করোনাযুদ্ধে কনস্টেবল জালাল উদ্দীন খোকার মৃত্যুতে আইজিপির শোক

করোনাভাইরাস পরিস্থিতি

প্রকাশিত: ১১:২১ অপরাহ্ণ, মে ৯, ২০২০

চলমান করোনাযুদ্ধের আরেক সম্মুখযোদ্ধা বাংলাদেশ পুলিশের গর্বিত সদস্য কনস্টেবল জালাল উদ্দীন খোকা করোনাভাইরাসে (কোভিড-১৯) আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু বরণ করায় বাংলাদেশ পুলিশের ইন্সপেক্টর জেনারেল (আইজিপি) ড. বেনজীর আহমেদ, বিপিএম (বার) গভীর শোক ও দুঃখ প্রকাশ করেছেন।

বাংলাদেশ পুলিশের সদস্য কনস্টবল জালাল উদ্দিন খোকা আজ শনিবার (৯ মে) সন্ধায় রাজধানীর পুলিশ লাইন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছেন। তিনি করোনাভাইরাসে আক্রান্ত ছিলেন। এ নিয়ে পুলিশের ৭ সদস্যের মৃত্যু হলো।

সংশ্লিষ্ট খবর: করোনায় আরো এক পুলিশ সদস্যের ইন্তেকাল

জালাল উদ্দীন খোকার মৃত্যুতে গণমাধ্যমে পাঠানো এক শোকবাণীতে আইজিপি ড. বেনজীর আহমেদ বলেন, ‘দেশে করোনা সংক্রমণ ধরা পড়ার প্রথম দিন থেকেই বাংলাদেশ পুলিশ করোনা প্রতিরোধের সম্মুখযোদ্ধা হিসেবে জনগণের পাশে থেকে নিরলস কাজ করছে। করোনা প্রতিরোধে জনগণকে সেবা দিতে গিয়ে আজ (শনিবার, ৯ মে) জীবন দিলেন বীর পুলিশ সদস্য জালাল উদ্দীন খোকা। তিনি দেশ ও জনগণের কল্যাণে জীবন দিয়ে জনসেবা এবং ত্যাগের এক উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত স্থাপন করে গেছেন। আমি এ গর্বিত পুলিশ সদস্যের প্রতি শ্রদ্ধা জানাই’।

আইজিপি জালাল উদ্দীন খোকার শোকসন্তপ্ত পরিবারের সদস্যদের প্রতি আন্তরিক সমবেদনা জ্ঞাপন করেন। তাদেরকে সান্ত্বনা দিয়ে তিনি বলেন, বাংলাদেশ পুলিশ সর্বোতভাবে আপনাদের পাশে থাকবে। তিনি মরহুমের বিদেহী আত্মার মাগফেরাত কামনা করেন।

বিবৃতিতে আইজিপি আরো বলেন, ‘প্রিয় সহকর্মীকে হারানোর শোককে শক্তিতে পরিণত করে আমরা দেশ ও জনগণের সেবায় অবিচল থাকবো, দৃঢ় মনোবলের সাথে এগিয়ে যাবো’।

আইজিপি বলেন, করোনাক্রান্ত পু‌লিশ সদস্যদের সু‌চি‌কিৎসা ও সেবা যত্নে সর্বোচ্চ অগ্রা‌ধিকা‌র দেওয়া হয়েছে। কেন্দ্রীয় পুলিশ হাসপাতাল ও বিভাগীয় পুলিশ হাসপাতাল ছাড়াও রাজধানী ঢাকা ও বিভাগীয় শহরে বেসরকারি হাসপাতালে পুলিশ সদস্যদের চিকিৎসার ব্যবস্থা করা হয়েছে। ইতোমধ্যে ১১৬ জন পুলিশ সদস্য সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন।

করোনাযুদ্ধে আত্মউৎসর্গকারী কনস্টবল জালাল উদ্দিন খোকা ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের ট্রাফিক পূর্ব বিভাগে কর্মরত ছিলেন। করোনাভাইরাসের উপসর্গ থাকায় তার করোনা পরীক্ষা করা হয় ২৬ এপ্রিল।

পরীক্ষায় তার করোনাভাইরাস (কভিড-১৯) পজিটিভ আসে। তিনি রাজারবাগ কেন্দ্রীয় পুলিশ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ছিলেন। শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে তাকে নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে (আইসিইউ) স্থানান্তর করা হয়। সেখানেই চিকিৎসাধীন অবস্থায় আজ শনিবার (৯ মে) সন্ধ্যা ৭.১০ মিনিটে তিনি শেষনিঃশ্বাস ত্যাগ করেন।

এ নিয়ে পুলিশের মোট ৭ সদস্যের মৃত্যু হয়েছে। বাকী ৬ জন হলেন- ডিএমপির কনস্টেবল জসিম উদ্দিন (৪০), এএসআই মো. আব্দুল খালেক (৩৬), ট্রাফিক বিভাগের কনস্টেবল মো. আশেক মাহমুদ (৪৩), পিওএম’র এসআই সুলতানুল আরেফিন (৪৪) এবং এসবির এসআই নাজির উদ্দীন (৫৫),  শ্রী রঘুনাথ রায় (৪৮)।

এরমধ্যে আশিক মাহমুদ এবং সুলতানুল আরেফিন জামালপুরের। তাদের দুজনের বাড়ি যথাক্রমে জামালপুরের মেলান্দহ ও সদর উপজেলায়।

সংশ্লিষ্ট খবর:

জামালপুরের পুলিশ সদস্য আশিক মাহমুদ করোনায় মারা গেছেন

করোনায় প্রাণ দিলেন আরো এক পুলিশ সদস্য, শোকের ছায়া জামালপুরে

জামালপুরে করোনায় নিহত পুলিশ সদস্যের দাফন সম্পন্ন করলো ইকরামুল মুসলিমীন

করোনা: ৬ষ্ঠতম আত্মোৎসর্গকারী পুলিশ সদস্য লক্ষ্মীপুরের ছেলে

/এসএস

মন্তব্য করুন