এটিএম হেমায়েত উদ্দিনের জানাজায় লাখো মানুষের ঢল

প্রকাশিত: ৬:০৪ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ১১, ২০১৯

জানাজার মাঠ থেকে শাহনূর শাহীন: ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব অধ্যাপক এটিএম হেমায়েত উদ্দিনের জানাজা আছর নামাজের পর সংসদ ভবনের পূর্ব-দক্ষিণ কর্ণারে টিএণ্ডটি মাঠে অনুষ্ঠিত হয়েছে। জানাজা নামাজের ইমামতি করেন ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের নায়েবে আমীর মুফতি সৈয়দ মুহাম্মদ ফয়জুল করীম।

জানাজায় শরিক হন লাখো মানুষ। জানাজায় উপস্থিন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামালসহ বিভিন্ন ইসলামী দলের নেতাকর্মীরা।

জানাজা শেষে হেমায়েত উদ্দিনের লাশ নিয়ে মড়লগঞ্জ রওনা দেওয়া হয়। ইসলামী আন্দোলনের প্রচার সম্পাদক আহমদ আব্দুল কাইয়ূম পাবলিক ভয়েসকে জানান, এই নেতাকে নিজের গ্রামের বাড়ি মড়লগঞ্জের রাজৈরে তার বাবা মায়ের কবরের পাশে দাফন করা হবে।

আজ শুক্রবার সকাল ১০ টা ৪০ মিনিট-এ নিজ বাসায় টিএম হেমায়েত উদ্দিন ইন্তেকাল করেন। তিনি দীর্ঘ দিন ধরে অসুস্থতায় ভুগছিলেন। মৃত্যুকালে তিনি স্ত্রী, এক ছেলে, এক মেয়ে, নাতি-নাতনিসহ রাজনৈতিক সহকর্মী, ভক্ত-অনুরাগী রেখে গেছেন।

সম্প্রতি চিকিৎসার জন্য তিনি ভারত সফর করেন। ভারতে তিনি মুম্বাই এর বিশেষজ্ঞ ডাঃ আদভানীর অধিনে কেমোথেরাপি চিকিৎসা নেন।

দীর্ঘ রাজনৈতিক জীবনে তিনি ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের বিভিন্ন পর্যায়ে দায়িত্ব পালন করেছেন। অবিভক্ত ঢাকা মহানগরের দীর্ঘদিনের সভাপতি ছিলেন বর্ষিয়ান এ রাজনীতিবিদ। সর্বশেষ ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশে এর কেন্দ্রীয় কমিটির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিবের দায়িত্ব পালন করেন অধ্যাপক হেমায়েত উদ্দিন।

ব্যাক্তিগত জীবনে ১১ ভাই ও পাঁচ বোনের মধ্যে এটিএম হেমায়েত উদ্দিন দ্বিতীয় ছিলেন। তিনি ঢাকা মাদ্রাসাই আলিয়া থেকে কামিল এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে এমএ ডিগ্রি সম্পন্ন করেন। ফার্মগেটের পশ্চিম রাজাবাজার জামে মসজিদে ৪২ বছর ধরে ইমাম ও খতিবের দায়িত্ব পালন করেন তিনি। এছাড়াও তিনি মালিবাগ আবুজর গিফারী কলেজে দীর্ঘদিন অধ্যাপনা করে বর্তমানে রামপুরা কামরুন্নেসা ডিগ্রি কলেজের সহযোগী অধ্যাপকের দায়িত্বে নিয়োজিত ছিলেন।

রাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল, ইসলামী ঐক্যজোটের চেয়ারম্যান মাওলানা আবদুল লতিফ নেজামী, খেলাফত মজলিসের মহাসচিব মাওলানা মাহফুজুল হক, ইসলামী ঐক্য আন্দোলনের চেয়ারম্যান ড. ঈসা শাহেদী, ইসলামী আন্দোলনের সৈয়দ মোসাদ্দেক বিল্লাহ মাদানী, নূরুল হুদা ফয়েজী, মাওলানা ইউনুছ আহমাদ, খেলাফত আন্দোলনের মাওলানা জাফরুল্লাহ খান, মাওলানা মুজিবুর রহমান হামিদী, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ড. আব্দুস সবুর খান, জমিয়াতুল মোদাররেসীনের মহাসচিব মাওলানা শাব্বির আহমদ মমতাজী, মুসলিম লীগের মহাসচিব কাজী আবুল খায়েরসহ বিভিন্ন শ্রেণিপেশার মানুষ অংশ নেন। তার মৃত্যুতে বিভিন্ন রাজনৈতিক ও ধর্মীয় সংগঠন শোক প্রকাশ করেছে।

আই.এ/

মন্তব্য করুন