তাহাজ্জুদ নামাজরত মুয়াজ্জিনের পিঠে ধারালো অস্ত্র দিয়ে আঘাত

প্রকাশিত: ৫:২২ অপরাহ্ণ, নভেম্বর ১১, ২০১৯

গভীর রাতে মসজিদে তাহাজ্জুদ নামাজে দাঁড়িয়েছিলেন মুয়াজ্জিন। এমন সময় পেছন থেকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে তার পিঠে আঘাত করে আহত করা হয়। শুনতে কিছুটা খারাপ লাগলে কুষ্টিয়ার খোকসা উপজেলার একটি মসজিদে  রোববার (১০ নভেম্বর) গভীর রাতে এমন ঘটনাই ঘটেছে।  

জানা গেছে, ফজরের আজানের কিছুটা সময় বাকি থাকতে তাহাজ্জুতের নামাজে দাঁড়ান মসজিদের মুয়াজ্জিন মো. এমদাদুল ইসলামের (৬০) । এমন সময় পেছন থেকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে তাকে আঘাত করা হয়। চিৎকার করলে কালো জ্যাকেট পরা এক ব্যক্তি পালিয়ে যায়। তবে ওই ব্যক্তি এক জোড়া স্যান্ডেল ফেলে গেছেন। পরে আহত অবস্থায় তাকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়।

স্থানীয় সূত্র জানায়, উপজেলার ওসমানপুর ইউনিয়নের হিজলাবট জামে মসজিদে ৫০ বছর ধরে মুয়াজ্জিন হিসেবে বিনা পারিশ্রমিকে কাজ করছেন এমদাদুল ইসলাম।

ওসমানপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আনিসুর রহমান বলেন, আহত মুয়াজ্জিন এমদাদুল ইসলামকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। তিনি সৎ মানুষ। সারাজীবন মসজিদ নিয়ে পড়ে আছেন তিনি। তার ওপর হামলার ঘটনা অত্যন্ত দুঃখজনক।

উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. কামরুজ্জামান সোহেল বলেন, মুয়াজ্জিনকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে আঘাত করা হয়েছে। তার একটি ক্ষতে প্রায় ১৭টি সেলাই দেয়া হয়েছে। খোকসা থানা পুলিশের উপপরিদর্শক (এসআই) আব্দুর রহমান বলেন, সোমবার সকালে খবর পেয়ে ওই এলাকায় যাই। আহত মুয়াজ্জিনকে থানায় অভিযোগ দিতে বলা হয়েছে।

ইসমাঈল আযহার/পাবলিক ভয়েস

মন্তব্য করুন