নাগরিকত্ব আইন; অশান্তি রুখতে ভারতের ৬ জেলায় বন্ধ ইন্টারনেট

প্রকাশিত: ৮:০০ অপরাহ্ণ, ডিসেম্বর ১৫, ২০১৯

নাগরিকত্ব আইনের প্রতিবাদে শনিবারের পর রবিবারও উত্তপ্ত রাজ্যের বিভিন্ন এলাকা। কোথাও রেল অবরোধ, কোথাও রাস্তা আটকে বিক্ষোভ দেখাচ্ছে বিক্ষোভকারীরা। বাধ্য হয়েই কড় পদক্ষেপ নিল রাজ্য সরকার।

রবিবার রাজ্যের ৬ জেলায় ইন্টারনেট পরিষেবা বন্ধ করল রাজ্য সরকার। খবর নবান্ন সূত্রে। রাজ্য সরকারের বারবার আহ্বান সত্বেও কয়েকটি ধর্মীয় সংগঠন বিভিন্ন জায়গায় জমায়েত ও হাঙ্গামা বাধানোর চেষ্টা করছে। তাই আপাতত রাজ্যের শান্তি ও সাধারণ মানুষের স্বার্থে বাতিল করা হল ইন্টারনেট পরিষেবা।

রাজ্যের যে ৬ জেলায় ইন্টারনেট পরিষেবা বাতিল করা হল সেগুলি হল উত্তর দিনাজপুর, মালদা, মুর্শিদাবাদ, হাওড়া, উত্তর ২৪ পরগনার বারাসত ও বসিরহাট মহকুমা। এছাড়াও দক্ষিণ ২৪ পরগনার বারুইপুর ও ক্যানিং মহকুমাতেই বন্ধ হল ইন্টারনেট পরিষেবা।

উল্লেখ্য, শনিবার নাগরিকত্ব আইনের প্রতিবাদে বিক্ষোভে তোলপাড় হয়ে ওঠে মুর্শিবাদ, মালদা, হাওড়া। মুর্শিদাবাদ জেলার কৃষ্ণপুর স্টেশনে জ্বালিয়ে দেওয়া হয় বেশ কয়েকটি ট্রেন। ভাঙচুর করা হয় স্টেশন।

এছাড়াও হাওড়ার সলপ, কোনা এক্সপ্রেসওয়ে, উলুবেড়িয়া, উনসানি সহ বেশ কয়েক জায়গায় তোলপাড় করে উন্মত্ত জনতা। আগুন লাগানো হয় ১৫টি গাড়িতে। ভাঙচুর করা হয় স্টেশন ও ট্রেন। রবিবার দক্ষিণ ২৪ পরগনার মাল্লিকপুর স্টেশন অবরোধ করে বিক্ষুব্ধ জনতা।

অন্যদিকে, নাগরিকত্ব আইন নিয়ে বিক্ষোভ অব্যহত দক্ষিণ ২৪ পরগনার বিভিন্ন জায়গায়। রবিবার মহেশতলা থানার ডাকঘর থেকে ডাকঘরা জালখুরা পর্যন্ত রাস্তা অবরোধ করে বিক্ষুব্ধ জনতা । নাগরিকত্ব আইনের বিরুদ্ধে আগুন জ্বালিয়ে অবরোধ চলে বজবজ ট্যাঙ্করোড।

এনআরসি ও সিএএ বিলের প্রতিবাদে পথে নামল তৃণমূল কংগ্রেস। মন্ত্রি মলয় ঘটকের নেতৃত্বে আসানসোল ট্রাফিক কলোনি থেকে গীর্জা মোর পর্যন্ত হয় এই মিছিল। মিছিল জিটি রোডের উপর দিয়ে এসে গীর্জা মোরে শেষ হয়। কয়েকদিন আগে সাধারন মানুষ এর প্রতিবাদে মিছিল বের করেছিল। এদিন তৃণমূল কংগ্রেস জিটি রোডে বের করে এই মিছিল।

আই.এ/

মন্তব্য করুন