কুমিল্লায় ৭০ বস্তা পচা পেঁয়াজ উদ্ধার

প্রকাশিত: ১০:২৯ অপরাহ্ণ, নভেম্বর ১৮, ২০১৯

পেঁয়াজের দাম আকাশ ছোঁয়া। কিছুটা দাম কমলেও ঝাঁজের কারণে পেঁয়াজের কাছে যেতে পারছেন না ক্রেতারা। কিন্তু এরমধ্যেও বিভিন্ন জায়গা থেকে একের পর এক পচা পেঁয়াজ বের হচ্ছে। চট্টগ্রামের আরৎ থেকে পনেরো টন পঁচা পেঁয়াজ বের হওয়ার পর এবার কুমিল্লার গৌরীপুরের একটি খালে ৭০ বস্তা পচা পেঁয়াজ পাওয়া গেছে।

জানা গেছে, কুমিল্লার গৌরীপুর সুবল-আফতাব উচ্চ বিদ্যালয় সংলগ্ম খালে প্রায় ৭০ বস্তা পচা পেঁয়াজ পাওয়া গেছে। প্রত্যেকটি বস্তায় ৪০ কেজি করে পেঁয়াজ রয়েছে। সব মিলিয়ে প্রায় ৭০ মন পেঁয়াজ।

সংবাদ পেয়ে রাতে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন দাউদকান্দি উপজেলা নির্বাহী অফিসার কামরুল ইসলাম খান ও গৌরীপুর পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ আ স ম আব্দুন নূর।

এদিকে, কার্গো বিমানে করে আসছে পেঁয়াজ। আর আমদানির এই ঘোষণায় থমকে দাঁড়িয়েছে দেশের পেঁয়াজের বাজার। আড়ত, পাইকারি কিংবা খুচরা বাজার কোথাও ক্রেতা নেই। মজুত করা পেঁয়াজ যে যার মতো করে বিক্রি করে দেয়ার চেষ্টা করছেন।

ঘোষণার পর সব বাজারেই পেঁয়াজের দামও কমতে শুরু করেছে। পাইকারি বাজারে আগের দিন যেখানে ২২০ থেকে ২৪০ টাকায় পেঁয়াজ বিক্রি হয়েছিল সেখানে গতকাল বিক্রি হয় অন্তত ২০ টাকা কমে। খুচরা বাজারে আগের দিন ২৬০ থেকে ২৭৫ টাকা কেজিদরে বিক্রি হওয়া দেশী পেঁয়াজ গতকাল বিক্রি হয় ২৩০ থেকে ২৪০ টাকায়। দেশী হাইব্রিড পেঁয়াজ ২০০ এবং মিসরের পেঁয়াজ প্রতি কেজি ১৮০ টাকায় বিক্রি হতে দেখা গেছে।

জানা গেছে, দেশের প্রধান বাজার চট্টগ্রামের খাতুনগঞ্জের পেঁয়াজ নিয়ে সারাদিন অপেক্ষা করেও ক্রেতার দেখা পাননি ব্যবসায়ীরা। একেক দোকানে সারা দিনে যে পরিমাণ পেঁয়াজ বিক্রি হয়েছে অন্য সময় এক ঘণ্টায়ই তারচেয়ে বেশি বিক্রি হয়। আগের দিন যেখানে ২০০ থেকে ২১০ টাকায় পেঁয়াজ বিক্রি হয়েছিল, সেখানে গতকাল দেড় শ’ টাকায়ও ক্রেতা খুঁজে পাওয়া যায়নি।

এ দিকে দাম কমে যাওয়ার আশঙ্কায় অনেক খুচরা বিক্রেতা গতকাল লোকসান দিয়ে পেঁয়াজ বিক্রি করে দিয়েছেন বলে জানা গেছে। কোথাও কোথাও নষ্ট-পচা পেঁয়াজ বিক্রি করতেও দেখা যায়।

খাতুনগঞ্জে গতকাল পচা পেঁয়াজ বিক্রি হয়েছে বস্তা প্রতি ২০০ থেকে ২৪০ টাকাদরে। যেখানে স্বাভাবিক সময়ে এক বস্তা পেঁয়াজ বিক্রি হয় ৯০০ থেকে ১০০০ টাকায়। খুচরা বিক্রেতারা পাইকারি বাজারে না যাওয়ায় খুচরাপর্যায়ে গতকাল কমবেশি পেঁয়াজ বিক্রি হলেও পাইকারি বাজারগুলো ছিল নিস্তব্ধ।

ইসমাঈল আযহার/পাবলিক ভয়েস

মন্তব্য করুন