৩০ জুন পর্যন্ত কিস্তি পরিশোধ করতে না পারলে কেউ ঋণ খেলাপি হবে না

প্রকাশিত: ৮:৩৯ অপরাহ্ণ, মার্চ ১৯, ২০২০

করোনাভাইরাসের কারণে সৃষ্ট বিপর্যয়ে ব্যবসায়িক কর্মকান্ড স্বাভাবিক রাখতে ৩০ জুন পর্যন্ত সবধরনের ক্ষুদ্র ঋণ শ্রেণীকরণকৃত করা বন্ধ তথা ঋণ খেলাপি করতে তফসিলি ব্যাংকগুলোকে নির্দেশ দিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক।

বৃহস্পতিবার (১৯ মার্চ) কেন্দ্রীয় ব্যাংকের ব্যাংকিং পরিধি ও নীতি বিভাগ থেকে এ বিষয়ে একটি প্রজ্ঞাপন জারি করে দেশে কার্যরত সব তফসিলি ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক/প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে পাঠানো হয়েছে।

এতে বলা হয়েছে, সম্প্রতি করোনা ভাইরাসের কারণে বিশ্ববাণিজ্যের পাশাপাশি বাংলাদেশের ব্যবসা বাণিজ্যের নেতিবাচক প্রভাব পড়ছে। আমদানি ও রপ্তানিসহ দেশের সামগ্রিক অর্থনীতিতে করোনা ভাইরাসের কারণে চলমান বিরূপ প্রভাবের ফলে অনেক

ঋণগ্রহীতাই সময়মতো ঋণের অর্থ পরিশোধে সক্ষম হবেন না মর্মে ধারণা করা যাচ্ছে। ফলশ্রুতিতে চলমান ব্যবসা বাণিজ্য ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার এবং দেশে সামগ্রিকভাবে কর্মসংস্থান বাধাগ্রস্ত হওয়ার আশংকা রয়েছে।

বর্ণিত বিষয়াবলী বিবেচনায় এ মর্মে সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়েছে যে, চলতি বছরের ১ জানুয়ারি ৩০ জুন পর্যন্ত সময়ে এই ঋণ তদাপেক্ষা বিরূপমানে শ্রেণীকরণ করা যাবে না। তবে, কোনো ঋণের শ্রেণী মানের উন্নতি হলে তা যথাযথ নিয়মে শ্রেণীকরণ করা যাবে। ব্যাংক কোম্পানি আইন, ১৯৯১ এর ৪৯ ধারায় প্রদত্ত ক্ষমতাবলে এ নির্দেশনা জারি করা হলো।

অর্থাৎ এই সময়ের মধ্যে কোনো গ্রাহক ঋণ পরিশোধ করতে না পারলে তাকে ঋণ খেলাপি ঘোষণা করা যাবে না।

এমএম/

মন্তব্য করুন