রামগঞ্জে একই দিনে দুই স্কুল ছাত্রী ধর্ষণ ও গণধর্ষণের শিকার, আটক ৪

প্রকাশিত: ৬:৪৫ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ২৩, ২০১৯
ধর্ষণের ঘটনায় আটক রুবেল

পারভেজ হোসাইন, রামগঞ্জ (লক্ষ্মীপুর) প্রতিনিধি: লক্ষ্মীপুরের রামগঞ্জে পৃথক ঘটনায় ৪র্থ শ্রেনীর ছাত্রীকে ধর্ষণ ও ৮ম শ্রেনীর আরেক ছাত্রী গণধর্ষনের শিকার হয়েছে।

ধর্ষণের ঘটনায় সোমবার মধ্য রাতে উপজেলার ভোলাকোট ইউনিয়ের দেহলা গ্রামের হাবিব উল্যা মৌলভী বাড়ীর আনোয়ার হোসেনের বখাটে ছেলে রুবেল (২২) এবং গণধর্ষনের ঘটনা মঙ্গলবার সকালে রাসেল (২৪), ইমাম (২৮), শরীফ (৩০) কে আটক করেছে পুলিশ। তবে গণধর্ষনের ঘটনার মূলহোতা পশ্চিম ভাদুর রিফিউজি বাড়ীর ইব্রাহীমের বখাটে ছেলে শাওন (২৪) এখনো পলাতক রয়েছে। এসব ঘটনায় থানায় পৃথক দুইটি মামলার প্রস্তুতি চলছে।

থানা ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, কাওয়ালীডাঙ্গা উচ্চ বিদ্যালয়ের ৮ম শ্রেনীর ছাত্রী নুসরাত জাহান নাফিজার সাথে পশ্চিম ভাদুর গ্রামের শাওনের সাথে দীর্ঘ দিন যাবত প্রেমের সম্পর্ক চলে আসছে। এরই সূত্র ধরে ২১ অক্টোবর সোমবার বিকালে স্কুল শেষে সিএনজি যোগে বাড়ী ফেরার পথে কৌশলে প্রেমিক শাওন সিএনজি চালকের যোগসাজশে প্রেমিকা নুসরাতকে পশ্চিম ভাদুর নোয়াবাড়ীর একটি ঘরে নিয়ে আটকে রাখে। পরে শাওন, শরীফ, ইমাম, রাসেল মিলে রাতভর পালাক্রমে ধর্ষণ করে। খবর পেয়ে মঙ্গলবার সকালে পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে ঐ স্কুল ছাত্রীকে উদ্ধার করে। এ সময় রাসেল, ইমাম ও শরীফকে আটক করলেও প্রেমিক শাওন পালিয়ে যায়।

অপর এক ঘটনায় উপজেলা দেহলা বালিকা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ৪র্থ শ্রেনীর এক ছাত্রীকে স্কুল থেকে বাড়ী ফেরার পথে ১০ টাকা দেওয়ার প্রলোভন দেখিয়ে পার্শ্ববর্তী সুপারি বাগানে নিয়ে ধর্ষণ করে একই গ্রামের বখাটে রুবেল। পরে ঐ ছাত্রী বাড়ীতে এসে তার মাকে বিষয়টি জানানোর পর মা শিল্পী বেগম রামগঞ্জ থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করলে সোমবার রাত ১১ টায় ঐ গ্রামের একটি চায়ের দোকান থেকে অভিযুক্ত রুবেলকে আটক করে পুলিশ।

এ ব্যাপারে জানতে চাইলে ওসি আনোয়ার হোসেন বলেন, গণধর্ষনের ঘটনায় তিন জনকে আটক করা হয়েছে। একজন পলাতক রয়েছে। তাকে আটকের চেষ্টা চলছে। অন্যদিকে ৪র্থ শ্রেনীর ছাত্রী ধর্ষণের অভিযোগে অভিযুক্ত রুবেলকে আটক করেছি। উভয় ভিক্টিমকে মেডিক্যাল চেকআপের জন্য লক্ষ্মীপুর সদর হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে।

/এসএস

মন্তব্য করুন