সাপাহারে মাদরাসা শিক্ষার্থীকে ধর্ষণ, ধর্ষককে গণধোলাই

প্রকাশিত: ১১:৩৮ পূর্বাহ্ণ, অক্টোবর ১৪, ২০১৯

নওগাঁ প্রতিনিধি: নওগাঁর সাপাহারে এক ধর্ষককে গনপিটুনী দিয়ে স্থানীয় হাসপাতালে ভর্তি করেছে এলাকাবাসী। এবিষয়ে থানায় ধর্ষন মামলা দায়ের হয়েছে। গত শনিবার সন্ধা ৭টার দিকে উপজেলার সহদল পাড়া ও ওমইল বাজার এলাকার মাঝামাঝি একটি আমবাগানে ঘটনাটি ঘটেছে।

থানায় দায়েরকৃত মামলার এজহার সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার সহদল পাড়ার জনৈক আশরাফুল ইসলামের এক মেয়ে স্থানীয় উমইল দাখিল মাদ্রাসায় ৯বম শ্রেণীতে পড়া শোনা করত। সে সূত্রে মেয়েটি প্রতিদিনের ন্যায় সেদিন দিনও বিকেলে ওই মাদ্রাসার এক শিক্ষকের নিকট প্রাইভেট পড়তে মাদরাসায় আসে। শিক্ষক না থাকায় সে দিন দীর্ঘ সময় অপেক্ষায় কর মেয়েটি সন্ধ্যে সাড়ে ৬টার দিকে সহদলপাড়া তার বাড়ির উদ্দেশ্যে রওয়ানা দেয়। পথিমধ্যে তার গ্রামের অদুরে একটি আমবাগানের নিকট পৌঁছলে আগে থেকে ওঁত পেতে থাকা একই গ্রামের তছলিম উদ্দীনের ছেলে মোর্শেদ আলী (২২) তার পথ রোধ করে।

এরপর জোর পূর্বক বাগানের ভিতর নিয়ে ওই শিক্ষার্থীকে ধর্ষণ করে মোর্শেদ। এসময় মেয়েকে এগিয়ে নিতে আসা ওই শিক্ষার্থীর মা মেয়র চিৎকার শুনতে পেয়ে নিজেও চিৎকার শুরু করেন। চিৎকার শুনে লোকজন জড়ো হয়ে বাগান ঘেরাও করে ধর্ষক মোরর্শেদ আলীকে হাতে-নাতে আটক করে গণধোলাই দেয়।

মারপিটের এক পর্যায়ে ধর্ষকের মাথা ফেটে ফিনকি দিয়ে রক্ষ বের হলে স্থানীয়রা তাকে তাৎক্ষনিক সাপাহার উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে। পরে ওইদিন রাতে থানায় একটি অভিযোগ দাখিল করেন ধর্ষিতার বাবা। পরে রাতেই হাসপাতাল থেকে ধর্ষক মোরর্শেদকে আটক করে পুলিশ। ধর্ষক মোর্শেদ বর্তমানে ‍পুলিশ প্রহরায় চিকিৎসাধীন রয়েছে।

/এসএস

মন্তব্য করুন