ফ্রান্সে সবচেয়ে বড় বিক্ষোভের মুখে পড়েছেন ম্যাক্রোঁ; বিপাকে পর্যটকরা

প্রকাশিত: ১১:১৮ পূর্বাহ্ণ, ডিসেম্বর ৬, ২০১৯

ইমানুয়েল ম্যাক্রোঁ তার প্রেসিডেন্ট মেয়াদকালের সবচেয়ে বড় বিক্ষোভের মুখে পড়েছেন। ম্যাক্রোঁর সর্বজনীন পেনশন সংস্কার পরিকল্পনা ও বাধ্য করে চাকরির সময়সীমা বাড়ানোর বিরুদ্ধে ধর্মঘটে নেমেছে দেশটির জনগণ। ফ্রান্সজুড়ে চলা এই বিক্ষোভে চরম বিপাকে পড়েছেন পর্যটকরা।

বিক্ষোভের কারণে দেশটির সব ধরণের যোগাযোগ ব্যবস্থা প্রায় বন্ধ হয়ে যাওয়ায় নিজ দেশে ফিরে যেতে পারছেন না তারা। ভয়ে, আতঙ্কে সবাই নিজ নিজ হোটেলেই অবস্থান করছেন। আন্তর্জাতিক বিভিন্ন গণমাধ্যম এমন খবর প্রকাশ করেছে।

ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসি বলছে, ধর্মঘটের ফলে দেশটির রেল যোগাযোগ ব্যবস্থাই নয়। বাতিল করা হয়েছে কয়েকশ ফ্লাইটও। দেশটির সরকারি প্লেন ব্যবস্থা এয়ার ফ্রান্স জানিয়েছে, ধর্মঘটের ফলে অভ্যন্তরীণ ও আন্তর্জাতিক রুটের ৩০ শতাংশ ফ্লাইট বাতিল করা হয়েছে। দেশটির সবচেয়ে কম খরচের প্লেন ব্যবস্থা ইজিজেট জানায়, ধর্মঘটের ফলে তাদের ২২৩ টি অভ্যন্তরীণ ফ্লাইট বাতিল হয়েছে।

বার্তা সংস্থা রয়টার্স জানিয়েছে, ফ্রান্সের রেলসেবা প্রায় বন্ধ হয়ে গেছে। সংস্থাটির ৮২ শতাংশ চালক ধর্মঘটে যোগ দিয়েছেন। এর ফলে ৯০ শতাংশ আঞ্চলিক ট্রেন চলাচল বন্ধ রয়েছে। রাজধানী প্যারিসে ১৬টির মধ্যে ১১টি মেট্রোলাইন বন্ধ করে দেয়া হয়েছে।

আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমগুলো বলছে, সময় বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে আন্দোলন চরম আকার ধারণ করছে। বৃহস্পতিবার (৫ ডিসেম্বর) পুলিশ, আইনজীবী, পরিবহন কর্মী, ডাকবিভাগের কর্মী, জ্বালানিকর্মী, নার্স, হাসপাতাল কর্মী ও বিমানবন্দরের কর্মীরা কাজ না করে ধর্মঘট করে। পৃথিবীর সকল কবি সাহিত্যিক ও শিল্পীদের তীর্থ স্থান হিসেবে খ্যাত ফ্রান্স শিল্প, সাহিত্য, সংস্কৃতি ও শৈল্পিক স্থাপনায় পর্যটকদের কাছে বিখ্যাত। প্রতি বছর ৮ কোটি ৩০ লাখেরও বেশি পর্যটক ফ্রান্সের আকর্ষণীয় স্থানগুলো ভ্রমণ করতে আসেন।

আই.এ/

মন্তব্য করুন