বঙ্গোপসাগরে রেকর্ড হওয়া সবচেয়ে শক্তিশালী ঘূর্ণিঝড় ‘আম্ফান’

প্রকাশিত: ৯:৪১ অপরাহ্ণ, মে ১৯, ২০২০

বাংলাদেশ ও ভারতের উপকূলের দিকে অতিপ্রবল বেগে ধেয়ে আসছে সুপার সাইক্লোনে পরিণত হওয়া ঘূর্ণিঝড় ‘আম্ফান’। বাতাসে এটির গতিবেগ ঘণ্টায় ২৭০ কিলোমিটার বা ১৬৫ মাইল। যা বঙ্গোপসাগরে এখন পর্যন্ত রেকর্ড হওয়া সবচেয়ে শক্তিশালী ঘূর্ণিঝড় বলে উল্লেখ করেছে সিএনএন।

গণমাধ্যমটি জানায়, বঙ্গোপসাগরে এখন পর্যন্ত রেকর্ড করা ঝড়গুলোর মধ্যে সবচেয়ে শক্তিশালী ঘূর্ণিঝড় আম্ফান। এটির প্রভাব আটলান্টিক মহাসাগরের হ্যারিকেন ক্যাটাগরি-৪ এবং পশ্চিম প্রশান্ত মহাসাগরের সুপার টাইফুনের সমান।

ঘূর্ণিঝড় ‘আম্পান’ বঙ্গোপসাগরে আঘাত হানা দ্বিতীয় সুপার সাইক্লোন। এর আগে ১৯৯৯ সালে সর্বশেষ সুপার সাইক্লোনে প্রায় ১৫ হাজার গ্রাম ক্ষতিগ্রস্ত এবং ১০ হাজারের বেশি মানুষ প্রাণ হারিয়েছিলেন। এ কারণে আম্পানের আঘাতে ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ অনেক বেশি হতে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে।

সর্বশেষ তথ্য অনুযায়ী, ২৪৫ কিলোমিটার বেগে সুপার সাইক্লোনটি উপকূলে আঘাত হানবে। অন্যদিকে দেশব্যাপী চলছে মহামারি করোনাভাইরাসের ব্যাপক সংক্রমণ। এমন অবস্থায় একসঙ্গে দুই দুর্যোগ মোকাবেলা করা সরকারের পক্ষে বেশ চ্যালেঞ্জ হয়ে পড়বে। বিশেষ করে আশ্রয় কেন্দ্রে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখা বেশ কঠিন হবে বলে মনে করছে গণমাধ্যমটি।

এ বিষয়ে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী ডা. মো. এনামুর রহমান বলেন, সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে ১২ হাজার ৭৮টি আশ্রয় কেন্দ্র প্রস্তুত করা হয়েছে। এগুলোতে প্রায় ৫১ লাখ ৯০ হাজার মানুষ থাকতে পারবে। তবে বর্তমান কোভিড-১৯ পরিস্থিতির প্রেক্ষিতে আপাতত ২০-২২ লাখ মানুষকে আশ্রয় কেন্দ্রে নিয়ে আসার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।

আবহাওয়া অধিদপ্তরের সর্বশেষ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, সুপার সাইক্লোন ‘আম্ফান’ বর্তমানে চট্টগ্রাম সমুদ্রবন্দর থেকে ৭৮৫ কিলোমিটার দক্ষিণপশ্চিমে, মোংলা সমুদ্রবন্দর থেকে ৬৭০ কিলোমিটার দক্ষিণ-দক্ষিণপশ্চিমে, কক্সবাজার সমুদ্রবন্দর থেকে ৭৪০ কিলোমিটার দক্ষিণপশ্চিমে এবং পায়রা সমুদ্র বন্দর থেকে ৬৬৫ কিলোমিটার দক্ষিণ-দক্ষিণপশ্চিমে অবস্থান করছে।

সুপার সাইক্লোনটি বর্তমানে পশ্চিম-মধ্য বঙ্গোপসাগর ও তৎসংলগ্ন এলাকা থেকে উত্তর-উত্তরপূর্ব দিকে অগ্রসর হচ্ছে। এটি আরো উত্তর-উত্তরপূর্ব দিকে অগ্রসর হয়ে আজ শেষরাত নাগাদ বাংলাদেশের খুলনা ও চট্টগ্রামের মধ্যবর্তী অঞ্চলে আঘাত হানতে পারে। আগামীকাল বিকেল বা সন্ধ্যা নাগাদ বাংলাদেশের উপকূল অতিক্রম করতে পারে।

এমএম/পাবলিকভয়েস

মন্তব্য করুন