৬ বছর পর খালাস পেলেন ইশার সাবেক নেতৃবৃন্দ

প্রকাশিত: ৪:০৮ অপরাহ্ণ, মার্চ ২, ২০২০

২০১৩ সালের এক মামলা থেকে বেকসুর খালাস পেয়েছে ইসলামী শাসনতন্ত্র ছাত্র আন্দোলনের ৬ জন নেতা। আজ ০২ মার্চ’২০ সোমবার ইসলামী শাসনতন্ত্র ছাত্র আন্দোলন-এর সাবেক কেন্দ্রীয় সভাপতি (২০১৩) সহ ৬ সাবেক ছাত্র নেতাকে বেকসুর খালাস দিয়েছেন সাইবার ট্রাইব্যুনাল (বাংলাদেশ) ঢাকার বিচারপতি আশ-শামস জগলুল হোসেন।

২০১৩ সালের ২৬ সেপ্টেম্বর’ বিনা মামলায় র‌্যাব-৩ গ্রেফতার করে ইশা ছাত্র আন্দোলন-এর তৎকালীন কেন্দ্রীয় সভাপতি মুহাম্মাদ আরিফুল ইসলাম, কেন্দ্রীয় প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক আবদুর রহমান গিলমান, কেন্দ্রীয় মাদরাসা বিষয়ক সম্পাদক এসএম এমদাদুল্লাহ ফাহাদ, কেন্দ্রীয় সাহিত্য ও সংস্কৃতি বিষয়ক সম্পাদক রহমতুল্লাহ বিন হাবিব, কেন্দ্রীয় সদস্য শেখ মুহাম্মাদ মারুফ এবং ঢাকা মহানগর পূর্বের মাদরাসা বিষয়ক সম্পাদক সিরাজুল ইসলামকে।

গ্রেফতারের পর তাঁদের ওপর অমানবিক নির্যাতন চালানোর দাবি করেছে ইশা ছাত্র আন্দোলন। পরবর্তিতে র‌্যাব-৩ বাদী হয়ে তাদের নামে সাইবার ক্রাইমে মামলা করে ডিএমপি পল্টন থানায় হস্তান্তর করে। তখন ইশা ছাত্র আন্দোলন মিথ্যা মামলার দাবি তুলে সারা দেশব্যাপী বিক্ষোভ মিছিল এবং রোযা রাখার কর্মসূচি পালন করে। তারপর দীর্ঘ ২৬ দিন গাজীপুর কাশিমপুর কারাগার ও ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে অবস্থানের পর জামিনে মুক্ত হন সাবেক এই ছয় ছাত্রনেতা।

দীর্ঘ ৬ বছর ৪ মাস ৫ দিন ধরে সাক্ষী পেশ, জেরা, হাজিরা ও শুনানি শেষে আজ সোমবার (২ মার্চ) তাদেরকে বেকসুর খালাসের ঘোষণা করেন বিচারপতি আশ শামস জগলুল হোসেন।

তাদের মুক্তির পর আন্দোলনের বিভিন্নস্থরের নেতাকর্মীরা তাদেরকে অভিনন্দন জানিয়েছেন।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ ঢাকা মহানগর দক্ষিনের সভাপতি মাওলানা ইমতিয়াজ আলম, ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ-এর কেন্দ্রীয় তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক জিএম রুহুল আমিন, কেন্দ্রীয় সদস্য এডভোকেট একেএম এরফান খান, ইসলামী আইনজীবী পরিষদ-এর কেন্দ্রীয় সহ-সভাপতি এডভোকেট লুৎফুর রহমান, সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট শওকত হোসেন হাওলাদার, ইশা ছাত্র আন্দোলন-এর কেন্দ্রীয় সভাপতি এম হাছিবুল ইসলাম, সেক্রেটারি জেনারেল নূরুল করীম আকরাম, কেন্দ্রীয় তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক ইউসুফ আহমাদ মানসুর, কেন্দ্রীয় কওমি মাদরাসা সম্পাদক নূরুল বশর আজীজী, ঢাকা মহানগর পূর্বের সাধারণ সম্পাদক সাব্বির আহমদ সহ নগর নেতৃবৃন্দ।

মন্তব্য করুন