এর্শাদ-আম্বিয়া ফাউন্ডেশন থেকে গ্রাম পুলিশকে সহায়তা দিলেন ব্যারিস্টার সুমন

প্রকাশিত: ৯:১৪ অপরাহ্ণ, মে ১২, ২০২০

করোনাভাইরাস মহামারি শুরু হওয়ার পর থেকেই অসহায় মানুষদের সহায়তা করতে করোনা প্রতিরক্ষার সম্মুখযুদ্ধে অংশ নিয়েছেন সুপ্রিমকোর্টের আইনজীবী ও সমাজসেবক ব্যারিস্টার সৈয়দ সায়েদুল হক সুমন।

অসহায় দিনমজুর থেকে শুরু করে মধ্যবিত্ত পরিবার এবং মসজিদের ইমাম মুআজ্জিনসহ করোনা বিপদে সংকাটাপন্ন বিভিন্ন শ্রেণীপেশার মানুষের মানুষের পাশে ধারাবাহিকভাবে দাড়িয়েছেন তিনি।

সম্প্রতি তিনি চুনারুঘাট এলাকার প্রায় ১০০ গ্রাম পুলিশকে সহায়তা দিয়েছেন আজ। তাদেরকে ডেকে নিজ বাড়িতে নিয়ে সবার হাতে সহায়তা সামগ্রি উপহার হিসেবে তুলে দেন তিনি। নিজ বাবা-মায়ের নামে প্রতিষ্ঠা করা ‘এর্শাদ-আম্বিয়া ফাউন্ডেশনের’ ব্যানারে তিনি এই সহায়তা কার্যক্রম পরিচালনা করেছেন।

এ বিষয়ে ব্যারিস্টার সুমন গ্রাম পুলিশদের উদ্দেশ্যে আবেগঘন কিছু কথাও বলেছেন। তিনি বলেন- আপনারা হলেন গ্রাম পুলিশ কিন্তু আমি জানি যে পুলিশের মধ্যে সবচেয়ে কম সুযোগ-সুবিধা পান আপনারা। তারপরও আমার এ কথা শুনে ভালো লাগছে যে আগে আপনাদের বেতন ছিল মাত্র ১৯০০ টাকা কিন্তু এখন সরকার আপনাদেরকে মাসে সাড়ে ৬ হাজার টাকা বেতন দেয়। এজন্য সরকারকে ধন্যবাদ দেওয়া উচিত যে সরকার আপনাদেরকে একটি উপযুক্ত বেতন দিচ্ছে।

তিনি বলেন- আপনারা আমাকে পছন্দ করেন আমি জানি কিন্তু আমাকে পছন্দ করা মানে এটা নয় যে আমি দুর্নীতি করলে আমার সঙ্গ দিবেন বরং আমি যদি কখনো দুর্নীতি করি তাহলে অবশ্যই আপনারা আমার বিরুদ্ধে দাঁড়াবেন। এভাবে যদি সমাজ চলে তাহলে সমাজে ভালো কিছু প্রতিষ্ঠা পাবে। তিনি বলেন- আমার মত ব্যারিস্টার যখন দুর্নীতি করবে বা বড় বড় শিক্ষিত লোক যখন দুর্নীতি করবে এটার বিরোধিতা আমাদের সকলেরই করতে হবে।

তিনি গ্রামপুলিশদের উদ্দেশ্য করে বলেন- আমি আপনাদেরকে বলবো আপনারা যে কোনোভাবেই হোক গ্রামপুলিশ হয়েছেন। কিন্তু আপনাদের ছেলেমেয়েদের কে অবশ্যই সর্বোচ্চ শিক্ষিত বানাবেন। তিনি নিজের উদাহরণ টেনে বলেন আমার বাবা যেহেতু মাত্র ক্লাস ফোর পর্যন্ত পড়ে আমাকে ব্যারিস্টার বানাতে পারছেন এবং আমি চুনারুঘাট স্কুলে পড়াশোনা করেই আজকে ব্যারিস্টার হয়েছি অনুরূপভাবে আপনাদের সন্তানদেরকেও শিক্ষিত বানাবেন।

তিনি বলেন – মানুষকে চেনা যায় বিপদের সময়। কে বন্ধু আর কে শত্রু তা চেনা যায় মানুষ যখন বিপদে পড়ে তখন। এখনকার এই বিপদে আমি আপনাদের পাশে সবসময় আছি। এবং আপনারা জানেন যে আমি চুনারুঘাট এবং হবিগঞ্জ এলাকায় আমার সাধ্যমত নিয়মিত ত্রাণ বিতরণ করে আসছি। যখন আমার সাধ্য শেষ হয়েছে তখন আমি একটি ফাউন্ডেশন করেছি যেখানে মানুষ আমাকে বিশ্বাস করে সহযোগিতা করছেন এবং আমি আপনাদের কাছে সহযোগিতা পৌঁছে দিচ্ছি।

তিনি গ্রামপুলিশের সবাইকে ধন্যবাদ দিয়ে বলেন আপনারা যেভাবে চুনারুঘাটের যেকোনো সমস্যায় নিজেদের সুবিধার দিকে না তাকিয়ে মানুষের সহযোগিতায় পাশে দাঁড়িয়েছেন তা অবশ্যই প্রশংসাযোগ্য এবং আমি দোয়া করি আপনারা যেন এখানে আইন শৃঙ্খলা পরিস্থিতিতে আরো বড় ভূমিকা রাখতে পারেন। একই সাথে আপনাদের যখন যে কোন সমস্যা হয় তা আমাকে অবশ্যই জানাবেন।

তিনি বলেন, আমি স্থানীয় ইউএনও এবং দায়িত্বশীল পর্যায়ে যারা আছে তাদের সাথে কথা বলে আপনাদের বেতনের যে টাকাগুলো বাকি আছে সেগুলো যাতে আপনাদের কাছে পৌঁছে দেয় সে ব্যবস্থা করা হয় সে চেষ্টা করব।

আরআর/পাবলিক ভয়েস

মন্তব্য করুন