ট্রাম্প আসছে তাই দিল্লির দুর্গন্ধ দূর করতে যমুনায় ৫০০ কিউসেক পানি

প্রকাশিত: ৭:২১ পূর্বাহ্ণ, ফেব্রুয়ারি ২০, ২০২০

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প আসছেন ভারতে। ট্রাম্পের সফর ঘিরে উত্তেজনা আর ট্রাম্পের মন জোগাতে কোনো কিছুরই বাদ রাখছে না নরেন্দ্র মোদির ভারত সরকার।

বস্তি এলাকা আড়াল করতে রাস্তায় নতুন দেয়াল হয়েছে আহমেদাবাদে। এরপর বন্ধ করা হয়েছে সমস্ত পানের দোকান। এবার তার মন ভেজাতে যমুনায় ৫০০ কিউসেক পানি ছাড়ল উত্তরপ্রদেশের যোগী আদিত্যনাথ সরকার। গতকাল বুধবার বুলন্দশহর থেকে যমুনায় এ পানি ছাড়া হয়।

উদ্দেশ্য রাজধানী নয়াদিল্লি ও আগ্রার দুর্গন্ধ ঢাকা। কারণ, শীতের শেষে এখন যমুনা নদীতে পানি কমে গেছে। এতে নদী থেকে দুর্গন্ধ ছড়াচ্ছে। ফলে আগ্রা শহরের পরিবেশের অবনতি হয়েছে।

এরই মধ্যে আগামী সপ্তাহে আগ্রায় তাজমহল দেখতে আসছেন ট্রাম্প। সেই সময় যাতে শহরের পরিবেশের অবস্থা তত খারাপ না থাকে, সেজন্য বুলন্দশহরে গনগনাহর জলাধার থেকে যমুনায় ৫০০ কিউসেক পানি ছাড়া হল। খবর হিন্দুস্তান টাইমসের।

ট্রাম্প থেকে বহু আপত্তিকর বিষয় আড়াল করতেই নানা ব্যবস্থা নিয়েছে ভারত। আহমেদাবাদ থেকে মোতেরা যাওয়ার পথে রাস্তার ধারে পাঁচিল তুলে বস্তি আড়াল করা হয়েছে। অন্যদিকে, মোতেরায়া বস্তিবাসী ৪৫ পরিবারকে দেয়া হয়েছে উচ্ছেদের নোটিশ।

এবার যমুনা নদীর পরিবেশ ফেরানোর চেষ্টা। এমনিতেই বাতাসের দূষণে বেহাল রাজধানী ও আগ্রা। তার ওপর ভয়ংকর দূষণে বিপর্যস্ত যমুনা।

২৪ ফেব্রুয়ারি আহমেদাবাদে আসছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। সেখান থেকে তিনি যাবেন দিল্লি ও আগ্রা। উত্তরপ্রদেশ সেচ দফতরের ইঞ্জিনিয়ার ধর্মেন্দ্র সিং ফোগত বলেন, আগ্রায় আসছেন ট্রাম্প। এ কথা মাথায় রেখে যমুনায় ৫০০ কিউসেক পানি ছাড়া হয়েছে। এতে যমুনার দূষিত পরিস্থিতির কিছুটা উন্নতি হবে। ২০ তারিখের মধ্যে ওই পানি মথুরায় যমুনার সঙ্গে মিশবে। ২১ তারিখ বিকালে আগ্রায় পৌঁছে যাবে।

২৪ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত যাতে যমুনায় একটা নির্দিষ্ট পরিমাণ পানি থাকে, সেজন্য চেষ্টা করা হচ্ছে।

উত্তরপ্রদেশ দূষণ নিয়ন্ত্রণ পরিষদের সহকারী প্রকৌশলী অরবিন্দ কুমার বলেন, ‘ওই ৫০০ কিউসেক পানির একটা প্রভাব নিশ্চয় পড়বে। এর ফলে যমুনার পানি পানের উপযুক্ত হবে না ঠিকই তবে দুর্গন্ধ কিছুটা দূর করবে।’

তিনি আরও বলেন, দূষণ নিয়ন্ত্রণে ৫০০ কিউসেক জল ছাড়া হলে একটা প্রভাব তো পড়বেই। এর ফলে মথুরা ও আগ্রায় নদীর জলে অক্সিজেনের পরিমাণও বাড়বে।’

যমুনার পানি পরিষ্কারের জন্য দীর্ঘকাল চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে শ্রী মথুর চতুর্বেদ পরিষদ। সেই সংগঠনের তরফে গোপেশ্বর নাথ চতুর্বেদি বলেন, বাড়তি জল ছাড়লে নদীর ওপরে প্রভাব পড়বে সামান্যই।

/এসএস

মন্তব্য করুন