জনসচেতনতা সৃষ্টিই পারে যৌন হয়রানি রোধ করতে

প্রকাশিত: ৭:৫৪ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ১২, ২০১৯

সর্বোচ্চ আদালতের রায়ে দেয়া গাইডলাইন ও বিদ্যমান বাস্তবতা অনুযায়ি আইন প্রনয়ণ, নারীর প্রতি দৃষ্টিভঙ্গির পরিবর্তন এবং সর্বস্তরে জনসচেতনতা সৃষ্টিই পারে যৌন হয়রানি রোধ করতে। “যৌন হয়রানি প্রতিরোধে হাইকোর্টের রায় বাস্তবায়ন ও গনমাধ্যমের ভূমিকা ” শীর্ষক কর্মশালায়-বক্তারা আজ এসব কথা বলেন।

আইন-আদালত সংক্রান্ত রিপোর্টারদের সংগঠন ল’ রিপোর্টার্স ফোরাম (এলআরএফ) ও বাংলাদেশ জাতীয় মহিলা আইনজীবী সমিতির আয়োজনে ফেয়ার ওয়্যার ফাউন্ডেশনের সহযোগিতায় সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতি ভবনের শহীদ শফিউর রহমান মিলনায়তনে এ কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তৃতা করেন সুপ্রিমকোর্টের হাইকোর্ট বিভাগের বিচারপতি শেখ হাসান আরিফ।

শুভেচ্ছা বক্তৃতা করেন এলআরএফ-এর সাধারণ সম্পাদক নাজমুল আহসান রাজু, কর্মশালার লক্ষ্য-উদ্দেশ্য ও হাইকোর্টের রায় নিয়ে আলোচনায় অংশ নেন জাতীয় মহিলা আইনজীবী সমিতির সভাপতি এডভোকেট ফাওজিয়া করিম ফিরোজ, স্বাগত বক্তৃতা করেন এলআরএফ-এর সভাপতি ওয়াকিল আহমেদ হিরন, আলোচনায় অংশ নেন ফেয়ার ওয়্যার ফাউন্ডেশনের কান্ট্রি রিপ্রেজেনন্টেটিভ বাবলুর রহমান, এলআরএফ-এর সাবেক সভাপতি এম বদি-উজ-জামান, এডভোকেট নাহিদ আনজুম কনা, এডভোকেট তৌহিদা খন্দকার, এডভোকেট জোবায়দা পারভিন, এডভোকেট সীমা জহুর, সাংবাদিক মাজহারুল হক মান্না ও আফজাল হোসাইন।

প্রধান অতিথির বক্তৃতায় বিচারপতি শেখ হাসান আরিফ বলেন, এখন প্রতিটা জায়গায় যৌন হররানির ঘটনা ঘটছে। নারীকে বাদ দিয়ে সমাজ কল্পনা করা যায় না। নারী জাগরণে রাষ্ট্রে নারীর ভূমিকা এখন অপরিসীম। তাই নারীদের অধিকার নিশ্চিত করতে হবে। নারী কারো বোন কারো সন্তান কারো স্ত্রী এভাবে সকলের দৃষ্টিভঙ্গি বদলাতে হবে। তিনি বলেন, এক সময় নারীরা যৌন হয়রানির কথা প্রকাশ করতনা-এখন প্রকাশ করে। তিনি বলেন, অনেক সীমাবদ্ধতার মধ্যে গনমাধ্যম দায়িত্ব পালন করে থাকে। তা সত্ত্বেও গনমাধ্যমের প্রসার যেভাবে হয়েছে তাতে বিষয়টিতে (যৌন হয়রানি রোধ) সচেতনতা সৃষ্টিতে এ মাধ্যমের ভূমিকা অপরিসীম।

সাম্প্রতি আবরার হত্যার প্রসঙ্গ টেনে তিনি বলেন, সংশ্লিষ্টরা আগে থেকেই যার যার ভূমিকা বা দায়িত্ব যথাযথভাবে পালন করলে এ ধরণের ঘটনা ঘটতনা। এডভোকেট ফাওজিয়া করিম ফিরোজ বলেন, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে যদি যৌন হয়রানি প্রতিরোধ কমিটি কার্যকর এবং হাইকোর্টের নির্দেশনা সম্পর্কে সচেতনতা বৃদ্ধি করা যায়, তাহলে যৌন হয়রানি রোধ হবে।বাসস।

মুহসিন/পাবলিকভয়েস

মন্তব্য করুন