যুক্তরাষ্ট্রে আক্রান্তের সংখ্যা ৪ লাখ ও মৃতের সংখ্যা ১২ হাজার ছাড়িয়েছে

করোনাভাইরাস পরিস্থিতি

প্রকাশিত: ৪:১৫ অপরাহ্ণ, এপ্রিল ৮, ২০২০

চীনের উহান শহর থেকে ছড়ানোর পর করোনাভাইরাস বিশ্বের অনেক দেশেই ধ্বংশযজ্ঞ চালিয়েছে। যুক্তরাষ্ট্রে করোনার হানা সর্বোচ্চ হয়ে ধরা দিচ্ছে এখন। বিশ্বের সবচেয়ে বড় পরাশক্তি দাবি করা দেশটি এখন করোনার প্রলয়ংকারী তান্ডবে পর্যদুস্ত।

ইতোমধ্যে যুক্তরাষ্ট্রে করোনাভাইরাস আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন ১২ হাজারের অধিক মানুষ। দেশটিতে এখন পর্যন্ত মোট আক্রান্তের সংখ্যা ৪ লাখ ৪১২ এবং মারা গেছে ১২ হাজার ৮৫৪ জন। বিশ্বের কোন দেশেই আক্রান্ত ও মৃত্যুর হার এত বেশি নেই। দেশটিতে গত একদিনে নতুন করে ১৮৫৮ জনের মৃত্যু হয়েছে।

মৃত্যুসংখ্যা বিবেচনায় ইতালিতে এখনও সর্বোচ্চসংখ্য মৃত্যু রয়েছে প্রায় ১৭ হাজার ১২৭ জন। তবে ইতালিতে মৃত্যুর হার কমছে। গত ২৪ ঘন্টায় ইতালিতে মারা গেছে ৬০৪ জন। কিন্তু যুক্তরাষ্ট্রে মৃত্যুর হার বিবেচনায় বিশেষজ্ঞরা বলছেন ইতালির চেয়েও অনেক বেশি সংখ্যক মানুষ যুক্তরাষ্ট্রে মারা যেতে পারে।

ইতালির ধারাবাহিক আক্রান্ত ও মৃত্যু সংখ্যা জানতে এখানে ক্লিক করুন

অপরদিকে, যুক্তরাষ্ট্রে করোনা থেকে ইতোমধ্যেই সুস্থ হয়ে উঠেছে ২১ হাজার ৬৭৪ জন। তবে করোনায় আক্রান্ত ৯ হাজার ১৬৯ জনের অবস্থা আশঙ্কাজনক। দেশটিতে গত একদিনে নতুন করে ১৮৫৮ জনের মৃত্যু হয়েছে। করোনায় এখন পর্যন্ত একদিনে এটাই সর্বোচ্চ মৃত্যুর রেকর্ড।

এখন পর্যন্ত বিশ্বের ২০৯টি দেশ ও অঞ্চলে করোনার প্রকোপ ছড়িয়ে পড়েছে। বিশ্বের এখন পর্যন্ত করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা ১৪ লাখ ৩১ হাজার ৬৮৯। বিশ্বের ৮২ হাজার ৭৪ জনের প্রাণ কেড়ে নিয়েছে করোনা। অপরদিকে, করোনা থেকে সুস্থ হয়ে উঠেছে ৩ লাখ ২ হাজার ১৪২ জন।

এদিকে, যুক্তরাষ্ট্রের স্বাস্থ্য কর্মকর্তারা সতর্ক করে বলেছেন, করোনায় আক্রান্ত ও মৃতের সংখ্যা আরও বাড়বে। যুক্তরাষ্ট্রে এখন পর্যন্ত করোনায় সবচেয়ে বেশি আক্রান্ত ও মৃতের সংখ্যা নিউইয়র্কে।

মঙ্গলবার নিউইয়র্কে নতুন করে ৭৩১ জনের মৃত্যু হয়েছে। ফলে ওই অঙ্গরাজ্যে এখন পর্যন্ত মৃত্যুর সংখ্যা ৫ হাজার ৪৮৯। সেখানে এখন পর্যন্ত করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা ১ লাখ ৩৮ হাজার ৮৩৬।

নিউইয়র্কে গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে আক্রান্তের সংখ্যা ৮ হাজার ১৪৭। যুক্তরাষ্ট্রের সবগুলো অঙ্গরাজ্যেই করোনার প্রকোপ ছড়িয়ে পড়েছে।

সূত্র : নিউইয়র্ক টাইমস

করোনা বিষয়ে পাবলিক ভয়েসের সকল আপডেট জানতে এখানে ক্লিক করুন

এইচআরআর/পাবলিক ভয়েস

মন্তব্য করুন