওয়ার চারদিনের মাথায় ১৪ মার্চ শিবচরে প্রথম রোগী শনাক্ত হয়। এর পরের সপ্তাহেই তা বেড়ে ৮ জনে দাঁড়ায়। এর প্রেক্ষিতে ১৯ মার্চ রাত থেকে দেশের প্রথম নিয়ন্ত্রিত এলাকা ঘোষিত হয় শিবচর। এরপর রোগী বাড়তে থাকায় ৫ এপ্রিল থেকে পুরো উপজেলাকে লকডাউন ঘোষণা করে প্রশাসন। দ্বিতীয় দফায় ১ এপ্রিল থেকে ১২ দিনে এ উপজেলার আরো ১১ জনের শরীরে করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়। সবশেষ চলতি মাসের প্রথম সপ্তাহে ঢাকাফেরত একই পরিবারের চারজনের শরীরে করোনা শনাক্ত হয়।

পর্যায়ক্রমে এ উপজেলায় মোট ২৪ জন করোনা রোগী শনাক্ত হয়। এদের মধ্যে এক বৃদ্ধসহ দুজনের মৃত্যু হয়েছে। গত ২৪ ঘণ্টায় সর্বশেষ উপজেলার আলেপুর এলাকার শহিদুল হাওলাদার (৩৮) নামে এক ঢাকাফেরত যুবককে মাদারীপুর সদর হাসপাতালের আইসোলেশন ওয়ার্ড থেকে ছাড়পত্র দেওয়া হয়। এর মাধ্যমেই এখন করোনামুক্ত হলো শিবচর উপজেলা। এ নিয়ে উপজেলার ২২ জনই এখন সুস্থ।

চলতি মাসের ৬ তারিখের শিবচরে নতুন করে কোনো করোনা রোগী শনাক্ত হয়নি। তবে মানুষের মধ্যে এর সংক্রমণের আতঙ্ক এখনো কমেনি। হাট-বাজারে সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিত না হলে নতুন করে করোনা সংক্রমণ বাড়তে পারে বলে মনে করছেন বিশ্লেষকরা।

উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কর্মকর্তা ডা. শশাঙ্ক চন্দ্র ঘোষ এ বিষয়ে বলেন, ‘আমরা চিফ হুইপের নির্দেশনা অনুযায়ী উপজেলা প্রশাসন, পুলিশ, জনপ্রতিনিধি ও স্বাস্থ্য বিভাগ এসাথে কাজ করছি বলেই এই সফলতা এসেছে।’

শিবচর এক সময় আতংকের নাম হলেও এখন সারাদেশে এক সফলতার নাম বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

জেলা প্রশাসক ওয়াহিদুল ইসলাম বলেন, ‘সারাদেশে যখন ১৮ জন করোনা রোগী ছিল তখন শিবচরেই ছিল ১০ জন। সেই পরিস্থিতি থেকে শিবচর এখন করোনা রোগীমুক্ত।’

তবে শিবচর উপজেলা পুরোপুরি ঝুঁকিমুক্ত নয় উল্লেখ করে সেখানকার বাসিন্দাদের স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার আহবান জানান তিনি।

মন্তব্য করুন