ছাত্রলীগের মারধরের ঘটনায় শিক্ষার্থীদের দাবি মেনে নেওয়ার আশ্বাস

প্রকাশিত: ৫:১৭ অপরাহ্ণ, নভেম্বর ১৬, ২০১৯

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি: রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে (রাবি) ফিন্যান্স বিভাগের এক শিক্ষার্থীকে মারধরের অভিযোগ উঠেছে বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের দুই কর্মীর বিরুদ্ধে। এ ঘটনার প্রতিবাদে শনিবার বেলা ১১ টা থেকে তিন দফা দাবিতে ঢাকা-রাজশাহী মহাসড়ক অবরোধ করে বিশ্ববিদ্যালয়ের শতাধিক শিক্ষার্থী।

তাদের দাবিগুলো হলো- অনতিবিলম্বে নাহিদ ও আসিফসহ যারা হত্যা চেষ্টায় জড়িত ছিল তাদের গ্রেপ্তার, তাদের স্থায়ীভাবে বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বহিষ্কার, হল প্রশাসন নিরাপত্তা প্রদানে ব্যর্থ হওয়ায় হল প্রাধ্যক্ষের পদত্যাগ, গুরুতর আহত শিক্ষার্থীর চিকিৎসার সকল ব্যয়ভার বহন করতে হবে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনকে।

পরে বিকেল ৩ টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যের বাসভবনে এক বৈঠকে আলোচনা শেষে শিক্ষার্থীদের সকল মেনে নেয়ার আশ্বাস দেন ফিনান্স বিভাগের সভাপতি অধ্যাপক রুস্তম আলী। এ সময় উপস্থিত ছিলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য আনন্দ কুমার সাহা, ছাত্র উপদেষ্টা লায়লা আরজুমান বানু।

পরে বিভাগের সভাপতির এ আশ্বাসে শিক্ষার্থীরা আন্দোলন সাময়িকভাবে প্রত্যাহার করে নেন। তবে আগামীকালের মধ্যে দাবিগুলোর দৃশ্যমান বাস্তবায়ন না হলে আবারো রাজপথে নামার ঘোষণা দেন তারা।

এ দিকে এ ঘটনায় ভুক্তভোগী শিক্ষার্থী সোহরাব বাদী হয়ে অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে মতিহার থানায় হত্যাচেষ্টা মামলা দায়ের করেছেন বলে নিশ্চিত করেছে নগরীর মতিহার থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা হাফিজুর রহমান।

ভুক্তভোগী সোহরাব হোসেন বিশ্ববিদ্যালয়ের ফিন্যান্স বিভাগের তৃতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী ও শামসুজ্জোহা হলের আবাসিক ছাত্র। সোহরাবের মাথা ও হাতে গুরুতর জখম হয়েছে। বর্তমানে তিনি রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালের আট নম্বর ওয়ার্ডে চিকিৎসাধীন।

অন্যদিকে অভিযুক্ত দুই ছাত্রলীগ কর্মী হলো, ইসলামিক স্টাডিজ বিভাগের শিক্ষার্থী আসিফ লাক ও বাংলা বিভাগের শিক্ষার্থী হুমায়ুন কবির নাহিদ। তারা দুইজনই চতুর্থ বর্ষের শিক্ষার্থী এবং শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি গোলাম কিবরিয়ার অনুসারী।

হল সূত্রে জানা যায়, শুক্রবার রাত সাড়ে ১২টার দিকে আসিফ লাকের নেতৃত্বে কয়েজন ছাত্রলীগ কর্মী সোহরাবকে ল্যাপটপ চুরির অভিযোগে হলের তৃতীয় ব্লকের ২৫৪ নম্বর কক্ষে নিয়ে যায়। সেখানে তাদের পরিচয়পত্র দেখতে চাওয়া হয়, একই সাথে বিভিন্ন বিষয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করেন আসিফ লাক ও হুমায়ন কবির নাহিদ।

ভুক্তভোগী সোহরাব জানান, “আমাকে রুমে নিয়ে গিয়েই রুম বন্ধ করে দেয়া হয়। প্রথমেই ‘তোর কি সমস্যা’ বলে রড দিয়ে আমার শরীরের বিভিন্ন স্থানে আঘাত করা শুরু করে নাহিদ। একই সাথে কাঠ দিয়ে আমার মাথায় উপর্যুপরি আঘাত করতে থাকে আসিফ লাক।”

সোহরাব আরো জানান “আমার মাথা ফেটে রক্ত ঝরতে শুরু করলে, আমি চিৎকার করে কাঁদতে শুরু করি, আমাকে না মারার জন্য অনুরোধ করি। কিন্তু তারা আমাকে মারা থামায় নি, বরং আমায় বলে আমি চিৎকার করলে আমাকে মেরে ফেলা হবে।’

ঘটনার পরে সোহরাবের বন্ধুরা গুরুতর আহত অবস্থায় তাকে প্রথমে বিশ্ববিদ্যালয় চিকিৎসা কেন্দ্রে ও পরে রামেকে ভর্তি করেন।

সোহরাবের বন্ধুরা চিকিৎসকের উদ্ধৃতি দিয়ে জানান, সোহরাবের বাম হাতের কনুইয়ের ওপর ও নিচে দুই জায়গায় ভেঙে গেছে। এছাড়া তার মাথার তিন জায়গায় মোট ১৫টি সেলাই দেওয়া হয়েছে। এছাড়া তার পায়েও গুরুতর জখম হয়েছে।

এদিকে এ ঘটনায় ৪ সদস্য বিশিষ্ট একটি তদন্ত কমিটি গঠন করেছে বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগ৷ কমিটির সদস্যদের ২৪ ঘন্টার মধ্যে তদন্ত প্রতিবেদন দিতে বলা হয়েছে।

এ বিষয়ে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সভাপতি নাহিয়ান বলেন, আমরা ইতোমধ্যেই এবিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সাথে কথা বলেছি। অতি দ্রুত অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

আই.এ/

মন্তব্য করুন