রাজশাহী চ্যাম্পিয়ন

প্রকাশিত: ১১:০০ অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ১৭, ২০২০

প্রথমবারের মতো বিপিএলে চ্যাম্পিয়ন মুকুট অর্জন করলো রাজশাহী। ফাইনালে খুলনার বিরুদ্ধে ২১ রানে জয়লাভ করেছে রাজশাহী।

রাজশাহীর দেয়া ১৭১ রানের জয়ের টার্গেটে ব্যাট করতে নেমে নির্ধারিত ২০ ওভারে ৮ উইকেটে ১৪৯ রান তুলতেই সামর্থ শেষটুকু হারায় খুলনা।

ব্যাটিংয়ে নেমে শুরুতেই দুই ওপেনারকে হারিয়ে বিপর্যয়ে পড়ে দলটি। দলীয় শূন্য রানে ফিরে যান শান্ত। ১১ রানে বিদায় নেন অপর ওপেনার মিরাজ। এরপর শামসুর ও রুশোর ব্যাটে কিছুটা ঘুরে দাঁড়ানোর স্বপ্ন দেখে। দুজনে মিলে ৭৪ রানের জুটি গড়েন।

ইনিংসের ১৪তম ওভারে শামসুর ও নাজিবউল্লাহকে ফিরিয়ে বড় ধাক্কা দেন রাব্বী। এই ধাক্কা আর সামলে উঠতে পারেনি খুলনা। মুশফিককে নিয়ে ভরসা থাকলেও শেষ পর্যন্ত ১৫ বলে ২১ করে মুশফিক ফিরে গেলে সব আশা নিরাশা হয়ে যায়।

এর আগে টস হেরে ব্যাট করতে নেমে ইরফান শুক্কুরের হাফ সেঞ্চুরি এবং নওয়াজ ও রাসেলের ঝড়ো ইনিংসের উপর ভর করে নির্ধারিত ২০ ওভারে ৪ উইকেটে ১৭০ রান সংগ্রহ করে রাজশাহী রয়্যালস।

১৫ ওভার শেষে রাজশাহীর স্কোর ছিল ৪ উইকেটে ১০০ রান। শেষ ৫ ওভারে কোনো উইকেট না হারিয়ে ৭০ রান করে তারা। ওয়ানডাউনে নেমে ৩৫ বলে ৫২ করে আউট হন ইরফান শুক্কুর। ১৬ বলে ২৭ করে অপরাজিত থাকেন রাসেল। ২০ বলে ৪১ করে অপরাজিত থাকেন মোহাম্মদ নওয়াজ। খুলনার বোলারদের মধ্যে মোহাম্মদ আমির ২টি, ফ্রাইলিঙ্ক ১টি ও শহীদুল ১টি করে উইকেট নেন।

মিরপুর শের-ই-বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে রাজশাহী ব্যাটিংয়ে নেমে দলীয় ১৪ রানে প্রথম উইকেট হারায়। আমিরের বলে মিরাজের দুর্দান্ত ক্যাচে ফিরে যান ওপেনার আফিফ হোসেন। ৮ বলে ১০ রান করেন তিনি। এরপর ৪৯ রানের জুটি গড়েন ইরফান শুক্কুর ও লিটন দাস।

বিপিএলে দারুণ ফর্মে থাকলেও ফাইনাল ম্যাচে ভালো কিছু করতে পারেননি লিটন। ২৮ বলে ২৫ করে দলীয় ৬৩ রানে বিদায় নেন তিনি। এরপর শোয়েব মালিক নেমে ১৩ বলে ৯ রান করে প্যাভিলিয়নের পথ ধরেন।

অন্য প্রান্তের ব্যাটসম্যানরা সুবিধা না করতে পারলেও দারুণ খেলছিলেন ইরফান শুক্কুর। ৩০ বলে ব্যক্তিগত অর্ধশত পূরণ করার পর ইনিংসকে বড় করতে পারেননি তিনি। ব্যক্তিগত ৫২ রানে শফিউলের হাতে ক্যাচ হয়ে ফেরেন তিনি। পরে রাসেল ও নওয়াজ ৭১ রানের জুটি গড়ে অপরাজিত থাকেন।

/এসএস

মন্তব্য করুন