প্রকাশ্যে আদালত ভবন গুঁড়িয়ে দিল প্রভাবশালীরা

প্রকাশিত: ৭:৫২ অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ১৭, ২০২০

বরিশালের মেহেন্দিগঞ্জ পৌর এলাকায় অবস্থিত ঐতিহাসিক একটি আদালত ভবন প্রকাশ্যে গুঁড়িয়ে দিয়েছে স্থানীয় প্রভাবশালীরা। ব্রিটিশ আমলে গড়ে ওঠা এ আদালত ভবনটি এক সপ্তাহ ধরে জনসম্মুখে ভাঙা হয়।

কিন্তু এটি সম্পর্কে উপজেলা প্রশাসন, থানা পুলিশসহ সংশ্লিষ্টরা রহস্যজনক কারণে চুপ রয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। গত ডিসেম্বরের শেষ সপ্তাহে প্রকাশ্যে ভবনটি ভাঙা হলেও বরিশাল গণপূর্ত বিভাগ গত ৬ জানুয়ারি অজ্ঞাতদের আসামি করে মামলা করায় অসন্তোষ দেখা দিয়েছে।

বরিশাল জেলা ও দায়রা জজ আদালতের পিপি এবং স্পেশাল পিপি জানিয়েছেন, প্রকাশ্যে আদালত ভবন ভাঙায় জেলা জজও ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন। স্থানীয় একজন শীর্ষ নেতার নির্দেশে মেহেন্দিগঞ্জ পৌরসভার ৯ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর মনির জমাদ্দার এটি ভেঙেছে। জানা গেছে, আদালতের ওই স্থানটি দখল করার জন্যই প্রায় ২০ লাখ টাকা মূল্যের ভবনটি অবৈধভাবে ভাঙা হয়।

স্থানীয়রা জানান, ভবনের পাশেই উপজেলা পরিষদ। কিন্তু উপজেলা প্রশাসন কিংবা পুলিশ প্রশাসন থেকে কোনো বাধা দেওয়া হয়নি।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, ভবনটি ভাঙার ক্ষেত্রে কোনো দরপত্র আহ্বান করা হয়নি। সরকারি অনুমতিও নেওয়া হয়নি। কিন্তু পৌনে ২শ বছর আগের ঐতিহাসিক এ আদালত ভবন ভাঙায় প্রশাসন ছিল নিশ্চুপ। ভবনের ভেঙে ফেলা অংশ কাউন্সিলর মনিরের ঠিকাদারি কাজের নির্মাণাধীন সড়কে ফেলা হয়েছে। ওই জমি দখল করাই তাদের টার্গেট।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে বরিশাল গণপূর্ত বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী জেরাল্ড অলিভার গুডা বলেন, মেহেন্দিঞ্জে আদালত ভবন ভাঙার ঘটনায় প্রথমে জিডি করা হয়েছে। পরে ৬ জানুয়ারি তার অধীনস্থ উপবিভাগীয় প্রকৌশলী আশরাফুল ইসলাম বাদী হয়ে মেহেন্দিগঞ্জ থানায় মামলা দায়ের করেছেন। মামলায় অজ্ঞাতদের আসামি করা হয়েছে। সার্ভে ভেল্যু অনুযায়ী ভবনটির মূল্য ২০ লাখ টাকা উল্লেখ করা হয়েছে।

প্রকাশ্যে ভবন ভাঙার ঘটনায় কেন অজ্ঞাত আসামি করা হলো এ প্রসঙ্গে তিনি জানান, মেহেন্দিগঞ্জ বিচ্ছিন্ন এলাকা হওয়ায় এ বিষয়ে তারা অবগত নন। তবে আদালত ভবন ভাঙা বিধি সম্মত হয়নি।

বরিশাল জেলা ও দায়রা জজ আদালতের স্পেশাল পিপি অ্যাডভোকেট মনসুর আহমেদ বলেন, গণপূর্তের মামলায় অজ্ঞাত নামে কেন হবে। প্রকাশ্যে দিনের বেলায় আদালত ভবনটি ভাঙা হয়েছে। কার নির্দেশে ভেঙেছে, কারা ভেঙেছে তা ইউএনও, উপজেলা পরিষদ, স্থানীয় লোকজন দেখেছে। জেলা জজ আদালত এ ঘটনায় ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন। মেহেন্দিগঞ্জ আদালতের বিচারক জিডি করেছেন।

মেহেন্দিগঞ্জ থানার ওসি আবদুর রহমান জানান, এখনো কাউকে আটক করা যায়নি। তদন্ত করে দেখা হচ্ছে। এ ব্যাপারে মেহেন্দিগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা পিযুষ চন্দ্র দে জানান, আদালত ভবন ভাঙার বিষয়ে তিনি অবগত নন। তবে তাকে ওসি জানিয়েছেন যে আদালত ভবন ভাঙার ঘটনায় গণপূর্ত মামলা দায়ের করেছে। ভবনটি ভাঙার ক্ষেত্রে নিয়ম মানা হয়েছে কি না তা ফাইল না দেখে বলা যাবে না। তাছাড়া যেহেতু এ ঘটনায় মামলা হয়েছে সেহেতু উপজেলা প্রশাসনের কিছুই করার নেই।

আই.এ/

মন্তব্য করুন